বৃহস্পতিবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর
১২ মাস ভিজিএফ’র চাল ও নগদ অর্থ বিতরণ করে প্রমাণ হয়েছে এ সরকার কৃষি বান্ধব  » «   লন্ডন সিলেট ফ্রেন্ডশীপ অর্গানাইজেশনের মুকিত কে সংবর্ধনা  » «   মৌলভীবাজারে বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করলো ছেলে  » «   নগরী থেকে রবিউল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি নিখোঁজ  » «   জ্ঞানের রাজ্যে ভ্রমণের জন্য তো কোনো পাসর্পোট ভিসা লাগেনা–প্রণবকান্তি দেব  » «   কৃষি জমি রক্ষার দাবীতে ফতেহপুরবাসীর প্রতিবাদ সভা  » «   ‘কোটা পদ্ধতি তুলে নেয়ার এখতিয়ার প্রধানমন্ত্রীর নেই’ –মির্জা ফখরুল  » «   ‘বঙ্গভূম’ অ্যালবামের মোড়ক উন্মোচন  » «   আসিফা ধর্ষণ ও হত্যা নিয়ে সরব হলেন আলিয়া ভাট  » «   নূপুর বেতার ক্লাবের লোক উৎসব শুক্রবার  » «  

আরো ৪০ রোহিঙ্গা গ্রাম ভস্মীভূত: এইচআরডব্লিউ



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ধ্বংসযজ্ঞ চালানো হয়েছে আরো ৪০ টি রোহিঙ্গা গ্রামে। মিয়ানমারের রাখাইনে অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে এ গ্রামগুলো পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। উপগ্রহ চিত্র বিশ্লেষণে এ তথ্য উঠে এসেছে বলে জানিয়েছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ। এতে করে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সহিংসতায় ভস্মীভূত রোহিঙ্গা গ্রামের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ালো ৩৫৪ তে।

২৫শে আগস্টের পর থেকে এসব গ্রামগুলো আংশিক বা সম্পূর্ণ ধ্বংস করা হয়েছে। এ সময়ে লাখ লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে।

আজ হিউম্যান রাইটসের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা বলা হয়। এতে মংদু শহরের ওপর থেকে নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসে নেয়া উপগ্রহ চিত্র প্রকাশ করা হয়। হিউম্যান রাইটস ওয়াচের প্রতিবেদনে বলা হয়, উপগ্রহ ছবিগুলো থেকে দেখা যাচ্ছে, মিয়ানমার ও বাংলাদেশ যে সপ্তাহে রোহিঙ্গাদের ফেরাতে সমঝোতা স্বাক্ষর করেছিল, তখনও বাড়িঘর পোড়ানো হয়েছে। দু’দেশের মধ্যে ওই সমঝোতা স্বাক্ষরিত হয় ২৩শে নভেম্বর। আর ২৫শে নভেম্বর উপগ্রহ তথ্য-উপাত্ত রাখাইন রাজ্যের মংদু এলাকার মিও মি চ্যাং গ্রামে বাড়িঘরে আগুন শনাক্ত করে। ২৫শে নভেম্বর থেকে ২ রা ডিসেম্বরের মধ্যে চারটি গ্রাম ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়।