শুক্রবার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৪ ১৪২৬   ২০ মুহররম ১৪৪১

১৪৭০

সংবাদ সম্পূর্ন মিথ্যা  হলে, থানায়  মিথ্যা এজহার দিলেন কেন সুমন !

প্রকাশিত: ১৬ জুন ২০১৯ ১৯ ০৭ ৪৭  

১৪জুন ড্রিম সিলেটে ‘প্রেমের জেরে উপশহরে গণধোলাই খেলেন থাই শ্রমিক সুমন‘ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদে ভিন্নমত প্রকাশ করেছেন এইচ আর সুমন। ১৫জুন প্রেরিত এক প্রতিবাদ লিপিতে বলেন, সংবাদে যে মেয়ের সাথে তার নাম জড়ানো হয়েছে সেই মেয়ের  নাম ও ঠিকানা সুস্পষ্ট করে প্রকাশ করা হয়নি। এরামিট থাই এ্যালুমিনিয়াম নামের কথা উল্লেখ করা হয়েছে, সেই নামের কোন দোকান নেই উপশহরে। প্রকাশিত সংবাদে তার কোন বক্তব্য নেয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন তিনি। 
প্রতিবেদকের বক্তব্য: সংবাদটি স্থানীয় একাধিক তথ্য সূত্রে লেখা হয়েছে তাৎক্ষনিক ভাবে । আইনগত সীমাবদ্ধতা থাকায় মেয়ের নাম ও  ঠিকানা প্রকাশ করা যায়নি। তবে সংবাদে প্রকাশিত মেয়েদের সাথে অন্তরঙ্গ ছবিটি অস্বীকার করেননি তিনি। এরামিট থাই এ্যালুমিনিয়াম উপশহরে নেই বলে তিনি উল্লেখ করলে, তিনি যে থাই শ্রমিক নন, সে বিষয়ে প্রতিবাদ লিপিতে কোন বক্তব্য তার নেই। প্রতিবাদলিপি পাওয়ার পর ফোনে যোগাযোগ করলে সুমন জানান এরামিট নামে কিছুই ছিনেন না। পাঠকের অবগতির স্বার্থে এরামিট গ্রুপের ছবি সহ তার আইডি কার্ডটি প্রকাশ করতে বাধ্য হলাম আমরা। প্রতিবাদলিপিতে উল্লেখ করেছেন, তার বক্তব্য নেয়া হয়নি, ফোনে তার বক্তব্য নেয়ার চেষ্টা করলেও ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। এছাড়া তিনি বলেছেন, প্রকাশিত সংবাদটি সম্পূর্ন্ন মিথ্যা, তার মিথ্যা দাবী যদি সত্য হলে ১৪ জুন উপশহরে তার উপর হামলা বা গণধোলাই বা এরকম কোন ঘটনা ঘটেনি। তবে কেন ১৫ জুন শাহপরান থানায় নিজে বাদী হয়ে মামলা (১৬/১১৫ নং) করেছেন তিনি ? প্রকাশিত সংবাদ মিথ্যা হলে, তার দায়েরকৃত মামলাটিও উদ্দেশ্যে প্রণোধিত, পুলিশকে বিভ্রান্ত করে হয়রানীর অস্ত্র হিসেবে এ মামলাটি করেছেন তিনি। 
প্রসঙ্গত: ২০১৬ সালের ১৬ আগষ্ট একাধিক মামলার পলাতক আসামী হিসেবে এইচ আর সুমনকে গ্রেফতার করেছিল শাহপরান থানা পুলিশ। তৎকালীন ওসি শাহজালাল মুন্সি গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছিলেন, তাকে অপহরন, ছিনতাই, চাঁদাবাজি সহ ৩টি মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে। ড্রিম সিলেটে প্রকাশিত সংবাদের মামলার সেই তথ্যও কি ভূল বলে, বক্তব্য করবেন সুমন।   
 

Dream Sylhet
ড্রীম সিলেট
ড্রীম সিলেট
এই বিভাগের আরো খবর