মঙ্গলবার, জুলাই ৭, ২০ ২০
শিক্ষা ডেস্ক
২১ জুন ২০ ২০
৬:২৪ অপরাহ্ণ
কানাইঘাটে বীরদল অগ্রগামী উচ্চ বিদ্যালয়ের  নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল

সিলেটের কানাইঘাটে স্কুলের শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ পরীক্ষায় অনিয়ম-লুকোচুরি ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিবাদের মূখে বাতিল করা হয়েছে এ পরীক্ষা। পণ্ড হয়ে গেছে জামায়াতীদের নিয়োগ ষড়যন্ত্র। বৃহস্পতিবার(১৮ জুন)  কানাইঘাট উপজেলার রাজাগঞ্জ ইউনিয়নের বীরদল অগ্রগামী উচ্চবিদ্যালয়ের এ  নিয়োগ পরীক্ষা নেওয়া হয়। 

স্থানীয় সংবাদ সূত্র জানায়- উপজেলার বীরদল অগ্রগামী উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক গোলাম কিবরিয়া কামাল ও স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম দু'জনই জামায়াতে ইসলামের শীর্ষ স্থানীয় নেতা। গতবছর স্কুলটি এমপিওভুক্ত হলে তিনটি পদে একজন করে নিয়োগ দিতে হচ্ছে। পদগুলো হচ্ছে- প্রধান শিক্ষক,অফিস সহকারী ও এমএলএসএস।
 গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর দৈনিক সিলেটের ডাক পত্রিকায় এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। কিন্তু করোনা পরিস্থিতি ও লকডাউন জনিত নানা কারণে সময়মত নিয়োগ পরীক্ষা নেওয়া হয়নি।

এ অবস্থায় পরবর্তী সার্কুলার না জানিয়ে এই করোনাকালে হঠাৎ করে ১৮ জুন পরীক্ষার আয়োজন করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার সকালে এ পরীক্ষা গ্রহণ শুরু করে স্কুল মনোনীত নিয়োগ বোর্ড। নিয়োগ বোর্ডে ছিলেন স্কুল কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক গোলাম কিবরিয়া কামাল, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম  ও ডিজি প্রতিনিধি কানাইঘাট সরকারী উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুখলিছুর রহমান। 

নিয়োগ পরীক্ষায় প্রধান শিক্ষক পদে পরীক্ষার্থী হাজির করা হয় স্কুল সভাপতির আত্মীয় ও স্কুল কমিটির অভিভাবক সদস্য আজমল হোসেন, জহুরুল ইসলাম , মুজিবুল হক এই ৩ জনকে।  
আফিস সহকারী পদে পরীক্ষার্থী হাজির করা হয় সভাপতির স্বজনদের মধ্য থেকে ছাত্র শিবিরের কেডার  ছারওয়ার সহ ৭ জনকে। এমএলএসএস পদে হাজির করা হয় বর্তমান প্রধান শিক্ষকের  বড়ভাই  গোলাম আজম ধলাই ও আপন ভাগ্নে খালেদ আহমদ এবং তার চাচাতো ভাই রুবেল আহমদসহ ৩ জনকে।
নাটকীয় এ নিয়োগ পরীক্ষার খবর জানাজানি হলে এলাকাবাসী প্রতিবাদী হয়ে ওঠেন। এলাকাবাসী তাদের ক্ষোভের বিষয়টি তাৎক্ষণিক অবগত করেন সিলেট-৫ আসনের এমপি  হাফিজ আহমদ মজুমদারকে। এমপি'র হস্তক্ষেপে ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার চাপে লুকোচুরি ও নাটকীয় নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল করতে বাধ্য হয় স্কুল কর্তৃপক্ষ।

কানাইঘাটের বীরদল অগ্রগামী উচ্চ বিদ্যালয় সভাপতি অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক  গোলাম কিবরিয়ি কামাল ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার তরিকুল ইসলাম নিয়োগ পরীক্ষা বাতিলের সত্যতা নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের জানান- পরীক্ষা বিধি মোতাবেক গ্রহণ করা হলেও সিলেট-৫ এর সম্মানীত  এমপি  জনাব হাফিজ আহমদ মজুমদারের নির্দেশনায় তা বাতিল ঘোষনা করা হয়। পরবর্তী সার্কুলারের মাধ্যমে আবার নিয়োগ পরীক্ষা নেওয়া হবে বলে জানান তারা।

এ ব্যাপারে স্কুল কমিটির সভাপতি এডভোকেট নজরুল ইসলাম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আবেদনকারি ১৩ জনের একজনও আমার আত্মীয় নন। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী নিয়োগ কার্যক্রম চলছিল। যোগ্যতা অনুযায়ী প্রার্থীরা আবেদন জমা দিয়েছেন। তিনি বলেন, বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ৬ মাসের মধ্যে নিয়োগ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হয়।

এখনও সেই সময় পেরিয়ে যায়নি। ১৮ জুন নিয়োগ পরীক্ষার আয়োজন করা হয়, প্রধান শিক্ষক পদে আবেদনকারীর সংখ্যা কম থাকায় সংসদ সদস্য হাফিজ আহমদ মজুমদারের পরামর্শে ইউএনও, শিক্ষা অফিসারের সঙ্গে আলোচনা করে নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। পরবর্তীতে আবার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।

সম্পর্কিত খবর

পুরানো খবর দেখার জন্য