সোমবার, ১৮ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর
টাঙ্গাইলে বাসচাপায় প্রাণ গেল মোটরসাইকেলের ৩ আরোহীর  » «   সোমবার থেকে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচির ঘোষণা শিক্ষকদের  » «   বাবার জন্যে ভালোবাসা: এড. শাকী শাহ ফরিদী  » «   বিশ্ব বাবা দিবস আজ  » «   সংবাদ সম্মেলনে ফখরুল: যেকোনো সময় প্যারালাইজড হয়ে যেতে পারেন খালেদা জিয়া  » «   সিলেট নগরীর শিবগঞ্জে ছুরিকাঘাতে স্কুলছাত্র নিহত ১  » «   দুর্দান্ত আইসল্যান্ডে শুরুতেই হোঁচট আর্জেন্টিনার!  » «   জগন্নাথপুরে সংঘর্ষে নারী ও শিশু সহ আহত ১১  » «   যুক্তরাষ্ট্রে ধর্মীয় উৎসব আমেজে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত, প্রেসিডেন্ট দম্পতির ঈদ শুভেচ্ছা  » «   চুনারুঘাটে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, নতুন নতুন এলাকাপ্লাবিত  » «  

জগন্নাথপুরে টাকা দেয়া হলেও চাল দেয়া হয়নি



জগন্নাথপুর প্রতিনিধি:: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর দিলোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে সরকারি ভিজিএফ এর চাল বিতরণে অনিয়ম ও টাকা আত্মসাতের অভিযোগ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর আদায় করা টাকা রোগীকে দেয়া হলেও কম দেয়া চাল দেয়া হয়নি।
জানাগেছে, সরকার প্রতি মাসে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর লোকজনের মধ্যে জনপ্রতি ৩০ কেজি চাল ও নগদ ৫শ টাকা করে প্রদান করছে। স্থানীয় জন প্রতিনিধিদের মাধ্যমে তালিকা করে এসব চাল ও টাকা বিতরণ করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১০ অক্টোবর জগন্নাথপুর পৌরসভার কাউন্সিলর দিলোয়ার হোসেন তাঁর ওয়ার্ডের তালিকাভূক্ত জনগণের মধ্যে সরকারি ভিজিএফ এর ৩০ কেজি চাল ও নগদ ৫শ টাকা করে বিতরণ করেন।
এতে অভিযোগ উঠে পৌর কাউন্সিলর দিলোয়ার হোসেন সরকারি চাল ও টাকা বিতরণের আগের দিন ৯ অক্টোবর রাতে তালিকাভূক্ত ২২২ জনের কাছ জনপ্রতি অগ্রিম ১শ টাকা করে নিয়ে তাদেরকে টোকেন দেন। এছাড়া ৩০ কেজির পরিবর্তে ২৬ কেজি করে চাল বিতরণের অভিযোগ করা হয়।
এ ঘটনায় গত ১১ অক্টোবর ভূক্তভোগী জগন্নাথপুর পৌর শহরের হবিবপুর আশিঘর গ্রামের সিরাজ মিয়া সহ ৬০ জন স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ সরকারের অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান বরাবরে প্রদান করা হয়। যার অনুলিপি সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক, জগন্নাথপুর উপজেলা চেয়ারম্যান, জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়রকে প্রদান করা হয়।
এ অভিযোগের ভিত্তিতে বিভিন্ন গনমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হলে গত শনিবার অভিযুক্ত পৌর কাউন্সিল দিলোয়ার হোসেন যে রোগীর নামে টাকা তুলে ছিলেন, সেই গাজী নামের রোগীকে টাকা প্রদান করেন। যদিও বিত্তশালীদের নামে এ টাকা দেয়া হয়।
এ ব্যাপারে অভিযোগকারীরা জানান, সরকার অসহায় লোকদের টাকা ও চাল দিয়েছে। এখান থেকে টাকা তুলে অন্যকে দেয়া মানে, ভিক্ষুকের টাকা ভিখারিকে দান করা। এছাড়া রোগীকে টাকা দিলেও কম দেয়া চাল জনগণকে দেয়া হয়নি।