বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জে ৪ পাখি শিকারীর ১০হাজার টাকা জরিমানা, শিকারী পাখী অবমুক্ত



আসহাবুর ইসলাম শাওন, কমলগঞ্জ থেকে:: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার কেওলার হাওর এলাকায় ফাঁদ পেতে পাখি শিকারের দায়ে এলাকাবাসী ৪জন শিকারীকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ্দ করে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী হাকিম মোহাম্মদ মাহমুদুল হক ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে আটক ৪ শিকারীর নগদ ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

শিকারীর কাছ থেকে জবাইকরা অবস্থায় ৯টি বক উদ্ধার করা হয়। তাছাড়া উদ্ধারকৃত শিকারী অপর বকটিকে অবমুক্ত করা হয়। বুধবার সকাল ১০টায় কেওলার হাওরে জবাইকরা ৯টি বকসহ ৪ শিকারীকে আটক করা হয়েছিল।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় ও শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ি সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিন ভোর থেকে একটি চক্র কেওলার হাওর এলাকা বকসহ বিভিন্ন ধরনের পাকি শিকার করতে শিকারী পাখির ফাঁদ পেতে। বুধবার সকালে এলাকাবাসী ৪জন শিকারীকে জবাইকৃত ৯টি বকসহ ধরে ফেলে।

এলাকাবাসী দ্রুত বিষয়টি শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক (তদন্ত) অরুপ কুমার চৌধুরীকে অবহিত করলে তিনি এএসআই আয়াজ মাহমুদের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল পাঠিয়ে শিকার করা পাখিসহ ৪ শিকারীকে নিজেদের জিম্মায় নিয়ে দুপুরে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে নিয়ে যান।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী হাকিম মোহাম্মদ মাহমুদুল হক এলাকাবাসীর কয়েকজনের বক্তব্য শুনে ও শিকারীদের স্বীকারোক্তি শুনেই আটক ৪ শিকারীর নগদ ২৫০০ টাকা করে মোট ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। আর জীবিত শিকারী বকটিকে অবমুক্ত করেন।
শমশেরনরগর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক (তদন্ত) অরুপ কুমার চৌধুরী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এলাকাবাসী সচেতন ছিল বলেই তারা ৪ শিকারীকে জবাইকরা পাখিসহ ধরে পুলিশকে খবর দিয়ে সহায়তা করেছে। এভাবে আশপাশ এলাকার মানুষজন সজাগ থাকলে আর কোন চক্রই পাখি শিকার করতে পারবে না।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী হাকিম মোহাম্মদ মাহমুদুল হক পাখি শিকারের দায়ে ৪ শিকারীর নগদ জরিমানার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি আরও বলেন, তারা নিজেরাই দোষ স্বীকার করেছে এবং ভবিষ্যতে পাখি শিকার করবে বরে অঙ্গিকার করেছে।