বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

গোলাপগঞ্জে ৪০ পিছ ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার



ডেস্ক রিপোর্ট: সিলেটের গোলাপগঞ্জে ৪০পিছ ইয়াবা সহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। গত ৪ অক্টোবর গোলাপগঞ্জের রানাপিং বাজারে রওশনারা কমিউনিটি সেন্টারের সামনে মাদক বিক্রিরত অবস্থায় মো. শরীফ আহমদকে গ্রেফতার করেন। এসময় তার সাথে থাকা আরও ২ মাদক ব্যবসায়ী পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়। গ্রেফতারকৃত শরীফ আহমদ জকিগঞ্জের ব্রাহ্মণগ্রাম এলাকার ইনামক গ্রামের মতলিবের পুত্র। এ ব্যাপারে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে গোলাপগঞ্জ থানায় জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই মোড়ল মিজানুর রহমান বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। যার নং- ৩,০৪.১০.২০১৮ইং।

এজাহারে তিনি উলে­খ করেন, গত ৪ অক্টোবর দেড়টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারেন, গোলাপগঞ্জের রানাপিং বাজারে রওশনারা কমিউনিটি সেন্টারের সামনে কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী নিষিদ্ধ মাদক ইয়াবা বিক্রি করছেন। এ সংবাদের ভিত্তিতে জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই মোড়ল মিজানুর রহমান, মামুন, আমীর হোসেন ও তোফায়েল আহমদ সংঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে এ এলাকায় অভিযান চালান। অভিযানে শরীফ আহমদকে আটক করা হয়। তার শরীর তল­াশী করে পেন্টের প্যাকেট থেকে ৪০পিছ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। যার বাজার মূল্য ১২ হাজার টাকা। অভিযান টের পেয়ে তার সাথে থাকা আরও ২ মাদক ব্যবসায়ী পালিয়ে যায়। পলাতক আসামীরা হলেন, জকিগঞ্জ উপজেলার নোয়াগ্রাম গ্রামের আব্দুল বারীর পুত্র ইসমাইল হোসেন, এসএমপির মোঘলাবাজার থানার গোটাটিকর গ্রামের মৃত হারুন মিয়ার পুত্র লায়েছ আহমদ।

জানা যায়, পলাতক আসামী লায়েছ আহমদ মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। তার বিরুদ্ধে সিলেটের বিভিন্ন থানায় মামলা রয়েছে। মাদক সংগ্রহ করে বিক্রি, মোটরসাইকেল চুরি করে বিক্রি সহ সব ধরণের অবৈধ কর্মকান্ড করে সে। কখনও নিজে এসব কাজ করে আবার কখরও তার সহযোগীদের দিয়ে কাজ করায়। মাদক সাপ্লাইয়ের জন্য তার একটি বাহিনীও আছে। স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ তার অপকর্মের বিরুদ্ধে কিছু বলতে চাইলেও তার লাঠিয়াল বাহিনীর ভয়ে কেউ কিছু বলেন না। আসামী লায়েছের বিরুদ্ধে কোতোয়ালী থানা জি.আর ৩১৪/১৫, ৩৫৫/১৪, শাহপরাণ থানায় জি.আর ২০১/১৪, জালালাবাদ থানায় জি.আর ৭৪/১৪, মৌলভীবাজার থানায় জি.আর ২৮১/১৩-নং মামলা রয়েছে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে এয়ারপোর্ট থানা, দক্ষিণ সুরমা, বিশ্বনাথ, মোঘলাবাজার, জকিগঞ্জ থানায় অসংখ্য মামলা ছিল। সারা সিলেট জুড়ে তার সিন্ডিকেট বাহিনী রয়েছে। তাদের মাধ্যমে সে মাদক সংগ্রহ ও বিক্রি করে থাকে। মাদকে আসক্ত করে ও তাদের দিয়ে মাদক বিক্রি করে যুব সমাজকে ধ্বংসের মুখে লেলিয়ে দিচ্ছে লায়েছ।