সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সিলেটে রবি ঠাকুরের পদার্পণ শতবার্ষিকী স্মরণ উৎসবে বর্ণাঢ্য আয়োজনের আহ্বান



৯৯তম স্মরণ উৎসবে মেয়র ও সংস্কৃতিকর্মীরা

ডেস্ক নিউজ:: সিলেটে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর পদার্পণের শতবার্ষিকী স্মরণ উৎসব বর্ণাঢ্য আয়োজনের মাধ্যমে পালনের আহ্বান জানিয়েছেন সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। তিনি বলেন, রবি ঠাকুর পৃথিবীর সকল বাংলাভাষীদের গর্বের ধন, বিশ্ববরেণ্য কবি।

তাঁর পদার্পণ এই পূণ্যভুমিকে ও মণিপুরী নৃত্যকে বিশ্বে পরিচিতির ক্ষেত্রে নতুন মাত্রা দিয়েছে। তাই শততম পদার্পণ স্মরণ অনুষ্ঠানে সম্পৃক্ত করতে চাই বিশ্বের সকল রবীন্দ্র অনুরাগীদের। সে লক্ষ্যে উৎসবটির আয়োজন করতে হবে ব্যাপক আকারে। মেয়রের এই আহ্বানকে স্বাগত জানিয়ে একই মঞ্চে বক্তব্য রাখেন সিলেটের সর্বস্তরের রবীন্দ্র অনুরাগী ও সংস্কৃতি কর্মীরা। মেয়র ও সংস্কৃতিকর্মীরা একমত হন শতবার্ষিকী উৎসবকে বর্ণাঢ্য করে তোলার।

কবিগুরুর পাদস্পর্শে ধন্য সিলেট নগরীর মাছিমপুর মণিপুরী পাড়ায় রবীন্দ্র স্মৃতি স্তম্ভের পাদদেশে আয়োজিত ‘শ্রীভুমি সিলেটে রবীন্দ্রনাথ ও বিশ্বনন্দিত মণিপুরী নৃত্য শীর্ষক রবীন্দ্র স্মরণ’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী একথাগুলো বলেন।

গত মঙ্গলবার রাত ৮ টায় আয়োজিত এই স্মরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর পদার্পণ দিবস উদযাপন পরিষদ ২০১৮’র আহ্বায়ক ডাঃ পুলিন কুমার সিংহ। অনুষ্ঠানে মুখ্য আলোচক ছিলেন বিশিষ্ঠ রবীন্দ্র গবেষক, মেট্রোপলিটন ইউনির্ভাসিটি সিলেটের পরিচালক(অর্থ) মিহিরকান্তি চৌধুরী।

বিশেষ অতিথি ছিলেন, এমসি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর নিতাই চন্দ্র চন্দ, সিলেট সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আতাউর রহমান, সিলেট স্টেশন ক্লাবের সভাপতি এমাদ উল্লাহ শহীদুল ইসলাম শাহীন, সিলেট প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকরামুল কবির, সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটির সহকারী অধ্যাপক ও লেখক প্রণব কান্তি দেব, গবেষক ও দৈনিক যুগভেরী’র নির্বাহী সম্পাদক অপূর্ব শর্মা, ইমজা’র সভাপতি আশরাফুল কবীর।

মণিপুরী সমাজকল্যাণ সমিতির সিলেট জেলা সভাপতি নির্মল সিংহ ও সাংবাদিক সংগ্রাম সিংহ ও সাংবাদিক সুনীল সিংহের পরিচালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর পদার্পণ দিবস উদযাপন পরিষদ ২০১৮’র সদস্য সচিব বিলাস সিংহ।

বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ বিরাজ মাধব চক্রবর্তী মানস, মদন মোহন কলেজের উপাধ্যক্ষ শর্বানী অর্জুন, মণিপুরী সমাজ কল্যাণ সমিতির কেন্দ্রীয় সভাপতি প্রতাপ চন্দ্র সিংহ, সিলেট জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সিলেটর সভাপতি আমিনুল ইসলাম চৌধুরী লিটন, সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেটের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সিলেট চেম্বারের সাবেক সহ-সভাপতি দিলওয়ার হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আনন্দ মোহন সিংহ, মণিপুরী সমাজ কল্যাণ সমিতির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কমলাবাবু সিংহ, বাংলাদেশ ফটো জার্ণালিস্ট এসোসিয়েশনের সিলেট বিভাগীয় সভাপতি আব্দুল বাতিন ফয়সল, আয়োজক কমিটির সদস্য ধীরেন্দ্র সিংহ, রমেন্দ্র সিংহ বাপ্পা ও আরিফ হোসেন।

সভার ফাঁকে ফাঁকে সিলেটের বিশিষ্ট জনদের শুভেচ্ছা স্মারক ও উত্তরীয় দিয়ে বরণ করা হয়।
আলোচনাসভার আগে মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে দিবসটির উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধন শেষে কবিগুরুর স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর রবীন্দ্র স্মরণ মঞ্চে রবীন্দ্র সংগীত, রাখাল নৃত্য, রাসনৃত্য, মৃদঙ্গনৃত্য পরিবেশিত হয়।