বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

এমপি কয়েছের বিরুদ্ধে লন্ডনে নালিশ: আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের পরামর্শ দিলেন প্রধানমন্ত্রী



স্টাফ রিপোর্ট:: দলীয় নেতাকর্মীদের বাংলা ভাই, নাস্তিক, হিজড়া, হত্যা হুমকি দেওয়ার ঘটনায় ফেঁসে যেতে পারেন সরকার দলীয় সিলেট -৩ আসনের এমপি মাহমুদ-উস-সামদ চৌধুরী কয়েছ। তার এহেন বেসামাল বক্তব্যের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট নালিশ জানিয়েছেন সাবেক ফেঞ্চুগঞ্জ ছাত্রলীগ সভাপতি ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী আশফাকুল ইসলাম সাব্বির।

লন্ডন সফরকালে গত শনিবার বিকেলে ক্লারিজ হোটেল দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্দ্রীর সাথে সাক্ষাত করে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা তার বক্তব্য তুলে ধরে এব্যাপারে বিচারপ্রার্থী হন। প্রধানমন্ত্রী গভীর মনোযোগ সহকারে বক্তব্য শ্রবন করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অনুমোদনক্রমে এমপি কয়েছের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের পরামর্শ প্রদান করেন সাব্বিরের তাকে। এ ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। প্রসঙ্গত, গত ২০ সেপ্টেম্বর এ সংক্রান্ত একটি সংবাদ দৈনিক ইনকিলাবে প্রকাশিত হয়েছিল। এরপর বিষয়টি সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে।
শনিবার (বাংলাদেশ সময় রাত প্রায় সাড়ে ১০টয়) বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর সাথে এক সাক্ষাতে মিলিত হন যুক্তরাজ্য আ‘লীগের সভাপতি সুলতান শরিফ, সেক্রেটারী সৈয়দ ফারুক আহমদ, সদস্য ও লন্ডন মহানগর আ‘লীগের সহ-সভাপতি শফিক আহমদ, যুবলীগ নেতা মঈনুল ইসলাম, যুবলীগ নেতা জামাল খান, আয়াস আহমদ, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি ও যুক্তরাজ্য যুবলীগ নেতা আশফাকুল ইসলাম সাব্বির সহ সহ দলের শীর্ষ নেতাকর্মীরা।

বৈঠকে নেতাকর্মীদের ধারাবাহিক বক্তব্যের এক পর্যায়ে, আশফাকুল ইসলাম সাব্বির প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আর্কষন করে বলেন, তার পিতা মৃত আফাজুল ইসলাম মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ছিলেন, জিয়াউর রহমান সরকারের সময় তার পিতা অস্ত্র মামলায় কারান্তরীন হয়ে নির্যাতিত হয়েছিলেন। এছাড়া তার চাচা বদরুল ইসলাম নিলু একজন মুক্তিযোদ্ধা, অপর চাচা আব্দুল বাছিত টুটুল ফেঞ্চুগঞ্জ আ‘লীগের বর্তমান সেক্রেটারী। সাব্বির নিজে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ছিলেন।

তিনি প্রধানমন্ত্রীকে জানান, প্রতিহিংসা মুলক ভাবে দলের স্থানীয় সিনিয়র নেতা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম, ইউনিয়ন আ‘লীগ নেতা শিব্বির আহমদ ও তার নাম (সাব্বির) উল্লেখ পূর্বক প্রকাশ্যে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের সামনে এমপি মাহমুদ-উস-সামাদ চৌধুরী কয়েছ হত্যা হুমকি প্রদান করে তাদের বাংলাভাই, হিজড়া, নাস্তিক আখ্যায়িত করে রণ হুংকার দিয়েছেন।

সাব্বির এসময় প্রধানমন্ত্রীকে এমপির এহেন বক্তব্যের ভিডিও রেকর্ড, জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদকপি তার নিকট আছে বলেও জানান। বক্তব্যে সাব্বির আরো বলেন, এ হুমকির পর দেশে অবস্থানরত সাব্বিরের পরিবার-সহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়ছেন। প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্য গভীর মনোযোগ সহকারে শুনে মর্মাহত হন। এরপর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পুলিশের, মহা-পরিদর্শক সহ সংশ্লিষ্টদের অনুমতিক্রমে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের পরামর্শ প্রদান করেন সাব্বিরকে ।

এ ব্যাপারে আশফাকুল ইসলাম সাব্বির দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট সরাসরি এমপির হত্যা হুমকি সহ আপত্তিকর বক্তব্য তুলে ধরে প্রতিকার চেয়েছেন। এক পর্যায়ে তাকে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের যথাযথ সদয় পরামর্শ প্রদান করেছেন প্রধানমন্ত্রী। দেশে অবস্থানরত তার পরিবার আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে বলেও জানান সাব্বির।
বৈঠকে উপস্থিত নেতাদের মধ্যে যুক্তরাজ্যে আ‘লীগের সদস্য ও মহানগর আ‘লীগের সহ-সভাপতি শফিক আহমদ দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, সাব্বিরের বক্তব্য শুনার পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী খুবই মর্মামত হয়েছেন, এরপর আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের সদয় নির্দেশ ও পরামর্শ প্রদান করে বলেন, যথাযর্থ স্থানে তিনি বিষয়টি বলে দিবেন।

প্রসঙ্গত, গত ১৫ সেপ্টেম্বর দুপুরে স্থানীয় ফেঞ্চুগঞ্জের ১নং ইউনিয়ন পরিষদ এলাকার পিঠাইটিকর সরকারী প্রাথমিক সরকারী বিদ্যালয়ের নবনির্মিত ৪তলা ভবনের উদ্বোধনী সভায় প্রধান অতিথির হিসেবে প্রদান করেন এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েছে। তার ১৮:২৪ মিনিটের এ বক্তব্যের বেশিরভাগ ছিল দলের স্থানীয় নেতাকর্মী বিদ্বেষী। বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের সামনে নিজের নির্বাচনী অভিজ্ঞতা সহ অতীতের বিভিন্ন বিষয়ে গর্বিত স্মৃতিচারনের এক পর্যায়ে এমপি বলেন, ফেঞ্চুগঞ্জে বাংলা ভাইয়ের সন্ধান পেয়েছেন তিনি। বাংলা ভাইকে হুশিয়ার করে দিয়ে বলেন তার রক্ষা নেই।
এছাড়া কথিত বাংলা ভাইয়ের সাথি সাব্বির-শিব্বিরও। মাইজগাঁও এর সাব্বির ও ওই এলাকার শিব্বির। এই নাস্তিকদেরও রেহাই নেই। অরাজনৈতিক সভায়, এহেন প্রতিহিংসা মুলক রাজনীতিক বক্তব্যের ঘটনায় তোলপাড় উঠে।