বুধবার, সেপ্টেম্বর ৩০ , ২০ ২০
সম্পাদকীয় ডেস্ক
১৯ মার্চ ২০ ২০
৯:৪২ অপরাহ্ণ
আমরা কি সবাই মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছি?

সত্য, ন্যায় ও ইনসাফের পক্ষে এবং অত্যাচার, অবিচার, নিপীড়নের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার প্রধান হাতিয়ার হচ্ছে কলম। কলমের এই শক্তির কথা বিবেচনায় নিয়েই ৪০-৪৫ বছর আগে শক্ত হাতে কলম ধরার চেষ্টা করেছিলাম। সে চেষ্টা এখনো রয়েছে অব্যাহত। স্কুল-কলেজের দেয়াল পত্রিকা থেকে শুরু করে ‘গণডাক’ নামক সাপ্তাহিক পত্রিকা সম্পাদনার আগেও আমার লেখা জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। পরবর্তীকালে রাজনীতিতে ব্যাপক সম্পৃক্ততা, প্রায় প্রতিনিয়ত জেলহাজত, ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিআরটিসির চেয়ারম্যানসহ সরকারি বিভিন্ন দায়িত্ব পালন, ২০০৭-২০০৯ সালে ‘১/১১’ সরকার কর্তৃক ২৬ মাস কারাবরণ, পরবর্তীকালে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে প্রায় বছরকাল ধরে নির্বাচনী কাজে মাঠপর্যায়ে ব্যস্ত থাকায় কলম চালানোর বিষয়ে ভাটা পড়ে। ২০১১ সালের পর বিবেকের তাড়নায় আবার কলম ধরেছি। শক্ত হাতে চোখ বন্ধ করে সত্য প্রকাশের দৃঢ় প্রত্যয়ে এগিয়ে যাওয়ার বাসনার সৃষ্টিকর্তার সাহায্য কামনা করেছি। ইতোমধ্যে ছয়টি বই প্রকাশিত হয়েছে, আরো বই শিগগিরই প্রকাশের অপেক্ষায়। কিন্তু আমার কলম আর চলতে চায় না, বারবার থমকে দাঁড়ায়।

 

যখন পত্রিকায় দেখি, প্রতিপক্ষকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর জন্য আপন পিতা ও চাচা নিষ্পাপ শিশু তুহিনকে পরিকল্পিতভাবে ঠা-ামাথায় হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখে, তখন কলম চলতে চায় না। যখন পত্রিকায় দেখি ভিন্নমত প্রকাশের দায়ে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করার পর আরো পেটানোর জন্য পেইন কিলার খাইয়ে নির্যাতনের পর নির্যাতন করে সহপাঠীরা মেধাবী আবরারকে খুন করে; একটু পানি চেয়েও সহপাঠীদের থেকে পানি পায়নি সে। যখন চিন্তা করি, হত্যাকারী সহপাঠীরাও এ দেশের মেধাবী সন্তান, যাদের বুয়েটের মতো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়াতে পিতা-মাতার মাথার ঘাম পায়ে পড়ে, ওদের কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় ম্যাজিস্ট্রেটের নেয়া জবানবন্দী পাঠ করার পর দেশ, জাতি, রাষ্ট্র ও সমাজ নিয়ে লিখতে গিয়ে আমার কলম চলে না। কারণ, যতই লিখি, এর সমাধান আর দেখছি না। তাহলে সময় ব্যয় ও পরিশ্রম করে কলম চালিয়ে লাভ কী? ডিএমপি উপকমিশনারের বক্তব্যে আরো বিস্মিত হয়েছি। তিনি বলেছেন, ‘আবরারকে হত্যার উদ্দেশ্যে পেটানো হয়েছে, নাকি পেটানোর জন্য পেটানো হয়েছে, এটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’ এ মন্তব্য শুধু হতাশার কথা নয়, বরং বিশ্বজিৎ হত্যার আসামিদের (যারা ক্ষমতাসীন ঘরানার লোক) মতো খালাস দেয়

সম্পর্কিত খবর

পুরানো খবর দেখার জন্য