মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

চার দফা দাবিতে মিটার রিডার কাম ম্যাসেঞ্জারগণের ৮ম দিনের কর্মবিরতী



চাকুরী স্থায়ীকরণ, চাকুরী নিয়মিতকরণ, চাকুরীচ্যুতদের পূণঃবহাল এবং কাজের পরিমাণ কমানো- এ চার দফা দাবিতে সোমবার (২২ অক্টোবর) ৮ম দিনের মতো কর্ম বিরতী পালন করে সিলেট পল্লি বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর কার্যালয় দক্ষিণ সুরমার আলমপুর কার্যালয়ের সামনে সমিতি-১ এর মিটার রিডার কাম ম্যাসেঞ্জারগণ।

গত ১৫ অক্টোবর থেকে নিয়মিত কর্মবিরতি পালন করলেও আজ রোববার সকাল থেকে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি পালন শুরু করেন আন্দোলনকারীরা। তারা আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত কর্মবিরতী পালন করবে। এর মধ্যে তাদের দাবি দাওয়া পুরণ না হলে বিভাগীয় রিডার মিটাররা সিলেটে এক হয়ে কঠোর কর্মসূচীর ডাক দিবে।

কর্মবিরতীপালন কালে আন্দোলনকারীরা বলেন, বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিতে ৯ বছর কাজ করার পর অন্য সমিতিতে চাকুরীর আবেদন করলে ৫৫ বছর বয়স পর্যন্ত চাকুরী করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। কিন্তু সমিতির কিছু স্বার্থান্বেষী লোকের অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের লক্ষ্যে নিয়োগ বাণিজ্য করার পায়তারায় লিপ্ত রয়েছে। কিছু অসাধু কর্মকর্তা ও জেনারেল ম্যানেজার কাজের পরিমাণ বাড়িয়ে লোক ছাটাই করা শুরু করছে। পূর্বের তুলনায় দ্বিগুন কাজ বাড়ানো হয়েছে। যা অত্যন্ত কষ্টকর। তাছাড়া বর্তমানে এনালগ মিটারের পরিবর্তে ডিজিটাল মিটার ব্যবহার করা হয়। এর ধরুন কাজ করতে আরও বেশী কষ্ট হয় কর্মকর্তাদের। তারা বলেন, ঢাকা, গাজীপুর নরসিংদীর সাথে সিলেটের পার্থক্য শুধু কাজেই। যা গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা একই ব্যক্তি, একই কাজ, একই সংস্থা। তবুও বার বার কেন পরীক্ষা নেওয়া হয়। কেন আমাদের চাকুরী নিয়ে বাণিজ্য করা হচ্ছে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন নবীর চন্দ্র সাহা, হেলাল উদ্দিন, জগন্নাথ রায়, রাজু আহমদ, মুজিবুর রহমান, হেমন্ত তালুকদার, বাচ্চু মিয়া, কাজল চন্দ্র দাস, মনির উদ্দিন, আব্দুর রহমান, মোবারক, বেলাল, নুরুল, কুতুব উদ্দিন, রহমত আলী, শহিদুল ইসলাম, নয়ন, রনজীত, নকুল চন্দ্র বিশ্বাস প্রমুখ।