সোমবার, ২১ মে ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর

কৃতজ্ঞতায় বন্দি হলাম



স্টাফ রিপোর্টার:: হতাশ হইনি। বিচলিতও না। একেক করে সরে গিয়েছিলেন আপনজনরা। বিশ্বাস ছিল সহকর্মীদের উপর। সেই বিশ্বাসের মর্যাদা দিয়েছেন তারা।

আমি তাদের কাছে কৃতজ্ঞ। যারা পাশে থেকে সহযোগিতা করেছেন তাদের কাছে ঋনী হয়ে গেলাম। কাছ থেকে সরে যাওয়া মুখগুলো প্রকৃত মুখচ্ছবির জন্য আপসোস হচ্ছে।

এরা তো এমন ছিল না। মোহের কাছে মাথা অবনত করলেন তারা। হেরে গেছি। আপসোস নেই। করছিও না। আমার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য আজ না হয় কাল বন্ধু সহকর্মী ও অনুজরা বুঝতে পারবেন। আর সেদিনই আমি বিজয়ের হাসি হাসবো। কেউ চোখ রাখে অতীতে, কেউ বর্তমানে, আবার কেউ ভবিষ্যতে।

আমার চোখ তিন কালেই। ওই দিন সময় এক ফ্রেমে বন্দি করে চলি। সু-দিনে পাশে থাকতে চাই না। দুর্দিনের বন্ধু হয়ে কাছে থাকাই আনন্দ। চরিত্রে বহুমাত্রিকতা থাকার কারনে অনেক অগ্রজকে সম্মান জানাতে পারছি না। দু:খ বোধ করা ছাড়া আর কিছু নেই। ব্যক্তিত্ব থাকার পরও অনেক বন্ধু সহকর্মী চিরতরে অন্যের ‘গোলাম’ হয়ে গেলেন- নিজেকে বিক্রি করে দিলেন।

একদিন তাদেরও ভুল ভাঙবে। যারা অপপ্রচার চালিয়েছেন, কুৎসা রটনা করেছেন তাদের ধন্যবাদ। তাদের উদ্দেশ্য সফল হয়েছে। কিন্তু এতোটা নিচে নামা উচিত ছিল না।- ৪৬ জনের বহর কম না। তারা শক্তি যুগিয়েছেন, আগামীর পথ দেখিয়েছেন। তাদের কাছে চির কৃতজ্ঞ।