শনিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০ ২০
মৌলভীবাজার ডেস্ক
৫ নভেম্বর ২০ ২০
৫:৫৭ অপরাহ্ণ
কুলাউড়ায় এক কিশোরকে বলৎকারের অভিযোগ: মুলহোতাসহ আটক-৩

কুলাউড়া প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার হাজিপুর ইউনিয়নে ১৬ বছরের এক কিশোরকে ৭ যুবক ও তাদের অপর ২-৩ সহযোগি মিলে জোরপূর্বক বলৎকারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় বলৎকারের শিকার কিশোর মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। ঘটনাটি ০২ নভেম্বর সোমবার রাতে সংঘটিত হয়। কিশোরের বাবা কুলাউড়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ০৪ নভেম্বর বুধবার রাতে মামলাটি নথিভুক্ত করে পুলিশ এবং ঘটনার মুলহতো আতিক মিয়াসহ ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।
লিখিত অভিযোগ থেকে জানান যায়, ঘটনার দিন রাত সাড়ে ৯টায় ওই বলৎকারের শিকার কিশোরকে ব্যাডমিন্টন খেলার কথা বলে বিলেরপাড় গ্রামের মো. তছির আলীর পুত্র আতিক মিয়া (১৮) খেড়টিলা নামক স্থানে নিয়া যায়। সেখানে তার সহযোগি ইয়ামিছ আলীর ছেলে আনছার মিয়া (২৯), কুতুব আলীর ছেলে মো. ছামাদ মিয়া (২৮), মৃত ইরফান আলীর ছেলে শফিক মিয়া (২৮), মৃত মাছিম মিয়ার ছেলে সুমন মিয়া (১৯), শওকত আলীর ছেলে পাপ্পু হোসেন (১৮), আলাউদ্দিন (১৮)সহ তাদের অপর ২-৩ জন সহযোগি মিলে কিশোরকে মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক বলৎকার করে। একপর্যায়ে কিশোরের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এলে বলৎকারকারীরা পালিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় কিশোরের পিতা তাকে উদ্ধার করে কুলাউড়া হাসপাতালে ভর্তি করেন। কিশোরের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
এদিকে কিশোরের পিতা ০৩ নভেম্বর মঙ্গলবার রাতে কুলাউড়া থানায় ৭ জনের নামোল্লেখ করে আরও অজ্ঞাতনামা ২-৩ জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ০৪ নভেম্বর রাতেই পুলিশ মামলাটি নথিভুক্ত করে। মঙ্গলবার রাতে স্থানীয় জনতা ঘটনার মুলহোতা আতিক মিয়া, শফিক মিয়া, সুমন মিয়াকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। 
কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইয়ারদৌস হাসান জানান, আটক ৩জনকে ০৫ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতার পুলিশের চেষ্টা অব্যাহত আছে।
 

সম্পর্কিত খবর

পুরানো খবর দেখার জন্য