রবিবার, মার্চ ২৯, ২০ ২০
এক্সক্লুসিভ ডেস্ক
২১ মার্চ ২০ ২০
৯:৫৪ অপরাহ্ণ
বাউল করিমের গান গেয়ে এতো জনপ্রিয়তা অর্জন করবো কখনো ভাবিনি

আলিম উদ্দিন, (মোহাম্মদ) ঢাকা থেকে ফিরে:: সিলেটের বাউল শিল্পী শাহ আব্দুল করিমের দুঁটি বাউল গান রাজধানীর হাতিরঝিলে গেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় সর্বোচ্চ ভাইরাল হয়েছেন জামালপুরের কন্ঠশিল্পী দুরন্ত ইসলাম শ্রাবন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এ দুঁটি বাউল গানের ভিউয়ার হয়েছে প্রায় সোয়া কোটি। অসাধারণ কন্ঠে শাহ আব্দুল করিমের বাউল গান গেয়ে সিলেটবাসী সহ দেশ-বিদেশে অবস্থানরত শাহ আব্দুল করিম ভক্তদের মন জয় করে নিয়েছেন দুরন্ত ইসলাম শ্রাবন। সিলেট অঞ্চলের প্রবাসীদের অনুরোধে সেই গানরাজ অসাধারণ প্রতিভাবান কণ্ঠশিল্পী দুরন্ত ইসলাম শ্রাবনের একটি সাক্ষাৎকার গ্রহণ করতে সম্প্রতি রাজধানীর মোহাম্মদপুরে তার বাসায় গিয়েছিলাম।
দুরন্ত ইসলাম শ্রাবনের গ্রামের বাড়ী জামালপুর জেলার মেলান্দহ উপজেলার দুরমুট ইউনিয়নের হাতিজা গ্রামে। তার বর্তমান বয়স ১৩ বছর, পিতার নাম রফিকুল ইসলাম, মাতার নাম শাহানা আক্তার ও বড় ভাইয়ের নাম শিহাদুজ্জামান বিজয়। তাদের ৪ সদস্যর পরিবার। দুরন্ত ইসলাম শ্রাবন জামালপুরের চাইল্ড কেয়ার স্কুলে লেখাপড়া করতো। ছোট বেলা থেকেই তার গানের প্রতি আগ্রহ ছিলো। তখন সে ছোট থাকায় তাকে কেউ অনুষ্ঠানে গান গাইতে দিতনা। তার মা শাহানা আক্তার তাকে বাড়ীতে গান গাওয়ার উৎসাহ দিতেন। এখন রাজধানীর কুঁড়েঘর ব্যান্ডের পরিচালক আজিজুল হকের গানচক্র ব্যান্ডের মেইন ভোকাল হিসেবে আছে দুরন্ত। পাশাপাশি রাজধানীর মোহাম্মদপুরের ডঃ মিজানুর রহমান কলেজিয়েট স্কুলে লেখাপড়া করছে।
দুরন্ত ইসলাম জানায় ফেসবুকে দুরন্ত ইসলাম শ্রাবন নামে তার একটি পেইজ ছিলো। সেই পেইজে “আয়নাতে বাধানো ছিলো মধুরও মিলন” নামে একটি গান আপলোড করে তখন গানটি দেখে কুঁড়েঘর ব্যান্ডের পরিচালক আজিজুল হক ভাইয়া তাকে ফোন করে বলেন দুরন্ত একদিন হাতিরঝিল আসো। তোমার তাশরিফ ভাইয়া আসবে, সেখানে সবাই মিলে আড্ডা দেবো। তখন সেখানে গিয়ে শাহ আব্দুল করিমের দুটি বাউল গান গাই। সেই গান দুটি আজিজুল হক ভাইয়া তার মোবাইল ফোনে রেকর্ড করে তাশরিফ ভাইয়ার পেইজে ছেড়ে দেয়। এরপর থেকে অনেকেই ফোন দিয়ে বলে তোমার জনপ্রিয়তার শেষ নেই। বর্তমানে আমি ছায়ানটে গান শিখছি।
সিলেটের কৃতি সন্তান বাউল প্রয়াত শাহ আব্দুল করিমের গাওয়া “আমার মাটিরও পিঞ্জিরায় সোনার ময়নারে তোমারে পুষিলাম কত আদরে, বন্ধুরে কই পাবো সখিগো” কুঁড়েঘর ব্যান্ডের তাশরিফ খান ৬ ফেব্রুয়ারী ইউটিউবে ও ফেসবুকে আপলোড করেন। এরপর থেকে দেশ-বিদেশে দুরন্তের গাওয়া এ গানগুলো ব্যাপক সাড়া পায়। দুরন্ত ইসলাম ২য় শ্রেণীতে অধ্যয়নরত থাকাকালিন বাড়ীর পাশের একটি স্কুলের বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে মায়ের উৎসাহে গান গাওয়া শুরু করেন। তার গানের ১ম শিক্ষা গুরু হলেন তার মা শাহানা আক্তার। পরে টাঙ্গাইলে একটি প্রোগামে গান গাওয়ার পর সাজু মাহদি তাকে নিয়ে আসেন ঢাকায়। এরপর ধানমন্ডি ছায়ানট থেকে মিউজিকের শিক্ষা গ্রহণ করছেন। পাশাপাশি দুরন্ত ইসলাম শ্রাবন নামে ফেসবুক পেইজে তার গাওয়া গান গুলো আপলোড শুরু করেন। দুরন্ত জানায় ছোট থাকায় কেউ থাকে গান গাইতে দিতনা, পরে কোন ভাবে সুযোগ নিয়ে গান গাওয়ার পর আদর করে অনেকে মোবাইল ও মানি ব্যাগ তার দিকে ছুড়ে দিত। 
দুরন্তের মা শাহানা আক্তার বলেন, আমি আমার ছেলেকে গান গাইতে ছোট বেলা থেকেই উৎসাহ দিতাম, সে আমার উৎসাহ পেয়েই আজ অনেকদুর এগিয়েছে। তার গানের প্রতি আগ্রহ থাকায় আমি জামালপুর থেকে তাকে নিয়ে ঢাকায় চলে এসেছি। এখানে সে ছায়ানটে গান শিখছে। পাশাপাশি লোক সংগীত, গান, নাটক, সিনেমায় অভিনয় সহ বিভিন্ন কোম্পানীর বিজ্ঞাপনে কাজ করছে। সিলেট স্টেশন ক্লাবে তাকে নিয়ে দু’বার কনসার্টে গান করা হয়েছে। আমি তাকে নিয়ে সিলেটে যাওয়ার পর সিলেটবাসীর অনেক ভালবাসা আমি পেয়েছি। তার গান শুনে সিলেটের প্রবাসীরা সহ দেশের লোকজন থাকে অনেক ভালবাসা দেখিয়েছে। সেই জন্য সিলেটবাসী সহ সকলের কাছে আমি চির কৃতজ্ঞ।
কুঁড়েঘর ব্যান্ডের পরিচালক আজিজুল হক বলেন, দুরন্তের অসাধারণ প্রতিভা আছে। দুরন্ত ইসলাম শ্রাবন নামে একটি পেইজে “আয়নাতে বাধানো ছিলো মধুরও মিলন” নামে তার একটি গান সে আপলোড করে। গানটি আমার চোখে পড়লে আমি তাকে ফোন করে বলি দুরন্ত একদিন হাতিরঝিল আসো। সেখানে কুঁড়েঘর ব্যান্ডের তাশরিফ ভাই আসবে। তখন দুরন্ত চলে আসে হাতিরঝিলে। এখানে সে সিলেটের শাহ আব্দুল করিমের দুটি বাউল গান গায়। আমি তার গাওয়া গানগুলো রেকর্ড করি। পরে তাশরিফ ভাই দুটি গান তার পেইজে ছেড়ে দেন। বর্তমানে তার গান দুটি এতই জনপ্রিয়তা পেয়েছে যার ভিউয়ার প্রায় সোয়া কোটিতে পৌছে গেছে।
দুরন্ত ইসলাম শ্রাবন বলেন আমি সিলেটের বাউল শিল্পী প্রয়াত শাহ আব্দুল করিমের বাউল গান গেয়ে এতো জনপ্রিয়তা অর্জন করবো তা কখনো ভাবিনি। আমি সিলেটবাসীর কাছে চির কৃতজ্ঞ। যারা আমাকে এতো জনপ্রিয় করে তুলেছেন। তিনি বলেন প্রথমে আমার মা শাহানা আক্তার ও পরে আমার বাবা রফিকুল ইসলাম আমাকে গান করতে উৎসাহিত করেন। এ পর্যন্ত পৌছাতে আমাকে সহযোগিতা করেছেন আমার মা, তাই আমি আমার মাকে সবচেয়ে বেশি ভালবাসি। আমি ঢাকায় চলে আসার পর ছায়ানটে ভর্তি হয়ে গান শিখছি। পাশাপাশি গানচক্র ব্যান্ডের মুল ভোকাল হিসাবে গান গাওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আমি আমার লক্ষ্যে পৌছতে দেশের ও প্রবাসী ভাইদের দোয়া ও সহযোগিতা চাই। আমি মিউজিক নিয়ে লেখাপড়া করে অনার্স করবো, এরপর মাস্টার্স করবো। 
দুরন্ত ইসলাম শ্রাবন ইতিমধ্যে বাংলা লিংক ৪জি, গ্রামীণ ফোন, মিস্টার নুডুল্স, লটো, প্রমিক মিল্ক কোম্পানীর বিজ্ঞাপন করেছেন। এছাড়া সত্যমন্ত্র, জলসাঘর, চিটে বেপারী, মনের জাদুকর নাটকে অভিনয় করেছেন। তাছাড়া হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা, সাপলুডু, বিউটি সার্কাস সিনেমায় অভিনয় করেছেন। দুরন্ত জানায় সে বর্তমানে গিরগিটি সিনেমায় অভিনয় করছে যাহা এখনো রিলিজ হয়নি। তাছাড়া ৪টি টেলিফিল্ম, ৩টা ধারাবাহিক নাটক, ১০টি টিভি নাটকে অভিনয় করেছেন। লোক সংগীতে- শাহ আব্দুল করিম, হাছন রাজা, লালন শাহ, গামছা পলাশ, রবিন্দ্র নাথ ও নজরুল সংগীতের গান গেয়ে দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছেন। দুরন্ত ইসলাম বলেন, অবসরে খেলাধুলা করে সময় কাটাই। পরে কণ্ঠ শিল্পী দুরন্ত ইসলাম সকলের দোয়া ও ভালবাসা কামনা করেছেন।

Related Posts