বুধবার   ২৬ জুন ২০১৯   আষাঢ় ১১ ১৪২৬   ২১ শাওয়াল ১৪৪০

১৭৬

বৈরী আহবাওয়াতেও সিলেটের বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে মানুষের ঢল

প্রকাশিত: ৯ জুন ২০১৯ ১৯ ০৭ ২৮  

এ টি এম তুরাব:: দুপুরের পর থেকে সিলেট নগরী ও শহরতলীর বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে নানা বয়সী মানুষের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। ঈদের দিন থেকে প্রতিদিন দুপুরের পর থেকে সাধারণ মানুষ বিনোদন কেন্দ্রগুলো ভিড় জমাতে শুরু করেছেন। বিশেষ করে ছোট্ট বাচ্চাদের নিয়ে এদিন শিশুপার্কে প্রবেশের লাইন ছিল দীর্ঘ।
ঈদ মানে খুশি, ঈদ মানে আনন্দ। প্রিয়জনের সঙ্গে সেই ঈদ আনন্দ পুরোপুরি উদযাপন করতেই নগরী ছেড়েছেন কয়েক হাজার মানুষ। পবিত্র ঈদুল ফিতরের ছুটির কারণে সিলেট নগরী এখন অনেকটাই ফাঁকা। যানজট ও কোলাহলমুক্ত নগরীতে নেই প্রাণচাঞ্চল্যতা। ব্যস্ততম এলাকাতেও নেই মানুষের ভিড়। তবে সিলেটের বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ভিড় আছে। মৃদু বৃষ্টি উপেক্ষা করেও ঈদের দুইপরও সিলেটের বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।
বিনোদন প্রত্যাশীরা ছুটে গিয়েছিলেন জাফলং, বিছনাকান্দি কিংবা রাতারগুলে। এবার বৈরী আহবাওয়ার কারণে অনেকেই সিলেটের বাইরে বের হননি। তারা শহুরে জীবনে ঈদের আনন্দ কাটিয়েছেন। নগরীতে বিনোদনে তেমন স্থান নেই। রয়েছে বঙ্গবীর ওসমানী শিশু উদ্যান নামে একটি শিশুপার্ক। শিশুপার্কে ঈদের দিন থেকেই দর্শনার্থীদের স্থান সংকুলান হচ্ছিল না। ভিড় যেনো উপচে পড়ছিলো। শুধু শিশুরাই নয়, সব বয়েসী মানুষেরা ভিড় জমিয়েছিলেন এই শিশুপার্কে। 
গত বৃহস্পতিবার, শুক্রবার ও শনিবার পরিবার-পরিজন নিয়ে ওসমানী শিশু উদ্যান, ড্রিমল্যান্ড, ইকো পার্ক, অ্যাডভেঞ্জার ওয়ার্ল্ড বিনোদন কেন্দ্রে সময় কাটাতে ছুটে এসেছেন হাজার হাজার বিনোদনপ্রেমী। বিকেলে নগরীর ধোপাদিঘীর পাড় ওসমানী শিশু উদ্যানে ছিলো নানা বয়সী মানুষের ঢল। 
শিশুদের উপস্থিতির তুলনায় এই পার্কে রাইডের সংখ্যা কম, তাই একেকটি রাইডে উঠার জন্য অপেক্ষা করতে দেখা যায় শিশুদের। তারপরও শিশুদের চোখে মুখে ছিলো আনন্দ। সেই সঙ্গে বড়রাও ব্যস্ত ছিলেন ছবি ও সেফফি তোলায়। শিশুপার্ক হচ্ছে শিশুদের বিনোদন। শহুরে জীবনে তরুণ-তরুণীদের জন্য বিনোদনের জায়গা হচ্ছে সিলেটের সুরমার উপর স্থাপিত কাজিরবাজার ব্রিজ। সন্ধ্যা নামলেই পা ফেলার জায়গা থাকে না কাজির বাজার ব্রিজে। সব বয়েসী মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয় এই ব্রিজটি। স্থানীয়ভাবে এই ব্রিজকে অনেকেই সেলফি ব্রিজ হিসেবে আখ্যায়িত করেন। এর কারণ- সন্ধ্যার পর ব্রিজের উপর সোডিয়াম বাতির আলো জ্বলে উঠে। আর এই আলোয় খেলায় বর্ণিল হয়ে উঠে গোটা ব্রিজ এলাকা। বর্ণিল আলোর বাহারে সেলফিতে মেতে উঠেন তরুণ- তরুণীরা।
নগরীর কুয়ারপার এলাকার বাসিন্দা সিনিয়র সাংবাদিক ফয়ছল আলম জানালেন, এই ব্রিজে সেলফি সুন্দর হয়। এজন্য অনেকেই এই ব্রিজকে সেলফি ব্রিজ বলে ডাকেন। দূর-দূরান্ত থেকে পর্যটকরা সেলফি তুলতেই ব্রিজে আসেন। এবং বিকাল হলেই ব্রিজের উপর হাজার হাজার মানুষের সমাগম হয়। 
এ দুটি স্থান ছাড়াও সিলেটের কিনব্রিজ এলাকায়ও গত তিনদিন ধরে ভিড় বাড়ছে। বিকালে মুক্ত বাতাসে বেড়ানোর স্বাদ পেতে শহুরের মানুষেরা ভিড় জমাচ্ছেন এসব এলাকায়। এর বাইরে সিলেট শহরের পাশেই রয়েছে ড্রিমল্যান্ড পার্ক, এডভেঞ্চারওয়ার্ল্ড পার্ক, পর্যটন মোটেল, আলুর তল, এমসি কলেজসহ কয়েকটি এলাকা। এসব এলাকায় উপচে পড়ছেন দর্শনার্থীরা।
 

Dream Sylhet
ড্রীম সিলেট
ড্রীম সিলেট
এই বিভাগের আরো খবর