শুক্রবার, ২০ এপ্রিল ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর
ধর্মপাশায় একটি পাগলা কুকুরের কামড়ে ১৫জন আহত  » «   সিলেটে কর্মশালা: দায়িত্বশীল সাংবাদিকতা অপরিহার্য  » «   ছাত্র সমাজের মধ্যে প্রকৃত আদর্শ বিলিয়ে দিতে হবে- মাহবুবুর রহমান ফরহাদ  » «   আবারো ত্রিভুবনে ১৩৯ যাত্রী নিয়ে রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ল মালয়েশিয়ার বিমান  » «   ১২ মাস ভিজিএফ’র চাল ও নগদ অর্থ বিতরণ করে প্রমাণ হয়েছে এ সরকার কৃষি বান্ধব  » «   লন্ডন সিলেট ফ্রেন্ডশীপ অর্গানাইজেশনের মুকিত কে সংবর্ধনা  » «   মৌলভীবাজারে বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করলো ছেলে  » «   নগরী থেকে রবিউল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি নিখোঁজ  » «   জ্ঞানের রাজ্যে ভ্রমণের জন্য তো কোনো পাসর্পোট ভিসা লাগেনা–প্রণবকান্তি দেব  » «   কৃষি জমি রক্ষার দাবীতে ফতেহপুরবাসীর প্রতিবাদ সভা  » «  

মুজিবনগর দিবসে মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিতে আলোচনা সভা



ডেস্ক নিউজ:: মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিতে ‘ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এম হাবিবুর রহমান লাইব্রেরি হলে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক (অর্থ) মিহির কান্তি চৌধুরীর সঞ্চালনায় সভায় সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক শিব প্রসাদ সেন।

সভায় বক্তব্য রাখেন মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. নজরুল হক চৌধুরী ও আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. এম. রবিউল হোসেন।

অধ্যাপক ড. মো. নজরুল হক চৌধুরী বলেন, ‘১৭ এপ্রিল তথা মুজিবনগর দিবসটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তৎকালীন কুষ্টিয়া জেলার মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে গঠিত অস্থায়ী সরকার বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের একটি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছিল। বাংলাদেশের মাটিতে গঠিত সেই সরকার সহজে ও দ্রুততার সাথে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছিল।’

অধ্যাপক ড. এম. রবিউল হোসেন বলেন, ‘মুজিবনগর দিবসের মর্ম এবং ইতিহাস অধিকতর জানতে হবে। যখন নির্বাচন হয়েছিল, আমরা আনন্দে মেতেছিলাম। ৩ মার্চ গণপরিষদের অধিবেশন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ১ মার্চ তা বাতিল হয়ে যায়। ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে গ্রেফতার হন বঙ্গবন্ধু। ১০ এপ্রিল প্রাদেশিক ও কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে প্রথম অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। ১৭ এপ্রিল শপথ গ্রহণের মাধ্যমে কার্যক্রম শুরু করে মুজিবনগর সরকার।’

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক শিব প্রসাদ সেন বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধকে সঠিকভাবে পরিচালনা করার জন্য মুজিবনগরে গঠিত অস্থায়ী সরকার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল। পলাশীর প্রান্তরে বাংলার স্বাধীনতা অস্তমিত হয়েছিল। সেই পলাশীর প্রান্তর থেকে প্রায় একশ কিলোমিটার দূরে মেহেরপুরে আবার উদিত হয়েছিল বাংলার স্বাধীনতার সূর্য। মুজিবনগর সরকারের অধীনেই আমরা নয় মাসে স্বাধীনতা অর্জন করতে পেরেছিলাম।’

আলোচনা সভায় রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ফজলুর রব তানভীর, ব্যবসা ও অর্থনীতি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. তাহের বিল্লাল খলিফা, মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সুরেশ রঞ্জন বসাক, বিভিন্ন বিভাগের প্রধান, শিক্ষকবৃন্দ, সহকারি রেজিস্ট্রার খন্দকার মকসুদ আহমদ, জনসংযোগ কর্মকর্তা লোকমান আহমদ চৌধুরী এবং শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।