সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর ও নলকুপ দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ



সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:: প্রধান মন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় ঘর ও নলকুপ দেয়ার কথা বলে সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জে টাকা উত্তোলন কওে আত্মসাতের লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। বেশ কিছু দিন ধরে টাকা অত্মসাতের বিষয়ে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গুঞ্জন শুনা গেছে। সর্বশেষ সোমবার উপজেলার উত্তর ইউনিয়নের বাসিন্ধা কামিনীপুর গ্রামের জাকির হোসেন বাদী হয়ে একই ইউনিয়নের ৩ জনকে অভিযুক্ত করে জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, জামালগঞ্জ উপজেলার উত্তর ইউনিয়নের কামিনীপুর গ্রামের মৃত: হানিফ শাহ্ ফকিরের পুত্র গাউছাল আযম, ১ নং ওয়ার্ডের সদস্য মোজাফফর মিয়া ও রাজত আলীর পুত্র জাহাঙ্গীর আলম সংঙ্গবদ্ধ ভাবে প্রধান মন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় ঘর ও নলকুপ দেয়ার কথা বলে জালিয়াতি করে গ্রামের দরিদ্র মানেষের নিকট থেকে ৫’হাজার ও ১০’হাজার করে লাখ-লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন।

অভিযুক্তরা ঘর ও টিউবয়েল আনতে উপরে কিছু সালামি দেয়ার কথা বলে ৩-৪ মাস যাবৎ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। গ্রামের লোকজন বার বার নিষেধ বাধা করিলেও তারা টাকা উত্তোলন বন্ধ করেননি।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত গাউছাল আযম কে ফোন দিলে তিনি বলেন, অভিযোগেটি মিথ্যা, আমি কারো কাছ থেকে কোন টাকা নেইনি। অপর অভিযুক্ত মোজাফফর মিয়া বলেন, ঘর ও টিউবয়েল দের জন্য জাহাঙ্গিরের কাছে নামের তালিকা দিয়েছি। কিন্তু এখনো কারো নিকট থেকে টাকা নেইনি। ঘর ও নলকুপ আসলে নামধারী ব্যাক্তিরা টাকা দেবে। অভিযুক্ত জাহাঙ্গীর দেশের বাইরে (ভারত) থাকায় তার সাথে যোগাযোগের সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম আল ইমরান বলেন, অভিযোগ পেয়েছি, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) কে তদন্ত করে রির্পোট দিতে বলেছি। তদন্ত রির্পোটের উপর ভিত্তি করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। তদন্ত কর্মকর্তা সহকারী কমিশনার (ভুমি) মনিরুল হাসান বলেন, আমার কাছে এখনো অভিযোগটি আসেনি। আসলে তদন্ত সাক্ষে প্রযোজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।