মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বালাগঞ্জে ‘দেশরত্ন শেখ হাসিনা’ সেতুর ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন



বালাগঞ্জবাসীর প্রতিক্ষার অবসান বড়ভাঙ্গা নদীর উপর

এসএম হেলাল, বালাগঞ্জ থেকে:: সিলেট-সুলতানপুর-বালাগঞ্জ (আরএইচডি) সড়কের শেষ প্রান্তে বালাগঞ্জ সদরস্থ বড়ভাঙ্গা নদীর উপর নির্মিতব্য ‘দেশরত্ন শেখ হাসিনা’ সেতুর ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে।

১৮ এপ্রিল বুধবার বিকালে সেতুর ভিত্তিস্থাপন করেন সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী এবং সিলেট-২ আসনের সংসদ সদস্য ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া। এ সময় বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো. আব্দাল মিয়াসহ জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বড়ভাঙ্গা নদীতে এ সেতু নির্মাণের মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ মানুষের দীর্ঘদিনের বহুল প্রতিক্ষিত স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে। এ ব্রিজটি স্থাপন হলে সিলেট শহরের সাথে বালাগঞ্জবাসীর যোগাযোগ ক্ষেত্রে অনেক অর্থ ও সময় সাশ্রয় হবে।

অন্যদিকে বালাগঞ্জ উপজেলা সদর থেকে সরাসরি যাতায়াত বিচ্ছিন্ন দেওয়ানবাজার, পশ্চিম গৌরীপুর এবং বালাগঞ্জ সদর ইউনিয়ন’র লাখো মানুষের দীর্ঘদিনের দূভোর্গ লাঘব হবে। শুধু তাই নয়, বালাগঞ্জ’র ৩টি ইউনিয়নের সুবিধা বঞ্জিত জনসাধারণের পাশাপাশি উপকৃত হবেন এ সড়ক দিয়ে যাতায়াতকারী সিলেট ও মৌলভীবাজার জেলার বিভিন্ন উপজেলার হাজার যাত্রী সাধারণ। বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের নিজস্ব অর্থায়নে ২কোটি, ৬৭লাখ টাকা ব্যয়ে এ সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে। সেতুর দৈর্ঘ্য প্রায় ১শ মিটার এবং প্রস্থ প্রায় ৪মিটার।

এ দিকে ‘দেশরত্ন শেখ হাসিনা’ সেতুর ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন উপলক্ষে সেতু সংলগ্ন এলাকায় বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে এক আলোচনা অনুষ্টিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতায় সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী বর্তমান সরকারের বাস্তবমূখী বিভিন্ন উন্নয়ন তুলে ধরেন।

তিনি ৭৭কোটি টাকা ব্যয়ে খুব শীগ্রই সিলেট-সুলতানপুর সড়কের উন্নয়ন ও প্রস্থকরণের কাজ শুরু হবে বলে জানান।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতায় করেন সিলেট-২ আসনের সংসদ সদস্য ইয়াহইয়া চৌধুরী বলেন, বালাগঞ্জ, বিশ্বনাথ, ওসমানীনগরে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। যা অতীতের যেকোন সময়ের চেয়ে অনেক গুন বেশি। বর্তমান সরকারের বিরোধী দলের এমপি হয়েও সরকারের উন্নয়নের অস্বীকার করার উপায় নেই। যদিও আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতারা ব্যক্তিস্বার্থে নানা আমার সমালোচনা করে থাকেন।

সভাপতিত্ব করেন বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো. আবদাল মিয়া। স্বস্ব অবস্থান থেকে সিলেট ৩-আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী, ২ আসনের এমপি ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়াসহ উপজেলার প্রত্যেক ইউনিয়নের চেয়ারম্যানবৃন্দ অবদানে কথা তুলেধরে তাদের প্রতি ধন্যবাদ জানান।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আব্দুল মালেকের পরিচালনায় সভায় বক্তৃতা করেন ও উপস্থিত ছিলেন বালাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো, আব্দুল হক, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা সৈয়দ আলী আছগর, বালাগঞ্জ থানার ওসি এসএম জালাল উদ্দিন, বালাগঞ্জ সদর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সমপাদক এমএ মতিন, পূর্ব গৌরীপুর ইউপি চেয়ারম্যান হিমাংশু রঞ্জন দাস, পশ্চিম গৌরীপুর ইউপি চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম মধু, উপজেলা প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলাম, প্রকল্প ব্সাতবায়ন কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি আবুবক্কর সিদ্দীক, আজিজুর রহমান লকুছ, প্রচার সম্পাদক নাছির উদ্দিন, আওয়ামীলীগ নেতা জালাল উদ্দিন, আমির হোসেন নুরু, আব্দুল হাফিজ রেনু, আব্দুল কাদির খসরু, শিহাব উদ্দিন মেম্বার, নেছাওর আলী মেম্বার, আবরু মিয়া, হাজী সাইস্তা মিয়া, জুনায়েদ আহমদ মনজু, আইয়ুব আলী মেম্বার, সমাজসেবী এমএ মতিন বাদশা, জাপা নেতা ছুফি মাহমুদ, মুক্তার আলী, মকবুল হোসেন, মো. ফজলু মিয়া, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক রফিকুল আলম, যুগ্ম আহবায়ক মইনুল ইসলাম সালেহ, উপজেলা ছাত্র লীগের সাবেক সভাপতি আমির আলী, সাবেক সাধারন সম্পাদ তুহিন মনসুর, সাংবাদিক রজত দাস ভুলন, শাহাব উদ্দিন শাহিন, মো. জিল্লুর রহমান জিলু, ছাত্রলীগ নেতা আবরার আহমদ চৌধুরী, জিয়াউল হক পান্না, এমরুল হক, জাহেদ আলী রিপন, একে টুটুল, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রুবেল আহমদসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

UA-126402543-3