সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

গোলাপগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী নিয়োগে অনিয়ম: স্মারকলিপি প্রদান



সিলেটের গোলাপগঞ্জে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগে অনিয়ম ও ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।এনিয়ে এলাকায় দুপক্ষে উত্তেজনাকর পরিনস্থিতি বিরাজ করছে।

এলাকাবাসী অবিলম্বে নিয়োগ বাতিল-সহ অনিয়ম-দুর্নীতির সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার সিলেটের জেলা প্রশাসক বরাবরে দেয়া এ আবেদনে এ দাবি জানানো হয়। আবেদন গ্রহণ করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সন্দ্বীপ কুমার সিংহ।

জানা গেছে, গোলাপগঞ্জের ভাদেশ্বর ইউনিয়নে ৯২ নং তেরাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। এ বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি দেয়া হলে ৫জন আবেদন করেন। তারা হলেন রিয়াজ উদ্দিন, উস্তার আলী, রহিম উদ্দিন, জুনেদ আহমদ ও রুহেল আহমদ। এদের মধ্যে উস্তার আলী ও জুনেদ এসএসসি পাস হলেও অন্যরা ৮ম শ্রেণি পাশের দাবিদার।

অভিযোগ পাওয়া গেছে, শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা সত্বেও নিয়োগ কমিটি এসএসসি পাশ দু’জন-সহ অন্যদের বাদ দিয়ে মোটা অংকের টাকার বিনময়ে তেরাপুর গ্রামের আব্দুল বারীর পুত্র রহিম উদ্দিনকে দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগ দেয়া হয়। ভ’য়া ৮ম শ্রেণি পাশ সার্র্টিফিকেটধারী রহিমের এ নিয়োগের প্রতিবাদে অভিভাবকরা তাদের ছেলে মেয়ে স্কুলে দেয়া বন্ধ করে দেন।

পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের মধ্যস্থতায় শিশুরা স্কুলে যাওয়া আসা শুরু করলেও বখাটে রহিমের নিয়ে নিয়ে স্কুল কমিটির সদস্যসহ সাধারণের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ ক্ষোভের বিস্ফোরনে অনাকাঙ্খিত ঘটে যাওয়ার আশংকা করছেন এলাকাবসী। এলাকাবাসী অবিলম্বে টাকাপর বিনমিয়ে দপ্তরয় কাম প্রহরী পদে রহিমের নিয়োগ বাতিল, পুনরায় নিয়েগ কমিটি গঠন করে বিজ্ঞপিত প্রকাশের মাধ্যমে নিয়োগ প্রদানের দাবি জানান।

জেলা প্রশাসক বরাবরে দেয়া আপবেদনে স্বাক্ষর করেন,তেরাপুর স্কুর ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দিুল কাদির কালন,সহ-সভাপতি আব্দুল জব্বার, মহিলা বিষয়ক সদস্য আছমা বেগম প্রমূখ।
জেলা প্রশাসকের সংশ্লিষ্ট শাখা আবেদন প্রাপ্তির সত্যতা নিশ্চিত করেছে। -বিজ্ঞপ্তি