মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মোহনা দ্বৈত ব্যাটমিন্টন টুর্নামেন্ট‘র ফাইনাল সম্পন্ন



খেলাধুলা ডেস্ক :: সিলেট নগরীর পাঠানটুলা ,দর্জিপাড়া, করেরপাড়া, গোয়াবাড়ী ও কুচারপাড়াস্থ মোহনা সমাজকল্যাণ সংস্থা উদ্যোগে ১ম মোহনা দ্বৈত ব্যাটমিন্টন টুর্নামেন্ট‘ র ফাইনাল খেলা ও পুরুস্কার বিতরণ গত রবিবার রাতে করেরপাড়াস্থ খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। মোহনা সমাজকল্যাণ সংস্থা সভাপতি মাসুম আহমদ‘র সভাপতিত্বে মাহনা সমাজকল্যাণ সংস্থা যুগ্ম আহবায়ক দেবজ্যোতি মজুন্দার রতন পরিচালনায় পরিচালনায়,

প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত বক্তব্য রাখেন,বিসিবি পরিচালক ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত বক্তব্য রাখেন, মোহনা সমাজকল্যাণ সংস্থা উপদেষ্ঠা ও এলাকার বিশিষ্ট মুরব্বী মো: ফজলুর রহমান, মাহনা সমাজকল্যাণ সংস্থা উপদেষ্টা মকবুল হোসেন খান, সুদীপ দেব, ,

মোহনা সমাজকল্যাণ সংস্থা উপদেষ্ঠা মাছুম আহমদ টিপু, মতিউর রহমান, অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত বক্তব্য রাখেন, তরুণ সমাজ সেবক ও ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদপ্রার্থী সাহেদ আহমদ,তরুণ সমাজসেবক বিশিষ্ট ক্রীড়াবিদ ও ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদপ্রার্থী মো: ফয়জুল হক, মহিলা কাউন্সিলর পদপ্রাথী রেশমা বেগম, মাহনা সমাজকল্যাণ সংস্থা উপদেষ্টা সদস্য আব্দুল মতিন, রিপন এষ চৌধুরী,

বৃহত্তর পাঠানটুলা ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও সংস্থা সদস্য সাহেদ আহমদ, মাহনা সমাজকল্যাণ সংস্থা উপদেষ্টা সদস্য নুরুল ইসলাম নুর, গোলাম কিবরিয়া খান, নিখিল দেব, সঞ্জয় দে, ণিপু দে, আলঙ্গীর আলম, গোলাম মোস্তাফা,আব্দুল হাকিম, সৈয়দ মো: আলমগীর আলম,শফলু পাঠকসহ সংস্থার সকল সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন। মোহনা দ্বৈত ব্যাটমিন্টন টুর্নামেন্ট‘উদ্ধোধনী অনুষ্টানে খেলা অংশ গ্রহন করেন,

সালেহ-মাহের, এহিয়া সুমন-সুম তালুকদার, আলাউর-ওয়াছির, রাসেল- মাহরিয়ার, সঞ্জিত- রিয়াজ, সুফিয়া- বায়েছ, সাইদ-জামিল ও রায়হান-তাহমিদ। দ্বৈত ব্যাটসিন্টন খেলা পরিচালনা করেন, সুমন ,বায়েছ, আহাদ, সাকিব, সোহাগ, মুরশেদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে ফাইনাল খেলায় বিজয়ীদের হাতে প্রধান অতিথিসহ পুরুস্কার তোলে দেওয়া হয়। প্রধান অতিথি বক্তব্য বলেন, ব্যাটমিন্ট খেলাধুলাসহ বিভিন্ন খেলা প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় যেন বেশী বেশী অংশগ্রহন প্রতিযোগিতা করা আহবান করেন। সমাজকে মাদকমুক্ত করতে যুব সমাজের আয়োজনে খেলাধুলার উদ্যোগ প্রশংসনীয় তিনি মনে করেন।