সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ পৌষ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর
ফলিক খানের অর্থায়নে প্রধানমন্ত্রীর মিটানো নাম নতুন করে অঙ্কন  » «   গোলাপগঞ্জে যুবদলের ৩৯তম প্রতিষ্টা বার্ষিকী পালন  » «   বিএনপি নেতা এম কে আনোয়ারের মৃত্যুতে সিলেট সরকারি কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের শোক  » «   জগন্নাথপুরে টাকা দেয়া হলেও চাল দেয়া হয়নি  » «   জগন্নাথপুরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ব্যবসায়ী মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে  » «   ২৬ নং ওয়ার্ড তালামীযের অভিষেক ও প্রশিক্ষণ কর্মশালা সম্পন্ন  » «   সোশ্যাল মিডিয়ায় দুই নায়িকার মেকআপ রুমের ছবি ফাঁস!  » «   কমলগঞ্জে জাতীয় কন্যা শিশু দিবস পালিত  » «   জগন্নাথপুরে নুর আলীর খুনিদের ফাসির দাবিতে সোচ্চার এলাকাবাসী  » «   জগন্নাথপুরে সাংবাদিক কলির দাদীর মৃত্যুতে প্রেসক্লাবের শোক প্রকাশ  » «  

জগন্নাথপুরে প্রভাষকের বিরুদ্ধে তথ্য গোপনের অভিযোগ



জগন্নাথপুর প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক আবদুর রউফের বিরুদ্ধে তথ্য গোপনের অভিযোগ নিয়ে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।জানাগেছে, স্থানীয় হবিবপুর শাহপুর গ্রামের বাসিন্দা বিএনপি নেতা আবদুর রউফ বিগত ২০০৬ সালে জগন্নাথপুর ডিগ্রি কলেজে রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগে প্রভাষক পদে নিয়োগ পান। তখন কলেজটি ডিগ্রিতে উন্নীত হয়নি। এর কয়েক দিন পর তথ্য গোপন করে তিনি উপজেলার সৈয়দপুর সৈয়দীয়া শামছিয়া আলিম মাদ্রাসায় প্রভাষক পদে চাকুরি করেন।

এমতাবস্থায় মাদ্রাসায় যোগদানের ফলে তাঁর কলেজের প্রভাষক পদটি শূন্য হওয়ার কথা। তবে এ মাদ্রাসায় তিনি প্রায় দুই বছর চাকুরি করে ২০০৮ সালে আবার জগন্নাথপুর ডিগ্রি কলেজে ফিরে আসেন। বর্তমানেও তিনি জগন্নাথপুর ডিগ্রি কলেজে প্রভাষকের দায়িত্ব পালন করছেন।

এ ব্যাপারে প্রভাষক আবদুর রউফের চাকুরি কালীন সময়ের সকল তথ্য জানতে হবিবপুর আশিঘর গ্রামের বাসিন্দা শিক্ষানুরাগী আবদুর নুর গত ৫ নভেম্বর সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কাছে তথ্য অধিকার আইনে লিখিত আবেদন করেন। এ ঘটনাটি জানাজানি হলে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এ ব্যাপারে আবেদনকারী আবদুর নুর জানান, একই সাথে দুইটি এমপিও ভূক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করার বিধান নেই। তথ্য গোপন করে একই সাথে দুইটি প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করা আইন বহির্ভূত।

এ বিষয়ে তথ্য জানতে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে জগন্নাথপুর ডিগ্রি কলেজ ও সৈয়দপুর সৈয়দীয়া শামছিয়া আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষকের কাছে পত্র প্রেরণ করা হলেও এ পর্যন্ত কোন তথ্য জানানো হয়নি। তবে আবদুর রউফ নিজেকে রক্ষা করতে দৌড়ঝাপ শুরু করেছেন। এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাহিদুল ইসলাম জানান, এ বিষয়ে জেলা প্রশাসকের চিঠি পেয়েছি। তবে কলেজ কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনাক্রমে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আবদুর রউফের সাথে বারবার চেষ্টা করা হলেও মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।