সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

উন্নয়নের বরপুত্র কাউন্সিলর দিলওয়ার হোসাইন সজিব



যারা ধূলিকণা গায়ে মেখে চলেন তারাই জনপ্রতিনিধিত্ব করেন–

নগরীর কাজীটুলার এফ/৮৬ এর বাসিন্দা মৃত তোফাজ্জল হোসাইন এর ২য় পুত্র দিলওয়ার হোসাইন সজীব। ছাত্রজীবন থেকে সামাজিক সংগঠন ও খেলাধুলায়য় জড়িত ছিলেন। স্কুল জীবন কাটে সিলেটের সুনামধন্য দি এইডেড হাই স্কুলে। এরপর মদন মোহন কলেজ থেকে ইন্টার পাশ করেন। সেই সাথে ছিলেন একজন ভালো ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়। সিলেটের হয়ে জাতীয় পর্যায়ে খেলেছেন অনেক টুর্নামেন্ট। তাছাড়া বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক সংগঠনের বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেন। তার সমাজ সেবামূলক কর্মকান্ডের জন্য অল্প বয়স থেকেই সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। তারপর দীর্ঘ সময় পার হয়ে যায়। চালিয়ে যান উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড। সময়ের প্রয়োজনে এবং সাধারণ মানুষের আরও পাশে থেকে কাজ করতে ২০১৩ সালের ১৫ জুন অনুষ্ঠিত সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে বিপুল ভোটে বিজয়ী হন।
১৭ নম্বর ওয়ার্ডের ধূলিকণা গায়ে মেখে অবিরাম ছুটে চলেন অত্র ওয়ার্ডের মধ্যমণি কাউন্সিলর মো: দিলওয়ার হোসাইন সজীব।
দিন শুরু হয় এইটা ভেবে যে আমার ওয়ার্ডের কোথায় সমস্যা, কার কি প্রয়োজন আরও অনেক।
বিগত সাড়ে ৪ বছর ওয়ার্ডের অভিভাবক হিসেবে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। স্বপ্ন একটাই সিলেটের ২৭ টি ওয়ার্ডের মধ্যে নিজের ওয়ার্ডটা যেনো মডেল ওয়ার্ড হিসেবে পরিচিতি পায়।
ছাত্র সমাজ তথা তরুণ থেকে বৃদ্ধ সর্বস্তরের জনতার নয়নমণি সজীব প্রায় ৪০-৪৫ টি গলির রাস্তাঘাট সংস্কারকাজ করেছেন। যার মধ্যে অনেক গলির রাস্তাই ছিল না এক সময়।
মানবাত্মা জয় করে সমাধান করেছেন বৃহৎ বৃহৎ সমস্যা। যার স্বপ্ন ছিল ঐক্যবদ্ধ ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের তাতে তিনি আজ অনেকটাই সফল।
ওয়ার্ডের মিরবক্সটুলা ও মানিকপীর রোডে ২ টি পানির পাম্প হল সাধারণ মেহনতি মানুষের পরমবন্ধু সজীবের বড় অর্জন যা আজ পর্যন্ত কেউ করতে পারে নি।
তিনি জয় করেছেন অন্ধকারকে। আজ ওয়ার্ডের প্রতিটি গলিতে সন্ধ্যা হলে লাইট জলে উঠে। আলোকিত ওয়ার্ডের রূপকার সজীব হলেন স্পষ্টভাষী। কথার সাথে কাজের অমিল নেই উনার মাঝে। অনেক ড্রেনেজের কাজ তার হাতেই সম্পন্ন হয়েছে।
উন্নয়নের বরপুত্র দিলওয়ার হোসাইন সজীবের অক্লান্ত পরিশ্রামের ফলে ওয়ার্ডবাসী আজ পরিচ্ছন্ন রাস্তাঘাট দেখতে পায়। কিছুদিনের মধ্যে শুরু হবে উচাসড়ক রাস্তার পাশে সৌন্দর্যবর্ধন এর কাজ। শুরু হবে লোহারপাড়া থেকে আম্বরখানা ড্রেনেজের কাজ। অলরাউন্ডার সজীবের উদ্যোগে প্রতিবছর ১৬ ডিসেম্বর উপলক্ষে ওয়ার্ডের প্রতিটি মাঠে অনুষ্ঠিত হয় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। ওয়ার্ডের ছাত্রসমাজের খেলাধুলার জন্য প্রতিষ্ঠা করেছেন বিভিন্ন ক্লাব সংগঠন। সকলের জন্য উন্মুক্ত রেখেছেন কাজীটুলা ওয়েলফেয়ার সোসাইটির হল রুম। বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলা এখান থেকে পরিচালিত হয়ে থাকে। উনার বিশ্বাস ছাত্রসমাজ ও তরুণসমাজ খেলাধুলায় থাকলে খারাপ দিকে যেতে পারে না।
এই সাড়ে ৪ বছর পুরো ১৭নম্বর ওয়ার্ডের উন্নয়নের বিবরণী এইখানে লিখতে গেলে শেষ হবে না। বর্তমানে সিলেটের মডেল ওয়ার্ড হিসেবে ১৭ নম্বর ওয়ার্ড পরিচিতি লাভ করেছে। আগামীতে আরো এগিয়ে যাবে উন্নয়নের বরপুত্র দিলওয়ার হোসাইন সজীবের হাত ধরে এই কামনা করি।
লেখক: শাহিদুল ইসলাম সৌমিক