বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

স্ত্রী বিচ্ছেদ চাইলে কী করবেন?



লাইফ স্টাইল:: খুব বেশি দিন আগের কথা নয়, যখন শুধু শোনা যেত স্বামী স্ত্রীকে তালাক দেয়। স্ত্রী স্বামীকে তালাক দিয়েছে এ কথা খুব একটা শোনা যেত না। তবে সম্প্রতি আমাদের সামাজিক অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে এখন স্ত্রী স্বামীর কাছে বিচ্ছেদ চাইছে এমন প্রায়ই শোনা যাচ্ছে।

কোনো স্ত্রী যদি সংসার করতে না চায় তবে তাকে জোর করে সংসার করানো কিংবা বাধ্য করা ও চেষ্টা করা যুক্তিসংগত নয়। কারণ বিয়ে হচ্ছে একজন নর ও নারীর মধ্যে স্বর্গের সম্পর্কের বন্ধন। তবে এখানে যখন বিষাদের ছাড়া নেমে আসে তখন আসে তালাকের প্রশ্ন। তবে শান্তির ধর্ম ইসলামে দুনিয়ায় শান্তির জন্য তালাকের বিধান রাখা হয়েছে।তবে সংসারে সন্তান থাকে তাহলে সন্তানের মঙ্গলের কথা দুজনের ভাবা উচিত।

এ নিয়ে সম্প্রতি বাংলাদেশ পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে এক মানববন্ধনে দাবি করা হয়েছে যে স্ত্রী যদি তালাক দেয় তবে কেন দেনমোহর পাবে। এ নিয়ে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে একটি মানববন্ধন করা হয়েছে।

তবে স্ত্রী তালাক দিলে কী দেনমোহর পাবেন? হ্যাঁ, অবশ্যই কারণ বিয়ের সঙ্গে দেনমোহরের কোনো সম্পর্ক নেই। কারণ বাংলাদেশের ইসলামি আইনে একজন নারীকে বিয়ে করে ঘরে তুলতে হলে অবশ্যই দেনমোহর দিতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। শুধুমাত্র স্ত্রী যদি চান তাহলে অনেক ক্ষেত্রে স্বামীর দেনমোহরের টাকা চাইলে মাফ করে দিতে পারেন। তবে দেনমোহর আবশ্যক।

অন্যদিকে তালাকের যে বিষয়টি বলা হয়েছে তা হলো আগে আমাদের দেশে কাবিনে স্ত্রীর তালাকের বিধান ছিল না। এখন করা হয়েছে। তবে একজন স্ত্রী যদি তার স্বামীকে তালাক দিতে চায় তবে অবশ্যই কাবিননামার ১৮ নম্বর কলামে তালাক উল্লেখ থাকতে হবে।

এছাড়া স্ত্রীর যদি তালাকের অধিকার না থাকে তবে পারিবারিক আদালতের মাধ্যমে তালাকের ডিক্রি নিতে হয়। তবে এ ধরনের তালাক পদ্ধতি একটু জটিল বটে। তবে মুসলিম আইনে খোরা তালাক নামে একটি পদ্ধতি আছে, যা দুজনের সম্মতিতে হয়ে থাকে।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে স্ত্রী তালাক দিতে চাইলে কী করবেন। স্ত্রী যদি তালাকের সিদ্ধান্তে অটল থাকে তবে জটিলতা না বাড়ানো ভালো। মনে রাখবেন তালাক স্বামী স্ত্রী উভয়ের অধিকার। স্বামী বা স্ত্রী চাইলে বিচ্ছেদ করাতে পারেন।