মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করল ব্লাড ডোনারস ফোরাম’ ও ‘স্বপ্নের ভাটেরা রক্তদান ফাউন্ডেশন’



ডেস্ক নিউজ:: সপ্তাহ জুড়ে প্রবল বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে মৌলভীবাজার জেলার ৪টি উপজেলা বন্যার পানিতে হাওর পাড়ের মানুষের দুর্ভোগ চরমে। বন্যায় মৌলভীবাজার জেলা সদর উপজেলা সহ কুলাউড়া, জুড়ি, বড়লেখা উপজেলার বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে, পানি বন্দি হয়ে পড়েছে ৮০টি গ্রামের প্রায় লক্ষাধিক মানুষ।

সরেজমিনে দেখা যায়, কুলাউড়া পৌর শহর সহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার অধিকাংশ ঘরবাড়ি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও রাস্তাঘাট বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। উপজেলার ভুকশিমইল ইউনিয়নের প্রায় ৯০ভাগ ঘড়-বাড়ি বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন হাজার হাজার মানুষ। এছাড়াও বরমচাল, ভাটেরা, কাদিপুর ও জয়চন্ডি, ইউনিয়ন সহ বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ৩০ হাজার মানুষ। জুড়ি উপজেলার সদর ইউনিয়ন সহ বিভিন্ন এলাকার অন্তত ২০টি গ্রামের মানুষ রয়েছেন পানিবন্দি।

৬জুলাই রোজ শুক্রবার ‘বাংলাদেশ ব্লাড ডোনারস ফোরাম’ সিলেট শাখা ও ‘স্বপ্নের ভাটেরা রক্তদান ফাউন্ডেশন’ এর উদ্যোগে টিলার গাঁও, হাজিপুর, শরিফপুর, কটার কোণা, কুনিমুড়া, বাড়ই গাঁও এসব এলাকার বন্যায় প্লাবিত ক্ষতিগ্রস্থ ১৯০ এর অধিক দরিদ্র পরিবারের মাঝে ত্রাণ (চাল, ডাল, চিড়া, আটা, গুড়, পানি বিশুদ্ধিকরণ ট্যাবলেট, খাবার স্যালাইন ও প্রয়োজনীয় ঔষধ সামগ্রী) বিতরণ করা হয়।

মনোনদী ভাঙ্গন এলাকায় ত্রাণ বিতরণ সময়ে উপস্থিত ছিলেন, মোঃ আব্দুল বাছিত বাচ্চু (চেয়ারম্যান, হাজিপুর ইউনিয়ন,ও বাড়ই গাঁও ২ নং ওয়ার্ড), মোঃ আব্দুল লতিফ চৌধুরী (মেম্বার, হাজিপুর ইউনিয়ন), লোকেশ চন্দ্র দাস (বীর মুক্তিযোদ্ধা), নাদের আহমদ ( শিক্ষক) কামাল আহমদ, মোঃ আব্দুল মুহিন ও আব্দুল কবির মিয়া (বিশিষ্ট সমাজ সেবক)।

এসময় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুল বাছিত বাচ্চু বলেন, বর্তমান প্রজন্মের তরুণরা অনেক এগিয়ে, তাদের এমন উদ্যোগ বন্যাদুর্গত মানুষের জন্য সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিতে এতদূর থেকে ছুটে এসে অসহায়দের সুখ-দুঃখে পাশে দাঁড়াতে দেখে আমি সত্যি মুগ্ধ। সমাজের প্রতিটা তরুণ যদি এভাবে সামাজিক কার্যক্রমের মধ্যদিয়ে হতদরিদ্র মানুষদের পাশে দাঁড়াতো তাহলে এসব সুবিধা বঞ্চিত মানুষদের দুঃখ কষ্ট অনেকটা মুছন হত। তাদের এই মহৎ কার্যক্রমে আমাকে অবগত করায় এবং তাদের সাথে কিছু সময় দিতে পেরে সত্যি ভালো লাগছে, এমন উদ্যোগ নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়, যারা এই কার্যক্রমের উদ্যোগ নিয়েছে তাদের সবার জন্য আমার দোয়া ও ভালবাসা রইল।

‘ব্লাড ডোনারস ফোরাম’ এর কেন্দ্রীয় প্রকল্প পরিচালক ও সিলেট বিভাগীয় সভাপতি হৃদয় খাঁন রনি বলেন, মানুষের জন্য কাজ করে আমরা বিনির্মাণে কাজ করে যেতে চাই, মৌলিক অধিকার আদায় করি, সুবিধাবঞ্চিত মানুষের সেবায় এগিয়ে আসি। যাদের অর্থ-শ্রম-পরামর্শ ও সার্বিক সহযোগীতার আমাদের আজকের ত্রাণ বিতরণ সফল হয়েছে আপনাদের সকলের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। থেমে যাক বন্যার্ত মানুষের কান্না, ফিরে পাক আগের সেই আনন্দ ও হাসি, সেই প্রত্যাশা।

‘ব্লাড ডোনারস ফোরাম’ সিলেট শাখার সাধারণ সম্পাদক নাঈম খাঁন বলেন, ঈদের দিনটিও পানি বন্ধি হয়ে কাটিয়েছেন হাজার হাজার মানুষ, মারা গেছে শতাধিক মানুষ ও হাজারো গবাদিপশু। বিশুদ্ধ খাবার এবং পানীয় জলের অভাবে বন্যার্ত এলাকায় দেখা দিয়েছে নানান রোগের প্রকোপ। হাজারো মানুষ রয়েছেন স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে, তাদের পাশে দাঁড়াতে আমাদের আজকের খুদ্র আয়োজন।

স্বপ্নের ভাটেরা রক্তদান ফাউন্ডেশন’ এর সমন্নয়ক তালুকদার আদনান বাশার আসিফ বলেন, মানুষদের সহযোগিতায় প্রবাসীদের পাশাপাশি এগিয়ে এসেছে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন। আমাদের সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে বন্যার্ত মানুষদের সহযোগিতায় ‘বাংলাদেশ ব্লাড ডোনারস ফোরাম’ সিলেট ও স্বপ্নের ভাটেরা রক্তদান ফাউন্ডেশন’ এর যৌথ উদ্যোগে বন্যার্ত মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর প্রচেষ্টা। আর কতকাল মানবিকতার স্লোগান তুলে শোষণ নির্যাতন আর শাসকের ধাপ্পাবাজিতে আটকে থাকবো? তাই আসুন সবাই মিলে ঐক্য গড়ি, বন্যার্তদের সাহায্য করি।

উক্ত বিতরণী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, ‘ব্লাড ডোনারস ফোরাম’ এর প্রচার সম্পাদক রুহুল আমীন, ধর্মবিষয়ক সম্পাদক ইসমাইল আলী, সদস্য নজরুল ইসলাম, বাপ্পি ভট্টাচার্য, শহীদ আহমেদ, ‘নব উত্থান’ সংস্থার সাধারণ সম্পাদক একরাম হোসেন নাহিদ ও স্বপ্নের ভাটেরা রক্তদান ফাউন্ডেশন’ এর সদস্য মাসুম আহমেদ, তালুকদার সাব্বির, তাজুল ইসলাম, পিংকু দেব, মুজাহিদুল ইসলাম সামিম, মোঃ আলি।