মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ইস্পা হত্যার বিচারের দাবিতে সিলেটে মানববন্ধন



সুনামগঞ্জের ছাতক পৌর শহরের ইস্পা বেগম নামের এক নারীকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগে স্বামী আবুল মনসুর ওরফে লিটন এবং তাঁর ভাই আবদুস সহিদ ওরফে বাপনের বিচারের দাবিতে সিলেটে মানববন্ধন করেছে ইস্পার স্বজনসহ, সামাজিক সংগঠনের নেতাকর্মী, বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।
গতকাল সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টায় নগরীর চৌহাট্টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে বক্তারা ইস্পা হত্যার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানান।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ইস্পা আমাদের বোন। পারিবারিক কলহের জের ধরে গত বছরের ৬ মে তাকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। আমরা চাই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হোক ও আসামীদের সঠিক বিচার হোক। ইস্পাকে হত্যার সাথে যারা জড়িত পলাতক রয়েছে তাদেরকে যাতে দ্রুত আটক করে আইনের আওতায় আনা হয় আমরা সেই দাবিও জানাচ্ছি। আমরা চাইনা আর কোন বোন যাতে এভাবে নির্যাতিত হয়ে প্রাণ হারাক।
মানবন্ধনের বক্তারা জানান, ইস্পার বাড়ি সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলার ভীমখালি ইউনিয়নের বিছনা গ্রামে। ২০১৭ সালে দোয়ারাবাজার উপজেলার হিম্মতেরগাঁও গ্রামের আবুল মনসুরের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। আগুনে পুড়ে ইস্পার মৃত্যুর ঘটনার পর থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নেয়নি। পরে ইস্পার বড় ভাই রাসেল আহমদ বাদী হয়ে আবুল মনসুর ও আবদুস সহিদকে আসামি করে আদালতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর আদালতের নির্দেশে পুলিশ থানায় মামলা রেকর্ডভুক্ত করে। বর্তমানে পুলিশরে অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) মামলাটি তদন্ত করছে। এই মামলায় গত সোমবার আবুল মনসুর আদালতে হাজির হয়ে জামিন চাইলে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।
মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরশনের প্যানেল মেয়র ও ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, ২১ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মতিউর রহমান মতি, বাংলাদেশ মানবকল্যাণ ফাউন্ডেশনের সিলেট মহানগরের সহ-সভাপতি রুহুল আমিন, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের সিলেট শাখার সভাপতি তপন মিত্র, রাগীব-রাবেয়া ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক জাহাঙ্গীর আলম, হিউম্যান রাইটস সিলেট এর এডভোকেট খন্দকার সাইফুর রহমান রানা, দক্ষিণ ছাতক উন্নয়ন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক লিকসন মিয়া, যুগ্ম সচিব নুরুল ইসলাম পাখি, তাঁতীলীগ নেতা আলমগীর হোসেন আলমগীর প্রমুখ।
এছাড়াও মানববন্ধনে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন শুদ্ধ সোশ্যাল অর্গানাইজেশন, রক্তাঙ্গন, স্বপ্ন রক্তদান সমাজকল্যান ফাউন্ডেশন, বুষ্টার, ক্রিয়েটিভ সোশ্যাল অর্গানাইজেশন, ধ্রুবক ক্লাব, স্বচ্ছ সোশ্যাল অর্গানাইজেশন, সেইফটি সোশ্যাল অর্গানাইজেশন, ইচ্ছাপূরণ সামাজিক সংগঠন, স্বার্থহীন সমাজকল্যান সংস্থা, রোরাল টু আরবান, রক্তশ্রয়ী, অংকুর, ইউথ স্টাফ, বন্ধন ভলান্টিয়ার গ্রুপ প্রমুখ।