মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারী ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর
নিসচা মহানগরের সভাপতি ইকবাল’র জন্মদিন পালন  » «   ফলিক খানের অর্থায়নে প্রধানমন্ত্রীর মিটানো নাম নতুন করে অঙ্কন  » «   গোলাপগঞ্জে যুবদলের ৩৯তম প্রতিষ্টা বার্ষিকী পালন  » «   বিএনপি নেতা এম কে আনোয়ারের মৃত্যুতে সিলেট সরকারি কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের শোক  » «   জগন্নাথপুরে টাকা দেয়া হলেও চাল দেয়া হয়নি  » «   জগন্নাথপুরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ব্যবসায়ী মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে  » «   ২৬ নং ওয়ার্ড তালামীযের অভিষেক ও প্রশিক্ষণ কর্মশালা সম্পন্ন  » «   সোশ্যাল মিডিয়ায় দুই নায়িকার মেকআপ রুমের ছবি ফাঁস!  » «   কমলগঞ্জে জাতীয় কন্যা শিশু দিবস পালিত  » «   জগন্নাথপুরে নুর আলীর খুনিদের ফাসির দাবিতে সোচ্চার এলাকাবাসী  » «  

উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে যুদ্ধের আশঙ্কা চীনা জেনারেলের



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: চীনের একজন সাবেক জেনারেল হুঁশিয়ারি প্রকাশ করে বলেছেন, যে কোন সময় কোরিয়ান উপদ্বীপ অঞ্চলে উত্তর কোরিয়া এবং দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে যুদ্ধ বেধে যেতে পারে। এ খবর দিয়েছে ইয়াহু নিউজ। নানজিং মিলিটারি এরিয়ার সাবেক ডেপুটি কমান্ডার সাবেক লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াং হক্সগুয়াং।

তিনিই শনিবার গ্লোবাল টাইমস ফোরামের এক আলোচনায় ওই সতর্কবার্তা দেন। বলেন, চীনের উচিৎ দেশটির উত্তর-পূর্ব সীমান্তে সৈন্য জড়ো করা। কারণ, এখন থেকে আগামী বছরের মার্চ মাসের মধ্যে যে কোন সময়ে উত্তর এবং দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে যুদ্ধ লেগে যেতে পারে।
তাই চীনের উচিৎ কোরিয়ান উপদ্বীপে সম্ভাব্য যুদ্ধের জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকা। আর সেজন্যেই উত্তর-পূর্ব সীমান্তে সৈন্য জড়ো রাখা দরকার। চীনের এ ধরণের প্রস্তুতি যুদ্ধে অংশ নেয়ার জন্য নয় বরং প্রতিরক্ষা নিশ্চিত করণের জন্যে প্রয়োজন বলেও উল্লেখ করেন তিনি। আরেকজন সামরিক বিশেষজ্ঞ এবং টিভি ধারাভাষ্যকার সইং ঝংপিং বলেছেন, চীনের উচিৎ ক্ষেপণাস্ত্ররোধী প্রযুক্তি স্থাপন করা এবং সম্ভাব্য যুদ্ধে আক্রান্ত শরণার্থীদের মানবিক সহায়তার বিষয়ে প্রস্তুতি নেয়া।

তিনি সবাইকে সতর্ক করে বলেন, যুদ্ধে বেধে গেলে ভয়াবহ পারমাণবিক সঙ্কট তৈরি হবে। আণবিক বোমা ব্যবহারের ফলে সৃষ্টি হবে ভূমিক¤প। আরো বলেন, যদি যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র কোরিয়ান উপদ্বীপে চীনের স্বার্থে আঘাত করে- এমন কোন সিদ্ধান্ত নেয় তবে, প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত কারণে চীন’কেও যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে হতে পারে। প্রসঙ্গত, উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন এবং দক্ষিণ কোরিয়ার সমর্থক যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রা¤েপর মধ্যকার চলমান বাদানুবাদের প্রেক্ষিতে এমন আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।