কুলাউড়ায় এক অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ


কুলাউড়া প্রতিনিধি:: | ০৯:২২ অপরাহ্ন, জানুয়ারী ১২, ২০২০

IMG



কুলাউড়া উপজেলার রাউৎগাও স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে মোটা অংকের  আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। অধ্যক্ষ মোঃ হেলাল উদ্দিন গত ৬ মাসে প্রতিষ্টানের ৩ লাখ ৩৬ হাজার টাকা হেরফের করেছেন । এই  অনিয়মের চিত্র  তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে ধরা পড়েছে ।  বিষয়টির প্রতিকার চেয়ে স্থানীয় এলাকাবাসী ও অভিবাবকরা গত  ০৮ জানুয়ারী  কুলাউড়া  উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন ।  

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায় ,রাউৎগাও স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ হেলাল উদ্দিন ২০১২ সালে এই প্রতিষ্টানে যোগদান করেন। যোগদানের পর থেকেই তিনি গভর্ণিং বডির  কয়েকজন সদস্যদের সাথে আতাত করে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি করে যাচ্ছেন । এই প্রতিষ্টানের ছাত্র ছাত্রীর ভর্তি ফি ও পরিক্ষার ফি থেকে শুরু করে প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র ক্রয়ে ভাউচার জালিয়াতির মাধ্যমে বড় ধরনের আর্থিক অনিয়ম ও দূর্নীতি করে কয়েক লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে এলাকাসী অভিযোগ তুলেন। অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ উঠলে গভর্ণিং বডি গত বছরের ২১শে ফেব্রুয়ারী ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত কমিটির আহবায়ক খয়রুল ইসলাম খান,সদস্য ওয়াহিদুজ্জামান শহিদ ও মোঃ রুনু মিয়া আভ্যন্তরীন  নিরীক্ষা প্রতিবেদন সাম্প্রতি দাখিল করেন। তাদের নিরীক্ষা সময়কাল ফেব্রুয়ারী থেকে জুলাই ২০১৯ পর্যন্ত তদন্তে বেরিয়ে আসে অধ্যক্ষ কর্তৃক নানা অনিয়মের চিত্র । শুধুমাত্র ওই সময়কাল ৬ মাসে প্রতিষ্টানের আয় ৪ লাখ ৬১ হাজার ২৫৮ টাকা । তন্মধ্যে অধ্যক্ষ ৮৪ হাজার ৫০৮ টাকা ব্যাংকে জমা দেননি। অপরদিকে জানুয়ারী ২০১৯ এর আয় ২ লাখ ৫১ হাজার ৬ শত টাকা কোনো হদিস মিলছেনা । নিরীক্ষা কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী সব মিলিয়ে অধ্যক্ষ হেলাল উদ্দিন ৩ লাখ ৩৬ হাজার ১০৮ টাকা অনিয়ম করেছেন। 
স্থানীয় এলাকার রাসেল চৌধুরী,মুসাদ্দিক আহমেদ,সিদ্দিকুর রহমান,মুজিবুর রহমান,আব্দুল মুহিত,মিলনসহ একাধিক ব্যক্তি শতবর্ষী এই প্রতিষ্টান রক্ষায় যথাযথ প্রতিকার চেয়ে কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন।

তদন্ত কমিটির আহবায়ক খায়রুল ইসলাম খান মুঠোফোনে বলেন, আমাদের আগে এ বিষয়ে মন্ত্রনালয় থেকে একটি তদন্ত হয়েছে। আমরা আভ্যন্তরীন একটি তদন্ত করেছি যা এখনো শেষ হয়নি। অধ্যক্ষ নানান বিষয়ে প্রশ্নের জবাবও আমাদের দিয়েছেন। তদন্ত প্রতিবেদনে আমাদের অনেক ভুল আছে তা সংশোধন করে পুনরায় প্রতিবেদন জমা দেবো।

এব্যাপারে গর্ভনিংবডির সভাপতি আকবর আলী সোহাগের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন (০১৭১৫০২০৯৬৩) নাম্বারে বার বার যোগাযোগ করা হলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। 

রাউৎগাও স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ হেলাল উদ্দিন মুঠোফোনে জানান, আমাকে হেয়প্রতিপর্ণ করতে একটি মহল মিথ্যা অভিযোগ এনে আমার বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছে। আভ্যন্তরীন যে তদন্ত হয়েছে আমি তাদের সেই তদন্তের উত্তর দিয়েছি। তদন্ত কমিটির আভ্যন্তরীন তদন্তে অনেক ভুল রয়েছে। যা গর্ভনিং বডি অবগত আছে।  

কুলাউড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনোয়ার বলেন, অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। ইউএনও স্যারকে নিয়ে বিষয়টি তদন্ত করা হবে। 

এব্যাপারে কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এটিএম ফরহাদ চৌধুরী জানান,আমি মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে দিয়ে বিষয়টি তদন্ত করাবো। 




সম্পর্কিত খবর -----------------------------






লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন




পুরানো খবর দেখুন