শুক্রবার, ২০ এপ্রিল ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর
১২ মাস ভিজিএফ’র চাল ও নগদ অর্থ বিতরণ করে প্রমাণ হয়েছে এ সরকার কৃষি বান্ধব  » «   লন্ডন সিলেট ফ্রেন্ডশীপ অর্গানাইজেশনের মুকিত কে সংবর্ধনা  » «   মৌলভীবাজারে বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করলো ছেলে  » «   নগরী থেকে রবিউল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি নিখোঁজ  » «   জ্ঞানের রাজ্যে ভ্রমণের জন্য তো কোনো পাসর্পোট ভিসা লাগেনা–প্রণবকান্তি দেব  » «   কৃষি জমি রক্ষার দাবীতে ফতেহপুরবাসীর প্রতিবাদ সভা  » «   ‘কোটা পদ্ধতি তুলে নেয়ার এখতিয়ার প্রধানমন্ত্রীর নেই’ –মির্জা ফখরুল  » «   ‘বঙ্গভূম’ অ্যালবামের মোড়ক উন্মোচন  » «   আসিফা ধর্ষণ ও হত্যা নিয়ে সরব হলেন আলিয়া ভাট  » «   নূপুর বেতার ক্লাবের লোক উৎসব শুক্রবার  » «  

শুধু একজনের জন্য হেরেছি মনে করি না: মুশফিক



স্পোর্টস ডেস্ক:: শিরোপার এতটা কাছে গিয়ে ফাইনালে হারের হতাশা নিয়ে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ দল। সোমবার দুপুরে শ্রীলঙ্কা থেকে দেশে ফেরেন সাকিব-মুশফিকরা।

খুব কাছে গিয়ে পরাজয় ভক্তদের যতটা না পোড়ায় তার থেকে বেশি পোড়ায় মাঠের ক্রিকেটারদের।

পাঁচবার ফাইনালে গিয়ে শিরোপা না ছোঁয়ার হতাশা তাই লুকাননি মুশফিক। তবে শিখতে চান এখান থেকেই। আর বিসিবি সভাপতি মনে করেন ফাইনালে হারলেও বীরের মত লড়েছে পুরো দল। বিমানবন্দরে গণমাধ্যমের সাথে কথা বলেন মুশফিক। সেখানেই জানান এই হারের বেদনা আজীবন মনে রাখবেন।

তবে এখান থেকেই বাংলাদেশের ক্রিকেট আরও এগিয়ে যাবে বলে মনে করেন সাবেক অধিনায়ক। মুশফিক বলেন, খারাপ লাগা স্বাভাবিক। জয়ের এতো কাছে এসে ট্রফি হাতছাড়া হওয়াটা মানসিক যন্ত্রণা দিচ্ছে। তবে আগামীতে এমন পরিস্থিতি এলে আমরা যেন মানসিক স্থিতিটা শক্ত রাখতে পারি, এটাই লক্ষ্য থাকবে। এবার ফাইনালে হারার দুঃখটা আজীবন মনে রাখবো, এখান থেকে যেন আমরা আরও সামনে এগিয়ে যেতে পারি সেই চেষ্টাই করবো।

হারের জন্য একক কাউকে দায়ী করতে চান না মুশফিক। বাংলাদেশের সবচেয়ে ধারবাহিক পারফর্মার ব্যাটসম্যান মুশফিক বলেন, এটা শুধু একজনের জন্য হয়েছে- এটা আমি মনে করি না।

বোলাররা মিলে কয়েকটা রান কম দিলেই হয়ে যেত কিংবা ব্যাটসম্যানরা যদি আরও ১০টা রান বেশি করতো তাহলেও সমস্যা হতো না। এটা টিম গেম, একজনের ব্যর্থতা মানে সবারই ব্যর্থতা। আমরা চেষ্টা করবো ভুলগুলো কাটিয়ে উঠতে। সৌম্যর এটাই প্রথম অভিজ্ঞতা। পরে আবার যখন সুযোগ আসবে, আশা করি তখন এরচেয়ে ভালো করবে।

বিসিবি সভাপতি মনে করেন বীরের মতো লড়াই করেছে টাইগাররা। বলেছেন, হার-জিত থাকবেই, এটা বড় কথা না। আমরা চেয়েছি যেন ভালো ক্রিকেট হয়। ছেলেরা মাঠে সেটাই দেখিয়েছে। তারা বীরের মতো খেলেছে। ক্রিকেটে এটাই নিয়তি। হার জিত যাই হোক থেমে থাকার অবকাশ নেই।