বৃহস্পতিবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
এই মুহুর্তের খবর
১২ মাস ভিজিএফ’র চাল ও নগদ অর্থ বিতরণ করে প্রমাণ হয়েছে এ সরকার কৃষি বান্ধব  » «   লন্ডন সিলেট ফ্রেন্ডশীপ অর্গানাইজেশনের মুকিত কে সংবর্ধনা  » «   মৌলভীবাজারে বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করলো ছেলে  » «   নগরী থেকে রবিউল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি নিখোঁজ  » «   জ্ঞানের রাজ্যে ভ্রমণের জন্য তো কোনো পাসর্পোট ভিসা লাগেনা–প্রণবকান্তি দেব  » «   কৃষি জমি রক্ষার দাবীতে ফতেহপুরবাসীর প্রতিবাদ সভা  » «   ‘কোটা পদ্ধতি তুলে নেয়ার এখতিয়ার প্রধানমন্ত্রীর নেই’ –মির্জা ফখরুল  » «   ‘বঙ্গভূম’ অ্যালবামের মোড়ক উন্মোচন  » «   আসিফা ধর্ষণ ও হত্যা নিয়ে সরব হলেন আলিয়া ভাট  » «   নূপুর বেতার ক্লাবের লোক উৎসব শুক্রবার  » «  

বাংলাদেশী তারকাদের যতো বিবাহ বিচ্ছেদ!



বিনোদন ডেস্ক:: বেশিরভাগক্ষেত্রেই দেখা যায়, ভালোবেসেই ঘর বাঁধেন তারকা দম্পতিরা। কিন্তু কোনো এক অজানা কারণে বিয়ের পর বিপরীতমুখী অবস্থানে চলে যান তারা।

প্রিয় তারকাদের প্রেম-বিয়ে কিংবা আনন্দের খবর নিয়ে যেমন ভক্তদের আগ্রহ আছে তেমনি তাদের বিচ্ছেদের খবরও জানতে চান অনেকে। তাদের জন্য দেশি শোবিজে বিভিন্ন প্রজন্মের তারকাদের বিচ্ছেদের কাহিনী নিয়ে আজকের এই বিশেষ আয়োজন-

আলমগীর-রুনা লায়লা: নায়ক আলমগীর ও গীতিকার খোশনুরের ডিভোর্স হয় বরেণ্য শিল্পী রুনা লায়লার সঙ্গে আলমগীরের প্রেমের কারণে। একই কারণে সংসার ভেঙেছিল সংগীত পরিচালক আলাউদ্দিন আলী ও শিল্পী সালমা আলীরও।

হুমায়ুন ফরিদী-সুবর্ণা মুস্তাফা: নাট্যমঞ্চে একসঙ্গে অভিনয় করতে গিয়ে পরিচয় অভিনেতা হুমায়ুন ফরিদী ও সুবর্না মুস্তাফার। সেখান থেকেই তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক হয়। ফরিদী তার প্রথম স্ত্রী মিনুর সঙ্গে সম্পর্কচ্ছেদ করে ১৯৮৪ সালে অভিনেত্রী সুর্বনা মুস্তফাকে বিয়ে করেন। এই দম্পতি দীর্ঘ ২৪ বছর একসঙ্গে সংসার করেন। ২০০৮ সালে হুট করেই সুবর্ণা ডিভোর্স দেন হুমায়ুন ফরিদীকে। তাদের ঘরে কোনো সন্তান নেই। বিচ্ছেদের পর হুমায়ূন ফরিদী আর সংসারের পথ না মাড়ালেও নাট্য পরিচালক বদরুল আনাম সৌদকে বিয়ে করেন সুবর্ণা। নিজের চাইতে ১৪ বছরের ছোট সৌদের সাথেও সুবর্ণার বিচ্ছেদ হয়েছে বলে গুঞ্জন শোনা যায় আজকাল।

ইলিয়াস কাঞ্চন-দিতি: বাংলা চলচ্চিত্রের অসম্ভব জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন ও জনপ্রিয় নায়িকা দিতি ভালোবসে বিয়ে করেছিলেন একে অপরকে। সন্তানদের কথা চিন্তা করেই নাকি তারা একে অপরের হয়েছিলেন। কিন্তু বেশি দিন টিকেনি এ সংসার। যে সন্তানদের কথা চিন্তা করে তারা এক হয়েছিলেন সেই সন্তানরা একে অপরকে এক পরিবারের ভাবতে পারেননি। পিতা মাতারা আর কি করবেন!

পার্থ বড়ুয়া-শ্রাবন্তী: ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন সোলসখ্যাত ব্যান্ড তারকা পার্থ বড়ুয়া এবং অভিনেত্রী শ্রাবন্তী। খুব বেশিদিন সেই প্রেম স্থায়ী হয়নি তাদের।

জেনি-অমিতাভ রেজা: বিজ্ঞাপন নির্মাতা অমিতাভ রেজাকে বাবা-মায়ের অমতে ভালোবেসে বিয়ে করেন অভিনেত্রী জেনি। দীর্ঘ প্রেমের বিয়ে হলেও তাদের সংসার বেশিদিন টেকেনি।

তাজিন-এজাজ মুন্না: অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ ছোট পর্দার পরিচালক এজাজ মুন্নাকে ভালোবেসে বিয়ে করেন। তাদের সংসারও টেকেনি বেশিদিন। এজাজ মুন্না বিরুদ্ধে তাজিন মাদকাসক্তি ও পরনারী আসক্তির অভিযোগ তোলায় তাদের সংসারে ফাটল ধরে। তাজিনের সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটিয়ে মুন্না লাক্স তারকা ও অভিনেত্রী মমকে বিয়ে করেন। আর তাজিন বিয়ে করেন এক মিউজিশায়নকে।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তাজিন দ্বিতীয় সংসারে ভালো থাকলেও এজাজ মুন্নার সংসার ভাঙনের গুঞ্জন আজকাল সর্বত্রই। এর কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে চিত্র নির্মাতা শিহাব শাহীনের সাথে নাকি পরকীয়ায় মজেছেন মুন্নার দ্বিতীয় স্ত্রী লাক্স তারকা মম।

হৃদয়-সুজানা: হৃদয় খান প্রায় চার বছর ধরে প্রেম করে বিয়ে করেন সাত বছরের বড় সুজানাকে। পত্র-পত্রিকা আর টিভির সামনেও স্বগর্বে নিজের প্রেমের কথা, ভালোবাসার কথা বলেছেন হৃদয় খান। কিন্তু হৃদয় খানের অনেক সাধনার বিয়ে বছর ঘুরার আগেই ভাঙনের মুখে পড়েছে। কারণ, পারস্পরিক সমঝোতা না হওয়া।