শনিবার   ২০ জুলাই ২০১৯   শ্রাবণ ৪ ১৪২৬   ১৭ জ্বিলকদ ১৪৪০

২৮৬২

সিলেটে চলতি মাসেই আসছে ছাত্রলীগের কমিটি

আলোচনায় ১০ নেতা 

প্রকাশিত: ১০ জুলাই ২০১৯ ২০ ০৮ ২৭  

এমদাদুল হক মান্না:: দীর্ঘদিন থেকে নেতৃত্ব সংকটের অবসান কাটিয়ে কমিটির মুখ দেখতে যাচ্ছে সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগ। চলতি মাসেই ঘোষণা হতে পারে নতুন কমিটি। তবে এ মাসে কমিটি না হলে শোকের মাস আগস্টের পরে সেপ্টেম্বরে হবে। ইতোমধ্যে বেশ কয়েক ধাপে সম্ভাব্য প্রার্থীদের তালিকা নিয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় উপ-অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মহসিন খন্দকার শুভ প্রতিদিন-কে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 
এদিকে প্রত্যেকবার সিলেটে সিন্ডিকেট ভিত্তিতে ছাত্রলীগের কমিটি হলেও এবার তাঁর ব্যতিক্রম হতে পারে। ত্যাগী ও দক্ষতার ভিত্তিতে কমিটি গঠন করা হবে বলে কেন্দ্রীয় সূত্রে জানা গেছে। এজন্য দফায় দফায় সম্ভাব্য প্রার্থীদের বায়োডাটা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। ফলে কমিটি গঠনে বিলম্ব হচ্ছে। সব ধরণের বিতর্ক এড়াতে এবার একটু বেশি সময় নিয়ে কমিটি গঠনের কাজ করছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। 

তবে দক্ষতার ভিত্তিতে কমিটি প্রদানে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ অনঢ় থাকলেও শেষ পর্যন্ত বিভিন্ন গ্রুপের মুখে কুলুফ আটতে সব গ্রুপের সমন্বয়ে কমিটি হবে এমনটা জানিয়েছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। যার জন্য জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে সিলেট আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতাদের অনুসারীদের নাম রয়েছে বলে সুর ওঠেছে। এমনকি কেন্দ্রীয় গুটি কয়েক নেতার সিলেটে গোপন সফরে ওই বলয়ের সম্পৃক্ততা রয়েছে। ফলে প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতাদের গ্রুপকে প্রাধান্য দেওয়া হবে বলে মনে করছেন ত্যাগী ছাত্রলীগ কর্মীরা। 

মহানগর ছাত্রলীগ : জানা গেছে, সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের কমিটিতে শীর্ষ পদে মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নেতা বিধান কুমার সাহার নিয়ন্ত্রণাধীন কাশ্মীর গ্রুপের কয়েকজন নেতার নাম রয়েছে। এর মধ্যে সভাপতি পদে আলোচনায় রয়েছেন মদন মহন কলেজ ছাত্রলীগ নেতা সাদিক রহমান। তাঁর সাথে রয়েছেন একই কলেজের নাইম আহমদ, জুবায়ের আহমদ। আলোচনায় থাকা এই তিনজনের উপর এ পর্যন্ত একটিও রাজনৈতিক মামলা না থাকায় ক্যম্পাসে ক্লিন ইমেজের ছাত্র নেতা হিসেবে তাদের পরিচিতি রয়েছে। এরই জন্য কমিটিতে শীর্ষ পদে আসছেন বলে সুর ওঠেছে। 

এছাড়া সাংগঠনিক সম্পাদক পদে সুর ওঠেছে কাস্মীর গ্রুপ নিয়ন্ত্রাধীণ জেলরোড শাখা ছাত্রলীগ নেতা ইমতিয়াজ মির্জার নাম। 
সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক স¤পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেলের নিয়ন্ত্রিত শহীদ নুর হোসেন ব্লক এর থেকে সাবেক ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ও লিডিং ইউনিভারসিটির ছাত্র ইমদাদুল হক জাহেদ  ভালো অবস্থানে রয়েছেন। এছাড়া একই গ্রুপের নেতা কিশোয়ার জাহান সৌরভও আলোচনায় রয়েছেন। 

মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ স¤পাদক আসাদ উদ্দিন অনুসারীদের মধ্য সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ময়জুল ইসলাম রাহাতের নামও রয়েছে। 

এদিকে মহানগর আওয়ামী লীগ এর সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান অনুসারী থেকে বড় চমক আসছে  বলে জানা গেছে। এবারের সাবেক মেয়র কামরানের বলয় থেকে দেলোয়ার হোসেন দিলাল এবং আলী হোসেনের না রয়েছে শীর্ষ পদগুলোর তালিকায়।  

জেলা ছাত্রলীগ : অপরদিকে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ স¤পাদক পদে শক্ত অবস্থানে রয়েছেন মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির দুই শিক্ষার্থী। তাদের মধ্যে সভাপতি পদে রয়েছেন যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ স¤পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীর অনুসারী একমাত্র প্রার্থী মেট্রোপলিটন ইউনিভাসির্টির বিবিএ’র ছাত্র মুহিবুর রহমান। তিনি সিলেট জেলা ছাত্রলীগের গত কমিটিতে সাংগঠনিক স¤পাদক পদে সঠিক দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া আসন্ন কমিটিতে সভাপতি পদে আসছেন বলে অনেক দিন থেকেই সুর রয়েছে। বিগত কমিটি শীর্ষ পদে থাকা অবস্থায় তার বিরুদ্ধেও তেমন একটা অভিযোগ পাওয়া যায়নি। ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীরা জানান, সিলেটে ছাত্র রাজনীতিতে মুহিবুর রহমানের ভালো অবস্থান রয়েছে। ক্লিন ইমেজের সাথে বিগত কমিটিতে দায়িত্ব পালন করে সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছেন।  

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ এর যুগ্ম সাধারণ স¤পাদক নাসির উদ্দিন খাঁন তেলিহাওর গ্রুপ থেকে ভালো অবস্থানে রয়েছে একমাত্র প্রার্থী মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির ক¤িপউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র জাওয়াদ ইবনে জাাহিদ খান। এবারের কমিটিতে তেলিহাওর গ্রুপ থেকে একক প্রার্থী হিসাবে তার নাম রয়েছে। তিনি বিগত সিরেট জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারন স¤পাদক পদে দায়িত্ব পালন করেন। তিনিও অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে গেছেন বলে জানা গেছে। 

এদিকে মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক স¤পাদক ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদের বলয় থেকে শক্ত অবস্থানে রয়েছে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি অনিরুদ্ধ মজুমদার পলাশ এবং একই বলয়ের জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি পংকজ পুরকায়স্থর অনুসারী আতিকুর রহমান। জেলা কমিটিতে তারাও গুরুত্বপূর্ণ পদ পাচ্ছেন বলে জানা গেছে। 

এছাড়া জেলা আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা অ্যাডভোকেট রনজিত সরকারের বলয় থেকে রয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য নাজমুল আহমদ। তিনি বর্তমানে এমসি কলেজ ছাত্রলীগ তার নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এছাড়া একই গ্রুপের সাবেক জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি হোসাইন আহমদের নামও রয়েছে। 

তাছাড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমানের বলয় থেকে রয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক ইশতিয়াক চৌধুরী। তিনি ১/১১ শফিকুর রহমানের বটেশ্বর এলাকার বাসা থেকে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছিলেন।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব খান  জানান, আমরা ইতোমধ্য সিলেট ঘুরে গেছি বিভিন্ন গ্র“প উপ গ্র“পে আমরা দেখেছি। শীগ্রই কমিটি ঘোষণা করা হবে। নতুন কমিটি ঘোষণা করা হলে। 
এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক খুব গুরুত্ব সহকারে বিষয়টা দেখছেন। তিনি আরো জানান, সামনে আগস্ট মাস তাই আমরা সাংগঠনিক নিয়ম অনুযায়ী আমরা চলতি মাসেই কমিটি করব। যার জন্য আমরা দলীয় অনেক কার্যক্রম এবং সফর শেষ করেছি। 

Dream Sylhet
ড্রীম সিলেট
ড্রীম সিলেট
এই বিভাগের আরো খবর