শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ কোতোয়ালী থানার প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত  » «   জগন্নাথপুরে ছাত্রদল নেতাকে ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক করায় ১১ সদস্যের পদত্যাগ !  » «   খাদিমনগরে ইউপি সদস্য দিলুকে জড়িয়ে মিথ্যাচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন  » «   কারবালার আত্মাদান হলো জালিমের সামনে আল্লাহর বাণী প্রচারে সর্বোত্তম দৃষ্টান্ত: রেদওয়ান আহমদ চৌধুরী  » «   খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতেই বিচার চালিয়ে যাওয়া ন্যায়বিচার পরিপন্থি: ফখরুল  » «   বিশ্বনাথে নারীদের ত্রি-মাসিক সেলাই প্রশিক্ষণের উদ্বোধন  » «   সিলেটে শিশু অপহরণ ও ধর্ষণ : ৬ দিনপর রংপুর থেকে উদ্ধার  » «   সিলেট আদালতে স্বীকারোক্তি : ধর্ষণের পর পানিতে চুবিয়ে রুমিকে হত্যা  » «   ওসমানীনগরে প্রানীসম্পদ ও ভেটেনারি হাসপাতালের নবনির্মিত ভবন উদ্ভোধন  » «   ছাতকে সেচ্ছাশ্রমে কাঁচা সড়ক সংস্কার  » «  

জগন্নাথপুরে দীর্ঘ ১৩ বছর পর যুবদলের কমিটি গঠন নিয়ে উৎসবের আমেজ



মো.শাহজাহান মিয়া, জগন্নাথপুর থেকে:: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির সহযোগি যুব সংগঠন জাতীয়তাবাদী যুবদলের কমিটি না থাকায় দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশার সৃষ্টি হয়।

অবশেষে সুনামগঞ্জ জেলা যুবদলের নতুন কমিটি হওয়ায় জগন্নাথপুরে যুবদলের কমিটি গঠন হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। এতে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে।

জানাগেছে, সর্বশেষ দীর্ঘ ১৩ বছর আগে ২০০৫ সালে এমএ মতিনকে সভাপতি ও এমএ গফুরকে সাধারণ সম্পাদক করে ২ সদস্য বিশিষ্ট জগন্নাথপুর উপজেলা যুবদল এবং এমএ কয়েছকে সভাপতি ও দিলু মিয়াকে সাধারণ সম্পাদক করে ২ সদস্য বিশিষ্ট জগন্নাথপুর পৌর যুবদলের ২ বছর মেয়াদী কমিটি গঠন করা হয়। পরে দীর্ঘ ৬ বছর অতিবাহিত হলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়নি।

এর মধ্যে কমিটি গঠন নিয়ে জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপিতে গ্রুপিংয়ের সৃষ্টি হয়। প্রথমে এক গ্রুপের নেতৃত্বে জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক পৌর মেয়র আক্তার হোসেন ও আরেক গ্রুপের নেতৃত্বে শিক্ষাবিদ লে. কর্ণেল অব সৈয়দ আলী আহমদ দায়িত্ব পালন করেন। পরে আবারো নতুন কমিটি গঠন নিয়ে বিএনপি দুইভাগে বিভক্ত হয়। এ সময় এক গ্রুপের নেতৃত্বে আক্তার হোসেন ও আরেক গ্রুপের নেতৃত্বে শিক্ষাবিদ আবু হোরায়রা ছাদ মাস্টার দায়িত্ব পালন করেন।

তখন মুল দল বিএনপিতে গ্রুপিং থাকায় সহযোগি সংগঠনেও বিভক্তির সৃষ্টি হয়। এরই ধারাবাহিকতায় অবশেষে ২০১১ সালে ছাদ-কবির গ্রুপের এমএ কয়েছকে আহবায়ক করে উপজেলা যুবদল ও দিলু মিয়াকে আহবায়ক করে পৌর যুবদলের কমিটি গঠন করা হয় এবং আক্তার গ্রুপের শামসুল ইসলামকে আহবায়ক-আনছার মিয়াকে যুগ্ম-আহবায়ক করে জগন্নাথপুর উপজেলা ও জিলু মিয়াকে আহবায়ক করে পৌর যুবদলের কমিটি গঠন করা হয়। বর্তমানে কোন কমিটির মেয়াদ না থাকায় দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। মাঠে দেখা যাচ্ছে না নেতাকর্মীদের আগের মতো তৎপরতা।

এর মধ্যে গত কিছুদিন আগে আবুল মনসুর শওকতকে সভাপতি ও অ্যাডভোকেট মামুনুর রশীদ কয়েছকে সাধারণ সম্পাদক করে সুনামগঞ্জ জেলা যুবদলের নতুন কমিটি গঠন করা হয়। জেলা কমিটি গঠন হওয়ায় জগন্নাথপুরে যুবদলের নতুন কমিটি গঠনের সম্ভাবনা দেখা দেয়। এতে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে।

এদিকে-জগন্নাথপুর উপজেলা ও পৌর যুবদলের নতুন কমিটি গঠন নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীরা পদ-পদবী পেতে জেলা ও কেন্দ্রীয় যুবদলের শীর্ষ নেতাদের সাথে জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। এক্ষেত্রে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে, তারা হলেন ছাদ-কবির গ্রুপের আবুল হাশিম ডালিম, এমএ কয়েছ ও সুহেল আহমদ খান টুনু এবং আক্তার গ্রুপের আনছার মিয়া, দুই বারের নির্বাচিত একমাত্র বিএনপি সমর্থিত পৌর কাউন্সিলর তাজিবুর রহমান ও শামীনুর রহমান।

বর্তমানে দলের দুঃসময়ে তাদেরকেই তাদের সহযোগিদের নিয়ে দলীয় কর্মকান্ডে মাঠে বেশি দেখা যায়। তাই মাঠ পর্যায়ে তদন্তক্রমে দলের পরীক্ষিত ত্যাগী ও মাঠের রাজনীতিতে সক্রিয় কর্মীদের উপযুক্ত পদ-পদবীতে ভূষিত করে নতুন কমিটি গঠনের মাধ্যমে জগন্নাথপুরে যুবদলের রাজনীতিতে গতি ফিরিয়ে আনতে জেলা ও কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতাদের প্রতি আহবান জানান তৃণমুল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। যারা নেতৃত্বে আসলে মাঠ পর্যায়ে দল আরো সু-সংগঠিত ও শক্তিশালী হয়ে উঠবে।