মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১, ২০ ২০
দেশজুড়ে ডেস্ক
৪ নভেম্বর ২০ ২০
১২:৪০ অপরাহ্ণ
তিতাসে নির্বাচনে আ'লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মোঃ মোসলেম মিয়া সরকার

এস এ ডিউক ভূঁইয়া-তিতাস(কুমিল্লা)::  আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কুমিল্লার তিতাস উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মোঃ মোসলেম মিয়া সরকার। উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছ আসছেন তিনি।মৌটুপী ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসার সভাপতি ও শিবপুর সরকার বাড়ীর কৃতি সন্তান মোঃ মোসলেম মিয়া সরকার। ইতিমধ্যে তিনি এলাকার বিভিন্ন স্থানে প্রচার-প্রচারণা ও ব্যানার ফেস্টুন ঝুঁলিয়েছেন।

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই ইতিমধ্যেই মানসিক প্রস্ততি ও দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে প্রচারণার প্রস্ততি নিচ্ছেন তিনি। জানা যায়, ২০০৩ সালে তখনকার বৃহত্তর দাউদকান্দি উপজেলা মজিদপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে হাঁস মার্কা প্রতিক নিয়ে অংশ নেন মোঃ মোসলেম মিয়া সরকার।সে নির্বাচনে প্রথমত জয় লাভ করে কিন্তু ইউনিয়নের সাহাপুর কেন্দ্র প্রতিপক্ষ প্রার্থী ফারুক মিয়া সরকার সংঘর্ষ বাধালে সাহাপুর কেন্দ্র স্থগিত করে প্রশাসন ঐ আমলে প্রভাবশালী মন্ত্রী ছিল ড.খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

পরে পুনরায় নির্বাচন হলে মজিদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয় ফারুক মিয়া সরকার।তিনি নির্বাচিত হয়ে নয় বছর মজিদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন করে এর মাঝে ২০০৪ সালে বৃহত্তর দাউদকান্দি থেকে আলাদা হয়ে তিতাস নামে নবগঠিত হয় উপজেলা।

পরবর্তী ২০১১ সালের নির্বাচনে   মোঃ মোসলেম মিয়া সরকার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে মজিদপুর ইউনিয়ন থেকে পুনরায় নির্বাচন করে। সে নির্বাচনে দলীয় হোমনা-তিতাসে অভিভাবক না থাকার কারণে বিএনপির প্রভাবশালী মন্ত্রী প্রয়াত এমকে আনোয়ার থাকার কারণে আনারস মার্কা নিয়ে অল্প ভোটের ব্যবধানে পরাজয় বরণ করতে হয় তাঁর।

আবারও ৫ বছর পর ২০১৬ সালে ইউপি নির্বাচন আসলে ওই  নির্বাচনে মজিদপুর ইউনিয়ন তৃনমূল আওয়ামী লীগের একক সমর্থন লাভ করে মোঃ মোসলেম মিয়া সরকার এবং মজিদপুর ইউনিয়ন থেকে মনোনয়ন বোর্ডের সিদ্ধান্তে মহিলা কোটা থেকে শাকিলা পারভিন-কে নৌকা প্রতীক দেওয়াতে তিতাস উপজেলার নয়টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্য ৮টি ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়। শুধু মজিদপুর ইউনিয়নে মহিলাকে নৌকা প্রতীক দেওয়ার কারণে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন ফারুক মিয়া সরকার।

এবার ইউনিয়নবাসী’রা বলছেন, মোঃ মোসলেম মিয়া সরকার মহামারি করোনা ভাইরাসের সময়ে সততা,দক্ষতা ও দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়েছেন। জনগণের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠায় সর্বদা অগ্রনী ভূমিকা পালন করেছেন তিনি। ইউনিয়ন নির্বাচনী এলাকার সর্বস্তরের জনগণ তাঁকে চেয়ারম্যান পদে দেখতে চান। জনগণের এ আবদার রক্ষার্থে মোঃ মোসলেম মিয়া সরকার নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে অংশগ্রহণ করার প্রস্ততি নিচ্ছেন।
মোঃ মোসলেম মিয়া সরকার বলেন, আমি দীর্ঘদিন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত আমার অভিভাবক কুমিল্লা-২ (হোমনা-তিতাস) আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ (মেরী) ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ পারভেজ হোসেন সরকারের  হাতেকে শক্তিশালী ও উন্নয়ন কাজ গুলো আরো গতিশীল করতে আমি জনগণের যে সমস্য গুলো আছে সেগুলো সমাধান করতে আসন্ন  মজিদপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আমি প্রার্থী হতে চাই। এছাড়াও আলোর যাত্রাকে আলোকিত করার লক্ষ্যে ইউনিয়নবাসীর কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত রাখবো ইনশাল্লাহ। 

সে লক্ষ্যেই তিনি এলাকার দলীয় নেতাকর্মীদের দলীয় সকল কর্মকাণ্ডে নানা ভাবে সহযোগিতা করে নিজের অবস্থান তুলে ধরে তিনি বলেন, “আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়ে পূর্বের ন্যায় পুনরায়  জনগণের পাশে দাড়াতে আমি প্রার্থী হতে চাই” তাঁদের সুখ দুঃখের সাথী হতে চাই এবং ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেবা তাঁদের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে চাই।

এছাড়া মোঃ মোসলেম মিয়া সরকার আরও বলেন, ২০১৬ সালে আমি নৌকা প্রতীক না পেয়ে দলের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আমি বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করিনি। এখনো আমার দলের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আমি বলতে চাই আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ২০২১ সালে হলে,আমি তৃণমূল আওয়ামী লীগের সমর্থন কামনা করি।জানা যায়, বর্তমান করোনা ভাইরাসের মহামারীর সময় তিনি সাধ্যানুযায়ী কর্মহীন খেটে খাওয়া অসহায় মানুষদের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেন তিনি।
এস এ ডিউক

সম্পর্কিত খবর

পুরানো খবর দেখার জন্য