বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ঊরস পালন কি শরীয়ত সম্মত??



আলী ফজল মোহাম্মদ কাওছার:: বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ওলীর ইন্তেকাল বার্ষিকী উপলক্ষে উনাদের মাজার শরীফে উরস মোবারকের আয়োজন করা হয়, এই উরস মোবারক নিয়ে অনেকে অনেক মন্তব্য করে থাকেন, এটা নিয়ে এই লেখা ।
fبسم الله والصلاة والسلام على رسول الله وعلى آله وصحبه أجمعين
“উরস পালন কোরান হাদিস সম্মত, পরিপন্থী কাজ নয়”

*উরস শব্দের ব্যবহৃত অর্থ*
উরস শব্দটি বাস্তব যে অথে ব্যবহৃত হয় তা হল, প্রতি বছর কোন ওলী বা কোন নেক বান্দার ওফাত দিবস কে কেন্দ্র করে তার কবর যিয়ারত ,কোরান পাঠ ও তার উদ্দেশ্যে সাদকা ইত্যাদির মাধ্যমে ছাওয়াব পৌছানোকে উরস বলা হয়।Urs merely means to visit the grave on the date of demise every year,convey the reward of the receitation of the Holy Quran and give charity.
উরসের উৎস হাদিস পাক এবং অন্যান্য কেতাব হতে প্রমানিত।
*হাদিসের আলো্কে উরস তথা কবর যিয়ারত,কোরান পাঠ ও তার উদ্দেশ্যে সাদকার বৈধতা*
১, সহীহ ইবন হাব্বান,মুস নাদে আহমদ নামক সহীহ হাদিস কেতাবে এসেছে হুযুর পাক সাল্লাল্লাহ আলায় হে ওয়া সাল্লাম ইরছাদ করেছেন যে
إني كنت نهيتكم عن زيارة القبور ألا فزوروها فإنها تذكركم بالموت অথাৎ আমি তোমাদের পূর্বে কবর যিয়ারত করতে নিষেধ করেছিলাম কিন্তু এখন থেকে নিশ্চয় করবে যা তো্মাদের মধ্যে মৃত্যুর ভয় জাগাবে।উক্ত হাদিস সম্পর্কে আরব,মিসর তথা বিশ্বের বড় বড় মুহাদ্দিস দের মধ্যে কোন মতভেদ নেই এবং সকলেই এই হাদিস দ্বারা যিয়ারত করাকে মুস্তাহাব ও সুন্নাত বলে মেনে নিয়েছেন।নির্ধারিত হোক অথবা অনির্ধারিত হোক প্রত্যেক প্রকারের যিয়ারত যায়েজ।
উরস এর দিনে মৃতদের উদ্দেস্যে কো্রান খানি করা হয়ে থাকে যা সহীহ ইবনে হাব্বান এ উল্লেখিত সহিহ হাদিস দ্বারা প্রমানিত হুযুর ইরছাদ করেন
روى ابن حبان وصحح أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال: “إقرأوا يس على موتاكم
অথাৎ তো ম রা তো্মাদের মুর্দাদের উদ্দেস্যে সুরা ইয়াসিন পাঠ কর।
২, বায়হাক্বী শরীফ এর মধ্যে আছে সাহাবী হযরত আব্দুল্লা বিন ওমর হতে বর্ণিত
كان يستحب قراءة أواخر البقرة على القبور
অর্থাৎ হযরত আব্দুল্লা বিন ওমর সূ্রা বাকারার শেষাংস কে মুর্দাদের উদ্দেশ্যে পাঠ করাকে মুস্তাহাব বলেছেন।

উরস বা মৃত দের কব র যিয়ারত ,তাদের উদ্দেস্যে কোরান পাঠ করার বৈ্ধতা উপরিক্ত সহিহ কেতাব ছাড়াও যে সকল হাদিস এর মধ্যে এসেছে তা হল মিশকাত শ রিফ এরزيارة قبور অধ্যয়ে।
فزوروها শব্দটি বহূ কেতাবে এসেছে যেম ন নেসাই শরীফ এর ৬৩৭ নং হাদিসে,মুসলিম শ রীফ,আবু দাউদ ও তিরমী্যী র মধ্যে ব্যবহৃত হয়েছে।
অতএব যারা মনে করেন যে উরুস কোরান হাদিসের পরিপন্থী কাজ তাদের অনুরোধ করব তারা যেন এই সকল হাদিস গ্রন্থগুলি পাঠ করেন, এর ফলে এক দিকে যেমন নিজেরা নিজ ভূল বুঝতে পারবেন অপর দিকে মুসলিম সমাজ সঠীক প থের সন্ধান পাবে।
বিশ্বে ৫৬ টী মূসলিম দেশ রয়েছে ,সেই সকল দেশের বড় বড় ওলামায়ে কেরাম উরস এর বৈধতা স্বীকার
করেছেন, মিসর তথা আরব দুনিয়াই যিনি খ্যাতি সম্পন্ন মু্ফতি তিনি হলেন মু্ফতি আলি জুমআ ,তিনি তার ফাতওয়ার কেতাব আল বায়ান এর মধ্যে লিখেছেন
قال علماء الإسلام زيارة القبور سنة مستحبة، وأمر مطلوب تذكرنا بالموت والأخرة. “কবর যিয়ারত ও উরস করা সম্পকে সকল ওলামার রায় হল এটা মুস্তাহাব” (আল বায়ান ১৯৩ পৃঃ)
তিনি লিখেছেন মৃতদের উদ্দেশ্যে কো্রান পাঠ করা ,সিরনী ও থাবার তৈ্রী করে গরীব মিস্কিন দের খাওয়ানো ও বণ্টনকরা শরীয়ত সম্মত।(আল বায়ান ২৭৩ পৃঃ)
৩, যিয়ারত প্রসঙ্গে ইমাম তাবরানী তাঁর ‘কাবীর’ গ্রন্থে,দারুল কু্তনি সু্নানের মধ্যে এবং বায়হাক্বী ‘কুবরা’৫ম খন্ড ২৪৫ পৃঃ মধ্যে উল্ল্যেখ করেছেন হুযুর পাক ইরশাদ করেছেন والرسول صلى الله عليه وسلم يقول: “من زار قبري وجبت له شفاعتي অর্থাৎ যে আমার কবর যিয়ারত করল তার শাফায়াত আমার উপর ওয়াজিব হয়ে গেল।
৪,মুগণী ২য় খণ্ড ২২৫ পৃঃ,তোহফাতুল আহূযী ৩য় খণ্ড ২৭৫ পৃঃ মধ্যে হযরত আনাস রাদীয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত ‘যখন কেউ কবর স্থানে প্রবেশ করবে সে যেন সু্রা ইয়াসিন তেলায়াত করে ,এর ফলে গো্রস্থানবাসীর উপর রহমত বর্ষীত হয়।
উরসের বৈ্ধতা সর্ম্পকে আর ও বহু উপযূক্ত দলীল রয়েছে,এর মধ্যে সামান্য কিছু বনর্না করা হল।
একথা বলতে চাই যে সামান্য কিছু সংখ্যক লোক বা এলাকার ক্রীয়া কলাপ দ্বারা শরীয়তের আইন প্রযোজ্য হয় না, শরীয়তের আইন প্রযোজ্য হয় এক মাত্র কো্রান ও হাদিসের অমূল্য বাণী দ্বারা।
কিন্তু যারা উরসের নামে গান বাজনা গাজা টানার আসর বসায়, তাদের প্রতিহত করা জরুরী, কারণ তাদের এই অনৈতিক কাজের জন্য সাধারণ মানুষ পবিত্র উরস মোবারকে আসেনা, মাজার জিয়ারতে আসেনা, কারণ তাদের অনৈতিক কাজের জন্য মাজার জিয়ারত পবিত্র উরস মোবারক মানুষের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ ।
যে জায়গা গান বাজনার আসর বসে সেসব জায়গায় মিলাদ শরীফ নাতে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর আসর বসালে, এছাড়া যে ওলী ছাহেবের উরুস মাহফিল, সেই ওলী ছাহেবের জীবন কর্ম নিয়ে আলোচনা করলে সাধারণ মানুষের উরস মোবারকে আসার মাজার জিয়ারতে আসার আগ্রহ বাড়বে, এই বিষয়ে মাজার কমিটি এবং বিভিন্ন ইসলামী দলগুলোর উদ্দোগ্য নেওয়া জরুরী ।
আল্লাহপাক আমাদের সবাইকে সঠিক বুঝ দান করুন, আমাদের সবাইকে সঠিক পথের সন্ধান দান করুন- আমিন ।

UA-126402543-3