শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর
সিলেটে ফিরে নেতাকর্মীদের ভালবাসায় সিক্ত কামরান  » «   বন্যায় সবজি খেত বিনষ্ট, কমলগঞ্জে কাঁচা বাজারে আগুন  » «   পাঁচ জনকে পেছনে ফেলে কামরানের মনোনয়ন জয়: নগরীতে আনন্দ মিছিল  » «   সিলেটে দলীয় সমর্থন আদায়ে আ’লীগ-বিএনপি নেতাদের দ্বারে দ্বারে কাউন্সিলর প্রার্থীরা  » «   চুনারুঘাটে রাত পোহালেই আমু চা বাগানের শ্রমিকদের নির্বাচন  » «   সিলেটে পুলিশের সাথে ছাত্রদলের সংঘর্ষ: আটক ১৫  » «   ভারতীয় কাশ্মীরে বন্দুকযুদ্ধ, পুলিশসহ নিহত ৬  » «   আ’লীগের নিজস্ব ভবন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   পাঁচ জেলায় সড়কে প্রাণ গেল ৩২জনের  » «   শুভ জন্মদিন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ: এড শাকী শাহ ফরিদী  » «  

কেমুসাসের কাঁচঘেরা বাক্সে মোগল সম্রাটের হাতে লেখা পবিত্র কোরআন



তাসলিমা খানম বীথি:: ১. কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাপ্তাহিক সাহিত্য আসরের উপস্থাপনার জন্য প্রতি বৃস্পতিবারে আমাকে যেতে হয়। তবে লাইব্রেরীতে মাঝে মাঝে গেলোও পবিত্র কোরআন শরিফটি দেখা হয়নি কখনো। সেদিন গিয়েছিলাম সম্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা পবিত্র কোরআন শরিফটি দেখতে।

কেমুসাসের লাইব্রেরীর সুশীতল ভবনের কাটের বাক্সের ভেতরে রাখা পবিত্র কোরআন শরিফ দেখে শুধু মুগ্ধই হয়নি, নিজেকে গর্বিত ভাগ্যপতি মনে হচ্ছে এই ভেবে যে কেমুসাসের জীবন সদস্য হতে পেরে। যে সাহিত্য প্রতিষ্ঠানে পদচারনা করেছেন অনেক জ্ঞানীগুণী ব্যক্তিরা। মানুষের জীবনে কখন কী ঘটে তা কেউ বলতে পারে না। তেমনি আমিও ভাবেনি। কেমুসাসের সাথে, সাহিত্যের সাথে, আমার আত্মার সম্পর্ক গড়ে ওঠবে।

২. সিলেটের সাহিত্যচর্চায় যে প্রতিষ্ঠানটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা অবদান রেখে যাচ্ছে, তা হলো কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ। এই প্রতিষ্ঠানটি ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে লেখক সৃষ্টির লক্ষ্যে আজো ধারাবাহিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সিলেটে সাহিত্যচর্চার জন্য এটি হচ্ছে সকল লেখকদের প্রাণকেন্দ্র।

কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সূত্র থেকে জানা যায়, এখানে রয়েছে সম্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা কোরআন শরিফ। ১৯৪৬ সালে খান সাহেব আবদুল করিম মোগল সেনাদের যুদ্ধ পোশাক ও ঢালের বিনিময়ে নেপালিজ ব্যবসায়ীর কাছ থেকে এ কোরআন শরিফটি সংগ্রহ করেন। এ কোরআন শরিফটি সংগ্রহে রয়েছে চমকপ্রদ এক কাহিনী।
৩. মৌলভী খান সাহেব আবদুল করিম মুম্বই শহরে আগর-আতরের ব্যবসা করতেন। সে সময় তার পরিচয় হয় নেপালিজ এক ব্যবসায়ীর সাথে। সেই নেপালির সংগ্রহে ছিল মোগল সম্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা একটি কোরআন শরিফ। তিনি এ দুর্লভ পবিত্র গ্রন্থটি কাশ্মির থেকে সংগ্রহ করেছিলেন। পরে তিনি কোরআন শরিফটি নিজ বাড়ি সিলেটের জৈন্তাপুর হেমু গ্রামে নিয়ে আসেন। মৌলভী খান সাহেব আবদুল করিম নিয়মিত এ কোরআন শরিফটি তেলাওয়াত করতেন বলে জানা যায়।
৪. আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা পবিত্র কোরআন শরিফটি সংরক্ষনের প্রয়োজন মনে করেন মৌলভী খান সাহেব আবদুল করিম। সেই অনুযায়ী তিনি ১৯৪৯ সালে এ কোরআন শরিফটি সিলেট কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদে দান করেন। সেই থেকে আজ পর্যণÍ মোগল সম্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা কোরআন শরিফটি কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদে সংরক্ষিত রয়েছে। সম্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা এই পবিত্র কোরআন শরিফটিতে রয়েছে চমৎকার নকশাসহ সম্রাটের সংক্ষিপ্তভাবে প্রতিটি আয়াতের তফসির। পবিত্র এই কোরআন শরিফটি দেখতে প্রতিদিন লেখক সাহিত্যিক দশনার্থীরা কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদে এসে জড়ো হন। কেমুসাসের সাবেক সভাপতি কবি রাগিব হোসেন চৌধুরী তথ্য সূত্রে জানা যায়, সম্রাটের হাতে লেখা কোরআন শরিফ বাংলাদেশে একমাত্র কপি এটি। মোগল সম্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা এই পবিত্র কোরআন শরিফটিতে কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাহিত্য সংসদের পড়ার কক্ষে কাঁচ ঘেরা একটি সুদৃর্শ্য বাক্সে সংরক্ষিত রয়েছে। যে কেউ চাইলেই গিয়ে দেখে আসতে পারেন মোগল সম্রাট আওরঙ্গজেবের হাতে লেখা প্রাচীনতম এই পবিত্র কোরআন শরিফ।