আল্লামা ফুলতলী র. ও একটি ফুল: মুহাম্মদ হাবিলুর রহমান জুয়েল


| ০৬:৩৮ অপরাহ্ন, জানুয়ারী ১৩, ২০২০

IMG



সময়টা যখন ইসলামের ধংশের দিক তখনই জেগে উঠেছিল নীরবে একটি নাম। সিলেটের নক্ষত্র, সিলেটের উজ্জলতর প্রতীক আল্লামা ছাহেব কিবলাহ ফুলতলী র.। যিনি উনবিংশ শতাব্দীর অন্যতম খ্যাতিমান হাদিস বিশারদ এবং সেই সাথে মাদরাসা শিক্ষার অগ্রদূত। যার হাত ধরে যুগে যুগে এসেছেন অসংখ্য মুহাদ্দিস, আলেম উলামারা। যাকে ঘিরে ছিল লক্ষ মানুষের বিশ্বাস। যিনি ইসলাম প্রচারের সার্থে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরেছেন। 
এমন কিছু জায়গায় এমন বৃদ্ধ বয়সে গিয়েছিলেন যা বর্তমান সময়ের অনেক আলেম উলামার জন্যও সম্ভব নয়। যার কেরামতি দিয়ে জয় করেছেন মানুষের হৃদয়। অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে তাকে অনেক ফাদে ফেলেও অবশেষে হারিয়ে যায় প্রতিপক্ষ। সময়টা হোকনা ২০০৪ অথবা সারাজীবন। যখন ডাক দিয়েছিলেন বাংলাদেশ আরবি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের দাবি নিয়ে তখন প্রকাশ্যে একটি পক্ষ বিরোধী হয়ে দাড়িয়েছিল। যাদের লেবাসে শুধু ছিল ইসলাম কিন্তু অন্তরে ছিল না।
 তাদের মধ্যে একমাত্র বিরোধী ছিল বর্তমান মুক্তিযুদ্ধবিরোধী দল জামায়াত - শিবির। যারা প্রায়ই তাকে বিভিন্নভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতে চেষ্টা করত। একবার জীবিত একজন মানুষকে আল্লামা ফুলতলীর সামনে মৃত বলে নিয়ে যায় তাকে পরিক্ষা করার জন্য। কিন্তু যখনই তিনি তার নামাজের জানাজা শুরু করলেন : বললেন আল্লাহুআকবার! তখনই মারা গেল ঐ জীবিত ব্যক্তি। এমন অসংখ্য উদাহরণ রয়েছে হযরত শাহজালাল র. এর এই উত্তরসুরীর।
 যিনি এদেশে মিলাদ - কিয়াম তথা দোয়া, জানাযার নামাজের পর দোয়া, কবর জিয়ারত সহ ইসলামের বেশ কয়েকটি মূল্যবান বিষয় নিয়ে আন্দোলন করে আমাদের মধ্যে আসল ইসলাম সামনে নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু তখনকার সময়ের একদল ইসলাম নামধারীরা এই সমস্ত বিষয় অস্বীকার করত এবং তারা এগুলোকে বেদয়াত বা না যায়েজ বলত। বিংশ শতাব্দীর দিকে এসে তারাই আবার পূণরায় এই বিষয়গুলো মেনে নিতে থাকল। ধীরে ধীরে ব্যর্থ হতে থাকল বাতিল মতবাদ। কিন্তু এক সময় সবকিছু ছাপিয়ে লক্ষ লক্ষ মানুষের ভালবাসায় তিনি ইসলামের পতাকা নতুনভাবে উজ্জীবিত করেন এবং বাতিল মতবাদদারীদের রুখতে সক্ষম হন।
লেখক: কবি ও সাংবাদিক




সম্পর্কিত খবর -----------------------------






লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন




পুরানো খবর দেখুন