বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

গাছের মগডালে বিড়াল, উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিস



নিউজ ডেস্ক::  সকাল ৯টা। হাসপাতালের পুকুরপাড়ে জনাকয়েক লোকের জটলা। ঘাড় বাঁকা করে ওপরে তাকিয়ে আছে কেউ কেউ। কেউ বা মোবাইল ফোন দিয়ে ভিডিও করছে। এরই মধ্যে সদর এলাকাজুড়ে ঘটনা চাউর হয়ে গেছে যে গাছের মগডালে বিড়াল।

সকাল সাড়ে ৯টার মধ্যে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের গাড়ি হুইসেল বাজিয়ে গাছটির নিচে এসে হাজির। চিকন গাছটির ঠিক যেখানে বিড়ালটি অবস্থান করছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের ধারণা অনুযায়ী, মাটি থেকে তার উচ্চতা ১১০ বা ১২০ ফুট হবে। নানা কলাকৌশল প্রয়োগ করে প্রায় দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় বিড়ালটি তাঁরা উদ্ধার করেন।

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পুকুরপাড়ের একটি মেহগনি গাছে উঠে আর নামতে না পারা একটি বিড়াল উদ্ধারের ঘটনা এটা। যখন এ ঘটনা ঘটছিল তখন সেখানে পাঁচ-ছয় শ লোক জড়ো হয়ে গেছে।

কমিউনিটি ক্লিনিকের কর্মী মো. শাহজাহান বারী ভূঁইয়া সুমন বলেন, ‘গাছের আগায় বিড়াল দেখে মনে হচ্ছিল এটা নিচে নামতে না পেরে অসহায় হয়ে বসে আছে। পরে জানতে পারি গত শুক্রবার বিকেলে একটি কুকুর বিড়ালটিকে তাড়া করলে বিড়ালটি গাছে উঠে আশ্রয় নেয়। গত তিন দিন বিড়ালটি গাছে রয়েছে। তাই ফায়ার সার্ভিসকে ফোন করে বিষয়টি জানিয়েছি।’

ঘটনাটি দেখে জসিম মিয়া (৭৩) নামের স্থানীয় এক ব্যক্তি বলেন, ‘শুনেছি, বিড়াল গাছে উঠতে পারে। তবে জীবনে এই প্রথম দেখলাম, এত ওপরে বিড়াল উঠতে পারে। নিচে নামতে না পারা বিড়ালটিকে উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা মানবিক কাজ করেছেন।’

উপজেলা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের স্টেশন অফিসার মো. তুষার হোসেন বলেন, ‘গাছটি যেমন চিকন তেমনি অনেক লম্বা। গাছ ভেঙে পড়ার আশঙ্কা থাকলেও ঝুঁকি নিয়ে বিড়ালটি উদ্ধার করতে পেরেছি।’ এখন বিড়ালটির কী হবে—এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিড়ালটিকে স্থানীয় পশু হাসপাতালের চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ছেড়ে দেব।

পশু হাসপাতালের চিকিৎসক আব্দুর রহিম বলেন, গত তিন দিন না খেয়ে থাকার কারণে বিড়ালটি কিছুটা দুর্বল হয়ে পড়েছে। তা ছাড়া আর কোনো সমস্যা নেই। প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেওয়ার পর যদি কেউ বিড়ালটির দায়িত্ব নিতে চায় তবে তাকে দিয়ে দেব।’