বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতেই বিচার চালিয়ে যাওয়া ন্যায়বিচার পরিপন্থি: ফখরুল



জাতীয় ডেস্ক:: কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতেই জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার বিচার চালিয়ে যাওয়ার আদালতের আদেশকে ন্যায়বিচারের পরিপন্থি বলে জানিয়েছে বিএনপি।
এক সপ্তাহে পরপর তিনদিন এ মামলার ‍শুনানির তারিখ রাখায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, শুনানি শেষ করার জন্য এতো তাড়া কেন?

শুক্রবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল বলেন, সরকারের তাড়া আমরা বুঝতে পারি, তারা চায় যত দ্রুত বেগম জিয়াকে আটকে রাখার ব্যবস্থা করা যায়। কিন্তু আদালতের কাছ থেকে এটা আমরা প্রত্যাশা করি না, জনগণও করে না।

অন্যদের মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, রফিকুল ইসলাম মিয়া, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুল কাইয়ুম, অধ্যাপিকা সাহিদা রফিক, প্রচার সম্পাদক শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

জিয়া অ্যারফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের সাজার রায়ে কারাগারে আছেন খালেদা জিয়া। তার বিরুদ্ধে জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার বিচার চলছে ওই কারাগারের একটি কক্ষে বিশেষ জজ আদালতের বিশেষ এজলাস বসিয়ে।

পরপর তিন কার্যদিবস তিনি আদালতে হাজির হননি। পরে ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ মো. আখতারুজ্জামান বৃহস্পতিবার আসামির অনুপস্থিতিতেই যুক্তি-তর্ক ‍শুনানির আদেশ দেন।

বিচারক বলেন, এক বছর ৯ মাস মামলাটি যুক্তিতর্কের পর্যায়ে থাকায় এবং আসামি খালেদা জিয়া ইচ্ছাকৃতভাবে আদালতে হাজির না হওয়ায় ন্যায়বিচারের স্বার্থে তিনি এ সিদ্ধান্ত দিচ্ছেন।

আগামী ২৪, ২৫ ও ২৬ সেপ্টেম্বর প্রতিদিন সকাল সাড়ে ১০টা থেকে এ মামলার যুক্তিতর্কের শুনানি হবে বলে জানানো হয় আদালতের আদেশে।

মির্জা ফখরুল আদালতের ওই আদেশকে ন্যায়বিচার ও মৌলিক অধিকারের পরিপন্থি হিসেবে বর্ণনা করেন।

তিনি বলেন, কারাগারের মধ্যে আদালত নিয়ে গিয়ে আজকে এই বেআইনি আদেশ দিয়ে মামলা পরিচালনা করা হচ্ছে। আমরা অত্যন্ত ক্ষোভের সঙ্গে, অত্যন্ত পরিতাপের সঙ্গে এই আদেশ মেনে নিতে পারছি না, জনগণ তা গ্রহণ করছে না। আমরা মনে করি, এই আদেশ পরিবর্তন হওয়া উচিৎ।

বর্তমানে বিচার ব্যবস্থা, বিশেষ করে নিম্ন আদালত সম্পূর্ণভাবে সরকারের করায়ত্ব হতে চলেছে মন্তব্য করে ফখরুল বলেন, এর ফলে দেশের মানুষ ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

এ সময় খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, দেশনেত্রী অত্যন্ত অসুস্থ। বিচার বিভাগের কাছে আমরা আহ্বান জানাতে চাই, ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করবার জন্য এই ‍শুনানি বন্ধ করে তার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা প্রয়োজন।