মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ইশা ছাত্র আন্দোলন থেকে সদ্য দলত্যাগী নেতা ফরিদ উদ্দিনের বিবৃতি



ইশা ছাত্র আন্দোলনের সিলেট মহানগর ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে উদ্দেশ্যে করে সিলেট মহানগরীর ২নং ওয়ার্ডের সদ্য ত্যাগী সভাপতি মো. ফরিদ উদ্দিন বলেন, অন্যকে কাফের বলার আগে নিজের ইমানটা তাওহীদের স্কেল দিয়ে পরিমাপ করুন।
তিনি শুক্রবার (১৩ জুলাই) গণমাধ্যমে এক বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, ইশা ছাত্র আন্দোলন এভাবে মিথ্যার আশ্রয় নেবে আমরা কখনও তা ভাবিনি। আমি দলটি ত্যাগ করেছি দলের নিয়ম অনুসারে। আমরা দল ত্যাগ করার পূর্বে ইশা ছাত্র আন্দোলনের উর্ধ্বতন দায়িত্বশীলকে অবগত করেছি। তিনি সাংগঠনিক নিয়ম অনুসারে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। যার ১৮ মিনিটের অডিও রেকর্ড রয়েছে। উনারা বলেছেন, আমাকে ও আব্দুর রাজ্জাককে ১ বছর পূর্বে অব্যাহতি দিয়েছে। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা। আজও কোন অব্যাহতি নামা আমার কাছে আসেনি। উনারা বলেছেন মো. আব্দুর রাজ্জাক একজন কর্মজীবি মানুষ তার ছাত্রত্ব নেই। অথচ মো. আব্দুর রাজ্জাক ২০১৮ সেশনে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। যার রেজিস্ট্রেশন নং- ১২১৬৬০৩১৬৩, রোল নং- ১০২৮৮৫। দল ত্যাগে এ অকাট্ট সত্য বিষয়কে তারা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টায় মিথ্যাচারে লিপ্ত হয়েছেন। অন্ততপক্ষে কেন্দ্রের বিষয়টি সঠিক তদন্ত করে বিবৃতি দেয়া যৌক্তিক সংঘত ছিল। দুঃখজনক হলেও সত্য, আজ মিথ্যার স্রোতধারায় কেন্দ্রের উপর বিজয় লাভ করেছে। সাহাবায়ে কেরামে অনুসারীর দাবি করলে অনুসারী হওয়া যায় না। নিজের মধ্যে সাহাবায়ে কেরামদের আদর্শ থাকতে হয়। আপনাদের উর্ধ্বতন দায়িত্বশীল দল ত্যাগ করায় আমাদের কাফের ও অনেকে মুনাফিক বলেছে। আজ আপনাদের দল ত্যাগ করায় আমাদের কাফের ও মুনাফিক বলতে কুন্ঠাবোধ করছেন না। আপনাদের মনগড়া মতবাদের বিশ্বাসী হলে প্রকৃত ইসলামে থাকে, আপনাদের এমন আচরণ প্রত্যক্ষ করে মনে হচ্ছে রাসূল (সাঃ) আপনাদের ইসলামের ঠিকাদার হিসেবে নিয়োগ করেছেন। যারা আপনাদের বানানো মতবাদে বিশ্বাসী হলে তারা মুসলমান। যারা মানবেনা তারাই কাফের। আপনারা একঘেয়েমী, হিংসাত্মক রাজনীতি ও মিথ্যাচার পরিহার করে সত্যের পথে হাটুন। নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে মিথ্যার আশ্রয় ছাড়–ন। এটা কখনো সাহাবায়ে কেরামের আদর্শ নয়। অপব্যাখ্যা পরিহার করুন, তাগুতের দেখানো পথ ছাড়–ন। সত্যকে বুঝুন, সত্যকে মানুন। তবে সর্বশ্রেণির মানুষের কাছে আপনারা গ্রহণযোগ্যতা লাভ করবেন।