বৃহস্পতিবার, জুলাই ৯, ২০ ২০
হবিগঞ্জ ডেস্ক
১৭ মার্চ ২০ ২০
১১:২০ অপরাহ্ণ
বিয়ের পিড়িতে বসা হলনা রুহিনের- কপাল ভাঙ্গল জাহানার234

ছোট বোন পিংকির এসএসসি পরীক্ষা শেষ হওয়ার পরই বিয়ের তারিখ নির্ধারিত করেছিলেন দু'পক্ষের লোকজন। কিন্তু বালু বোঝাই ঘাতক ট্রাক তা আর হতে দিলোনা। বিয়ের পিড়িতে বসার আগেই প্রাণ কেড়ে নিলো হবু বর রুহিনের। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের মৃরতিঙ্গা চা বাগানের ১৫ নং সেকশনের মুন্সিবাজার- ভৈরবগঞ্জ বাজার সড়কে, বেপরোয়া গতির বালু বুঝাই ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান মুন্সিবাজার ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর গ্রামের নানু মিয়ার ছোট ছেলে নির্মাণ শ্রমিক রুহিন মিয়া (২২)। বালুর ট্রাকটি একই ইউনিয়নের হুসনেরা এন্ট্রারপ্রাইজের লিজকৃত বালু মহাল থেকে বালু নিয়ে ভৈরবগঞ্জ বাজারের দিকে যাচ্ছিল। কর্মস্থল থেকে কাজ শেষে বাইসাইকেল নিয়ে শ্রমিকরা বাড়ী ফেরার পথে এঘটনাটি ঘটে । ।

এসময় রুহিনের পিছনে বাইসাইকেল নিয়ে আসা অপর  ২ নির্মাণ শ্রমিক সড়ক থেকে পার্শ্ববর্তী খাদে পড়ে নিজেদের জীবন বাঁচান। এঘটনায় কমলগঞ্জ পৌরসভাধীন কুমড়াকাপন পাত্রী ও রামচন্দ্রপুর পাত্রের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। এ সড়কে অদক্ষ চালকদের বেপরোয়া বালু বোঝাই ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে প্রতি বছরেই প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। তাদের বিরুদ্ধে  আইনানুগ কোন ব্যবস্হা গ্রহন না করায়, এরা আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। 

নিহত রুহিনের বিয়ের কাবিন সম্পন্ন হওয়া কমলগঞ্জ পৌরসভাধীন কুমড়াকাপন গ্রামের মৃত মাসুক মিয়ার মেয়ে বড় মেয়ে জাহানারা বেগমের নিকট আতœীয় জানান,গত শুক্রবার রুহিন ও জাহানারা বেগমের কাবিন রেজিস্ট্রারী সম্পন্ন হয়েছে, ছোটবোন পিংকির এসএসসি পরীক্ষার শেষ হওয়ার পর বিয়ের দিন তারিখ ধার্য্য হবার কথা ছিলো। জাহানারাদের পারিবারিক অবস্হা ভালো না হওয়ায় আমরা আতœীস্বজনরা আর্থিক সাহায্য দিয়ে বিয়ের সব আয়োজন করেছি। তিনি আরো বলেন, পুলিশ চাইলে ঘাতক ট্রাককে খুঁজে বের করা যাবে,কারণ বালু মহাল থেকে যে ট্রাক বালু নিয়ে যায়, সে গাড়ীর চালক গাড়ির নং দিয়ে রয়েলেটির টাকা পরিশোধ করে মেমো নিয়ে যায়। তাই বালু মহালকে ধরলেই গাড়ির সন্ধান বেড় করা সম্ভব। এ ঘটনায় নিহত রুহিনের বড় ভাই বাদি হয়ে কমলগঞ্জ থানায় বৃহস্পতিবার রাতে লিখিত অভিযোগ করেন। শুক্রবার সকালে ময়না তদন্ত শেষে এদিন বিকালে রুহিনের জানাজা শেষে পারিবারিক কবরাস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

সম্পর্কিত খবর

পুরানো খবর দেখার জন্য