সোমবার, ২০ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর

কাতারে বিএনপির উদ্যোগে শহীদ জিয়ার শাহাদাতবার্ষিকী পালন



ডেস্ক নিউজ:: মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৭তম শাহাদাতবার্ষিকী পালন করেছে কাতার ধানসিড়ি বিএনপি। বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা শহীদ জিয়ার শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে ধানসিড়ি বিএনপির উদ্যোগে এক দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
কাতার ধানসিড়ি বিএনপির উদ্যোগে নাজমা শহরের রমনা রেষ্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য কাতার ধানসিড়ি বিএনপির আহ্বায়ক মোহাম্মদ শহীদুল হক। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন কাতার বিএনপির সদস্য সচিব শরীফুল হক সাজু।
কাতার বিএনপি নেতা জসিম উদ্দিন লস্করের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত দোয়া ও ইফতার মাহফিলে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- কাতার বিএনপির সাবেক সভাপতি আবু সাঈদ, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক পিয়ার মোহাম্মদ, যুগ্ম আহ্বায়ক মকবুল হোসেন, সাবেক সহ-সভাপতি সিরাজুল ইসলাম মুল্লা ও ইফতার মাহফিল আয়োজন কমিটির আহ্বায়ক ইসমাইল মনসুর।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোহাম্মদ শহীদুল হক বলেন- মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ছিলেন আধুনিক সমৃদ্ধ বাংলাদেশের রুপকার। কতিপয় বিপথগামী সেনা কর্মকর্তা জাতির শ্রেষ্ট সন্তান সফল রাষ্ট্রনায়ক শহীদ জিয়াকে হত্যা করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে নস্যাতের ষড়যন্ত্র করেছিল। কিন্তু শহীদ জিয়ার সুযোগ্য সহধর্মিনী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া এবং সুযোগ্য পুত্র দেশনায়ক তারেক রহমানের নেতৃত্বে শহীদ জিয়ার স্বপ্নের সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনের কাজ চলছে। কোন ষড়যন্ত্রই এর ধারা ব্যাহত করতে পারবেনা। আপোষহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার জন্য দেশে-বিদেশে সর্বত্র আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।
প্রধান বক্তার বক্তব্যে শরীফুল হক সাজু বলেন- পবিত্র রমজান মাসেও গণতন্ত্রের মা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া অন্ধকার কারা প্রকোষ্ঠে বন্দী হয়ে আছেন। এমতাবস্থায় জাতীয়তাবাদী শক্তির মন ভাল নেই। মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৭তম শাহাদাতবার্ষিকীতে তিনবারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রী কারাগারে রয়েছেন। যা গোটা জাতির জন্য লজ্জাজনক। এর জন্য বাকশালীদের কঠিন মুল্য দিতে হবে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলনে বাংলাদেশের দেশপ্রেমিক জনতাকে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে নেমে আসার আহ্বান জানান তিনি। পাশাপাশি বিদেশে অবস্থানরত জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধভাবে স্ব স্ব অবস্থান থেকে গণতন্ত্রের মা এর মুক্তির আন্দোলনে ঝাপিঁয়ে পড়তে হবে।