রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

এক ট্রাফিক সার্জেন্টের চোখে সিলেট নগরীর যানজট



ফাহাদ মোহাম্মদ :: কথায় আছে উন্নত বিশ্বে বাড়ি করার আগে রাস্তা করা হয় আর বাংলাদেশে আগে বাড়ি তার পরে রাস্তা। সিলেটের রাস্তাঘাট দেখে মনে হয় ক্ষেতের আইলে আইলে রাস্তা তৈরি হয়েছে। একটা রাস্তাও আধা কিলোমিটার সোজা না প্রতিটি রাস্তায় অসংখ্য বাক। বিভিন্ন পত্রিকায় বিভিন্ন সময় উঠে এসেছে সিলেটের যানজটের বিভিন্ন কারণ। আমি অনেক পত্রিকায় দেখেছি সিলেটের ট্রাফিকজ্যাম নিয়ে অনেকেই অনেক কারণ উল্লেখ করেছেন। আর যারা এসব প্রতিবেদন তৈরি করেছেন তাদের বেশিরভাগ বলেছে ডিজিটাল ট্রাফিক সিগনাল না থাকা ট্রাফিকজ্যামের অন্যতম কারণ।

যানজট নিয়ে কাজ করার কারণে আমার কিছু বাস্তব অভিজ্ঞতা হয়েছে সিলেট শহরের যানজট সম্পর্কে। ঢাকা ও চট্টগ্রামের তুলনায় সিলেট অনেক ছোট শহর। তবুও এই শহরের মানুষদের যানজটে পরতে হয়। তবে সেটা নিতান্তই কম। যানজট নিয়ে কাজ করতে গিয়ে আমার কাছে যে কারণ গুলো যানজটের জন্য দায়ী বলে মনে হয়েছে সেগুলোই আমি আলোচনা করার চেষ্টা করবো।

১। অপ্রশস্ত রাস্তা : আমার মনে হয় সিলেট পৃথিবীর অন্যতম অপরিকল্পিত একটি শহর। সিলেটের প্রায় প্রতিটি রাস্তা অপ্রশস্ত। একটি শহরের রাস্তা যতটা প্রশস্ত হওয়ার দরকার তার ধারেকাছেও সিলেটের রাস্তাঘাট নেই। নগরীর সব থেকে বেশি ট্রাফিকজ্যাম হয় লামাবাজার, সোবহানীঘাট, পেপার পয়েন্ট(লালবাজার-করিমউল্লাহ মার্কেটের সামন-পোস্ট অফিসের সামন), শিবগঞ্জ, মেন্দিবাগ পয়েন্ট, আম্বরখানা। দেখা যাচ্ছে সেই সকল এলাকার রাস্তা অত্যন্ত সরু। গাড়ির তুলনায় রাস্তা কম। একই রাস্তায় রিক্সা ও বাস চলাচল করার নজির পৃথিবীর কোথাও আছে বলে আমার জানা নাই। একটা রিক্সা যে গতিতে চলবে অন্যান্য যানবাহনও একই গতিতে চলতে বাধ্য কারণ ধীরগতি ও দ্রুতগতির গাড়ির জন্য আলাদা কোনো লেন নেই। যার কারণে শিবগঞ্জ – টিলাগড়, রিকাবিবাজার-শেখঘাট, আম্বরখানা-চৌহাট্টা, জিন্দাবাজার-নাইওরপুল, লামাবাজার-জিন্দাবাজার, সুবিদবাজার-আম্বরখানার মত ব্যস্ততম রাস্তাগুলোতে দ্রুত গতির গাড়ি চলতে সমস্যা হয়।

২। গাড়ি পার্কিংয়ের অপর্যাপ্ততা : সিলেট শহরের কোথাও পাবলিক পার্কিংয়ের সুবিদা নাই। শুধু মাত্র মার্কেটগুলোর আন্ডারগ্রাউন্ড পার্কিং দিয়ে সিলেটের পার্কিং চাহিদা পুরন করা অসম্ভব। বন্দর বাজারে যে জ্যাম হয় তার অন্যতম কারণ অবৈধ পার্কিং। যারা গাড়ি নিয়ে লাল বাজারে বাজার করতে আসেন তারা গাড়ি রাখার জন্য কোনো পার্কিং সুবিধা না পেয়ে বাজারের সামনেই গাড়ি রেখে দেন। তখন অন্যান্য গাড়ি চলাচল করতে সমস্যা হয়। পার্কিং সুবিধা না থাকায় যে যেখানে পারেন সেখানেই গাড়ি রেখে চলে যান।

৩। সিলেট শহরের যানজটের অন্যতম প্রধান কারণ হলো রাস্তার মোরে মোরে বিভিন্ন রকম গাড়ির স্ট্যান্ড। বিশেষ করে সিএনজি অটোরিকশার ও লেগুনা স্ট্যান্ডগুলো এই যানজটের প্রধান কারণ। সিএনজি অটোরিকশার জন্য নির্ধারিত স্ট্যান্ড না থাকার কারনে এরা রাস্তার মোড়েমোড়ে স্ট্যান্ড করে বসে থেকে যাত্রী উঠানামা করে। সিএনজির জন্য নির্ধারিত স্ট্যান্ড তৈরি করতে পারলে আম্বরখানা ও বন্দরের জ্যাম বেশিরভাগ ভাগ কমে যাবে।

৪। হকার : বন্দর বাজারের সব থেকে বড় সমস্যা হকার। বিকাল হওয়ার সাথে সাথে মহাজনপট্টি থেকে শুরু করে সুরমা পয়েন্ট(কীন ব্রীজের মোর) পর্যন্ত হকাররা রাস্তা দখল করে রাখে। এতে করে যান চলাচল মারাত্মকভাবে বিঘ্নত হয়। সিলেটের ব্যস্ততম এলাকার প্রায় প্রতিটি ফুটপাথ হকারদের দখলে। এমনকি দোকানের সামনে যদি ফুটপাথ থাকে তাহলে দোকানদার নিজের মনে করে সেটাও দখল করে নেন। এতে পথচারী চলাচলে অসুবিধা হয় এবং তারা রাস্তায় নেমে আসেন। যার ফলে গাড়ির গতি কমে আসে। বন্ধর বাজারে ফুটপাথের পাশাপাশি রাস্তার একটা বিঢ়াট অংশ হকারদের দখলে। রাস্তা বন্ধ করে তারা গাড়ি চলাচলে বিঘ্ন ঘটায়। বন্দর থেকে আম্বরখানা পর্যন্ত হকার একটি বড় সমস্যা।

৫। রাস্তার পাশে স্কুল ও হাসপাতাল : সিলেটের বেশিরভাগ জ্যামের জন্য দায়ি কয়েকটা প্রতিষ্ঠান। (ক) সোবহানি ঘাটের জ্যামের জন্য ইবনেসিনা হাসপাতাল একক ভাবে দায়ী। তাদের পর্যাপ্ত পার্কিং সুবিধা না থাকা, অপরিকল্পিত ভাবে হোটেলকে হাসপাতালে রূপান্তর করে এলাকাজুড়ে ট্রাফিক জ্যামের সৃষ্টি করেছে। (খ) স্কলারস হোম সাপ্লাই রোডের ট্রাফিক জ্যামের একমাত্র কারণ। স্কুল শুরু এবং ছুটির সময় অভিভাবকগণ তাদের গাড়ি নিয়ে আসেন। সরু রাস্তার দুই পাশে সাইড করে রাস্তাটা মোটামুটি বন্ধ করে দেন। (গ) আনন্দ নিকেতন এবং রাইজ একাডেমী ঘণ্টা খানেক সময় জ্যামের সৃষ্টি করে সুবিদ বাজার থেক পাঠানটুলা পর্যন্ত। (ঘ) ব্লু বার্ড মিরের ময়দান রোডে সমস্যার সৃষ্টি করে (ঙ) রিকাবী বাজার থেকে মেডিকেল রোড খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি রাস্তা। কিন্তু রাস্তার দুই পাশে অগণিত ডায়াগনস্টিক সেন্টার কোনো রকম পার্কিং সুবিধা না করে গড়ে উঠেছে। যার ফলে রাস্তার দুই পাশে গাড়ি পার্কিং করে রাখার কারণে জ্যামের সৃষ্টি হয়। ব্যস্ততম পয়েন্টের পাশেই সিএনজি ফিলিং স্টেশন, সুবহানি ঘাটের কাচা বাজার যানজটের কারণ।

৬। মোটরসাইকেল : মোটরসাইকেল চালকরাও যানজটের জন্য অনেকাংশে দায়ী। জিন্দাবাজার, বন্দর, নাইওরপুল, আম্বরখানা, চৌহাট্টা সহ গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে জ্যামের জন্য বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালকরা দায়ি। সিলেটে মোটরসাইকেল চালকরা কোনো প্রকার ট্রাফিক সিগনালের তোয়াক্কা করেন না। তাদের যে দিকে খুশি সেদিকেই ছুটে যান। উলটো পথে এসে রাস্তা বন্ধ করে দেয়, জ্যামের মধ্যে কার আগে কে যাবে সেই প্রতিযোগিতায় দুপাশের রাস্তাই বন্ধ করে দেয়। মোটরসাইকেল চালকদের মধ্যে এক ধরণের অস্থিরতা কাজ কাজে দ্রুত যাওয়ার জন্য।

৭। অপরিকল্পিত রাস্তাঘাট : সিলেটের জ্যামের সব থেকে বড় কারণ এই শহরের রাস্তাঘাট ক্ষেতের আইলের মতো তৈরি করা হয়েছে। নগরীর নাইওর পুল, আম্বর খানা, নয়া সড়ক পয়েন্ট দাঁড়িয়ে যদি কেউ লক্ষ্য করেন যে কতটা অপরিকল্পিত ভাবে এই পয়েন্টগুলোতে চত্বর তৈরি করা হয়েছে। রোড ইঞ্জিনিয়ারিং বলে যে একটা কথা আছে সেটা এই পয়েন্টেগুলোতে এসে সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলেছে।

৮। পার্কিং বিহীন মার্কেট : অপরিকল্পিত ভাবে তৈরি করা মার্কেট গুলোর বেশির ভাগের পার্কিং সুবিধা না থাকার কারণে মার্কেটে আশা গাড়িগুলো রাস্তায় রেখে চলে যায়।