মঙ্গলবার, ২১ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর

প্লাস্টিকের বোতলে পানি খেলে কি ক্যান্সার হয়?



লাইফ স্টাইল ডেস্ক:: প্লাস্টিকের বোতল থেকে পানি খেলে কি ক্যান্সার হয়? কিংবা মাইক্রো ওয়েভ ওভেনে খাবার গরম করলে? নতুন এক গবেষণায় বলা হচ্ছে ক্যান্সার সম্পর্কে এরকম অনেক ভুল বা অসত্য তথ্য মানুষ বিশ্বাস করে বসে আছে।-খবর বিবিসি বাংলার।
ইংল্যান্ডে চালানো এই গবেষণার ফল ইতোমধ্যেই ‘ইউরোপিয়ান জার্নাল অফ ক্যান্সারে’ প্রকাশিত হয়েছে।

তবে, এই গবেষণায় অংশ নেয়া ইংল্যান্ডের মোট ১৩৩০ জন খুব সঠিকভাবেই ধূমপানকে ক্যান্সারের কারণ বলে সনাক্ত করেছেন।

ধূমপান, স্থূলতা ও আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মির ক্ষতিকর প্রভাবে যেসব ক্যান্সার হয় সেগুলো সবচেয়ে বেশি প্রতিরোধযোগ্য বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্যের ক্যান্সার রিসার্চ প্রতিষ্ঠান জানাচ্ছে, প্রতি দশটি ক্যান্সারের ঘটনার ক্ষেত্রে অন্তত চারটি ঘটনা লাইফস্টাইল বা জীবনযাপনের পদ্ধতি দিয়ে প্রতিরোধ করা সম্ভব। তবে এজন্য ক্যান্সারের কারণ বিষয়ে সঠিক তথ্য জানাটা জরুরি।

যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন ও ইউনিভার্সিটি অফ লিডস এর গবেষকরা বলেন, জরিপে অংশ নেয়া মধ্যে অন্তত ৪০ ভাগ মানুষ ভুলভাবে ‘স্ট্রেস’ বা মানসিক চাপ এবং খাদ্যাভ্যাসকে ক্যান্সারের কারণ বলে মনে করে। জরিপে অংশগ্রহণকারীদের অন্তত তিন ভাগের এক ভাগ বিশ্বাস করে যে, ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক ফ্রিকোয়েন্সি (৩৫%) এবং জেনেটিকেলি মডিফায়েড (জিএম) খাবার (৩৪%) খেলে ক্যান্সার হবার আশঙ্কা রয়েছে।

তাছাড়া যথেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক তথ্য-প্রমাণ না থাকার পরেও অন্তত ১৯ শতাংশ মনে করে যে মাইক্রোওয়েভ ওভেনে খাবার গরম করে খেলে এবং প্লাস্টিকের বোতল থেকে পানি খেলে ক্যান্সার হতে পারে।

জরিপে যারা অংশ নিয়েছেন এর মধ্যে অবশ্য সবচে বেশি সংখ্যক মানুষ শতকরা ৮৮ শতাংশ ধূমপান এবং ৮০ ভাগ মানুষ পরোক্ষ ধূমপান আর ৬০ ভাগ মানুষ ‘সানবার্ন’ বা রোদে পোড়াকে ক্যান্সারের কারণ বলে উল্লেখ করেছেন।

গবেষকরা বলছেন, ব্যাপারটা এমন নয় যে ক্যান্সারের কারণ সম্পর্কে যাদের মনে ভুল ধারণা ছিলো তারা অনেক ঝুঁকিপূর্ণভাবে জীবনযাপন করছিলেন।

বরং গবেষকরা জানাচ্ছেন যে, ক্যান্সারের কারণ সম্পর্কে যারা অনেক সঠিক তথ্য জানে তারা বেশি সচেতন এবং তারা ধূমপান থেকে দূরে থাকে। তাছাড়া সচেতন ব্যক্তিরা বেশি করে সবজি আর ফল-ফলাদিও খায় বলেও উল্লেখ করেছেন গবেষকেরা।

ইউনিভার্সিটি অফ লিডস এর ড. স্যামুয়েল স্মিথ বলেন, এটি খুবই দুশ্চিন্তার বিষয় যে, বৈজ্ঞানিক কোনো প্রমাণাদি না থাকার পরেও বহু মানুষ বিভিন্ন বিষয়কে ক্যান্সারের কারণ হিসেবে মনে করে।

স্মিথ আরও বলেন, এই শতকের শুরুর দিকে অসত্য ও অপ্রমাণিত বিষয়গুলোকে যে পরিমাণ মানুষ ক্যান্সারের কারণ হিসেবে মনে করতো, এখন তার থেকেও বেশি মানুষ সেটি মনে করছে।

আর এর পেছনে ইন্টারনেটে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তথ্য জানাটা একটা বড় কারণ বলেই মনে করছেন ড. স্মিথ। তাই, ক্যান্সারের কারণ সম্পর্কে মানুষকে সঠিক তথ্য দিয়ে জীবনযাত্রাকে নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে জনশিক্ষা আরও বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন তিনি।

আর যুক্তরাজ্যের ক্যান্সার রিসার্চ প্রতিষ্ঠানের ক্লেয়া হাইড বলেন, ক্যান্সারের বিরুদ্ধে গ্যারান্টি দেয়ার কোনো সুযোগ নেই। কিন্তু ক্যান্সারের সবচেয়ে বড় কারণগুলো সর্ম্পকে ভুল তথ্যের পেছনে সময় খরচ না করে সঠিক তথ্য জানলে ক্যান্সারের ঝুঁকি কমানো সম্ভব।