রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর
প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়ে সিলেট কওমি মাদরাসা বোর্ডের শুকরিয়া মিছিল  » «   বিশ্বনাথে গোপন বৈঠক কালে ১৭ জামাত নেতা আটক  » «   হোটেল শ্রমিক উইনিয়নের বিক্ষোভ মিছিল  » «   জেলা পরিষদের অর্থায়নে সংযোগ সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন-এড. লুৎফুর রহমান  » «   জগন্নাথপুরে সংঘর্ষের ঘটনায় ২৫ জনের জামিন হওয়ায় এলাকায় স্বস্তি  » «   বিশ্বনাথে মাজার নিয়ে মিথ্যা অপপ্রচার বন্ধের দাবিতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন  » «   সিলেট-৫ আসনের সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী ফয়জুল মুনির চৌধুরী’র মোটর সাইলেক শোডাউন  » «   চারখাই ত্রিমুখে ‘শহীদ নাহিদ চত্বর’র উদ্বোধন করলেন শিক্ষামন্ত্রী  » «   কমলগঞ্জের ধলই চা বাগানে মস্তকবিহিন নারীর লাশ উদ্ধার  » «   ওসমানীনগরে বাস চাপায় নিহত ২ : আহত ২  » «  

চুনারুঘাটে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস উদযাপন, ৭জনকে সম্মাননা প্রদান



এম এস জিলাানী আখনজী, চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি:: পরিকল্পিত পরিবার সুরক্ষিত মানবাধিকার”এই প্রতিপাদ্যকে সামনে নিয়ে সারাদেশের ন্যায় চুনারুঘাটে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস উদযাপন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে চুনারুঘাট উপজেলার পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহন করেছে।

আজ ১১ জুলাই বুধবার সকালে চুনারুঘাট পৌর শহরে বর্ণাঢ্য র‌্যালি শেষে আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়। মা-মনির পরিচালক শামিম আহমদ ও ফেরদৌস আহমেদ এর উপস্থাপনায় উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার জান্নাতুল ফেরদাউস তালুকদার এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুনারুঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব আবু তাহের।

বিশেষ অতিথি উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী শাফিয়া খাতুন, আহম্মদাবাদ ইউপির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবেদ হাসনাত চৌধুরী সঞ্জু, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার গোলাম মহিউদ্দিন আহমেদ, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনার পরির্দশক মোঃ জুলহাস আহমেদ, উপজেলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক রাজু, ইউনিয়ন পরিবার পরিকল্পনা অফিসার খলিলুর রহমান, কামরুল ইসলাম, ফাতেমা বেগম, আমির হোসেন প্রমুখ।

পরিবার পরিকল্পনার হিসাব মতে ২০১২ সালে জন্ম নিয়ন্ত্রনের হার ছিল ৬২ দশমিক ২ শতাংশ। সর্বশেষ ২০১৬ সালে ছিল ৬২ দশমিক ৩ শতাংশ। বিবিএসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ৫ বছরে জন্ম নিয়ন্ত্রনের পদ্ধতি ব্যবহারের হার একই রকম রয়েছে। প্রত্যাশা অনুযায়ী শহরাঞ্চলের (৬৬ দশমিক ৩ শতাংশ) মহিলারা গ্রামাঞ্চলের (৬৯ দশমিক ৪ শতাংশ) মহিলার চেয়ে বেশি হারে জন্ম নিয়ন্ত্রন পদ্ধতি ব্যবহারের সঙ্গে মোট প্রজনন হারের (টোটাল ফার্টিলিটি রেট-টিএফআর) সম্পর্ক সরাসরি। ১৫-৩৯ বছর বয়সি নারী যত সন্তানের জন্ম দেন, সেটাই টিএ ১৯৭৫ সালের নারীরা মোট ৬টির বেশি সন্তানের জন্ম দিতেন ( টিএফআর ছিল ৬ দশমিক ৩ শতাংশ)।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংখ্যা বিশেষজ্ঞ প্রপুলেশন সাইন্সেস বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. একে এম নুরুননবী বলেন, এনালগ দৃষ্টিতে হবে না। অর্থাৎ পুরানো ধাচেঁর কর্মসূচি দিয়ে পরিবার পরিকল্পনা চলবে না। ইনোভেটিব এপ্রোচ লাগবে পরিবার পরিকল্পনার ক্ষেত্রে। এখন চিন্তা ও দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন হয়েছে।

মানুষের মূল্যবোধ হুড়হুড় করে পরিবর্তন হয় না। সম্পদের সঙ্গে জনসংখ্যার ব্যালেন্স দেখতে হবে। জনসম্পদ কাজে লাগাতে পারলে পরিবার পরিকল্পনা কাজে আসবে।
এ পরিস্থিতিতে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশে ও সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে আজ ১১ই জুলাই বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালন করা হয়েছে।
অনুষ্টানে পরিবার পরিকল্পনায় মা ও শিশু বিষয়ক কর্মকান্ডে সহযোগীতা করে বিশেষ অবদান রাখায় আহম্মদাবাদ ইউপির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবেদ হাসনাত চৌধুরী সনজু ও ডাক্তার মুসলিম উদ্দিনসহ ৭ জনকে সম্মাননা ক্রেষ্ট ও সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।