বুধবার, ২২ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর

তা‘লিমুল কুরআন পদ্ধতিতে বয়স্ক সহিহ্ কুরআন প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধন



ইসলামী ধর্মগ্রন্থ আল-কুরআনুল কারিম কোটি কোটি মানুষ যেভাবে মুখস্থ করেছে পৃথিবীতে

অন্য কোন ধর্মের মানুষ তার ধর্মগ্রন্থ এ ভাবে মুখস্থ করে রাখতে পারে নাই- শায়খুল হাদিস আল্লামা ইসহাক আল মাদানী

তা‘লিমুল কুরআন ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ সিলেট মহানগরের উদ্যোগে প্রতি বছরের ন্যায় বন্দর বাজার কুদরত উল্লাহ জামে মাসজিদের দ্বিতীয় তলায় গতকাল (শুক্রবার) বাদ কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে তা‘লিমুল কুরআন পদ্ধতিতে বয়স্ক সহিহ্ কুরআন প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধন করা হয়।

জুম্মা তা’লিমুল কুরআন ফাউন্ডেশন সিলেট মহানগর সভাপতি, তাহফীজুল কুরআন বোর্ড বাংলাদেশের মহাসচিব হাফেজ মাওলানা মিফতাহুদ্দিনের সভাপতিত্বে তা‘লিমুল কুরআন ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের প্যানেল উস্তাজ ,সিলেট মহানগর মুয়াল্লিম ও সেক্রেটারি ক্বারী আবদুল বাছেত মিলন ও হাফেজ ক্বারী আহমেদ কবির শামছের যৌথ পরিচালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদানকালে শাহজালাল জামেয়া ইসলামিয়া কামিল (এম.এ) মাদ্রাসার প্রধান মুহাদ্দিস, সৌদি আরব ধর্ম মন্ত্রালয়ের দারুল ইফতার বাংলাদেশ প্রতিনিধি শায়খুল হাদিস আল্লামা ইসহাক আল মাদানী বলেন – এমন কোন ডাক্তার নেই যিনি তার ডাক্তারির বই মুখস্থ করেছেন। এমন কোন ইকোনমিস্ট নেই যিনি তার ইকোনমিক্স বই মুখস্থ করে রেখেছেন। এমন কোনো সাইনটিস্ট নেই যিনি সাইন্সের বই মুখস্থ করেছেন। কুরআনুল কারিম যে সত্য তার প্রমাণ – ইসলামী ধর্মগ্রন্থ আল-কুরআনুল কারিম হাজার হাজার নয়, লক্ষ লক্ষ নয়, কোটি কোটি মানুষ মুখস্থ করেছে পৃথিবীতে অন্য কোন ধর্মের মানুষ তার ধর্মগ্রন্থ এ ভাবে মুখস্থ করে রাখতে পারে নাই । ২০০ কোটি মুসলমানের মধ্যে ১৫ – ২০ কোটি মুসলমান আল্লাহর এই কুরআন মুখস্থ করেছে। এই কুরআন কে বিশ্বাস করতে হবে। কেউ যদি কুরআন ভুল পড়ে তাহলে কার নামাজ হবে না। কেউ যদি সুরা তাকাছুর থেকে সুরা নাস অথবা সুরা ফিল থেকে সুরা নাস পর্যন্ত সহিহ ভাবে শিখে তাহলে সে নূন্যতম নামাজ সঠিক ভাবে আদায় করতে পারবে। কুরআনকে শুদ্ধভাবে তেলাওয়াত করতে হবে। ইমাম তাইমিয়া বলেন – “যে কুরআন তেলাওয়াত করলো না সে কুরআন ছেড়ে দিলো।” কুরআন কে বুঝতে হবে। কুরআন মানতে হবে। কুরআন নিয়ে গবেষণা করতে হবে। কুরআনের আমল করতে হবে। কুরআন দিয়ে জীবন গড়তে হবে। সবচেয়ে বেশী সওয়াবের ভান্ডার হচ্ছে কুরআন তেলাওয়াতে। রমজান মাসে বেশী বেশী কুরআন তেলাওয়াত করতে হবে। এই রমজান মাসে জিবরাইল (আঃ) রাসুল (সাঃ) কে কুরআন পড়ে শোনাতেন। রাসুল (সাঃ) জিবরাইল (আঃ) কে কুরআন পড়ে শোনাতেন। আপনাদের কে ক্বারী আবদুল বাছেত কুরআন পড়ে শোনাবে আপনারা শোনবেন। আপনারা ক্বারী আবদুল বাছেত কে কুরআন পড়ে শোনাবেন। এটা রাসুল (সাঃ) এর সুন্নাতের অংশ। ক্বারী আবদুল বাছেত ও তার সহযোগীরা এই রমজান মাসে আপনাদের কুরআন শিক্ষা দিবে এর চেয়ে বরকতপূর্ণ আর মুবারক কাজ হতে পারে না। কারণ কুরআনের প্রতিটি বর্ণে ১০টি নেকি রয়েছে। যারা এ কুরআন শিক্ষার আয়োজন করেছেন আল্লাহ তাদের কবুল করেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রেখেছেন বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ মাওলানা অলিউর রহমান সিরাজী প্রমুখ। -বিজ্ঞপ্তি