রোববার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৬ ১৪২৬   ২২ মুহররম ১৪৪১

১০৭২

ফেঞ্চুগঞ্জ টুলবক্সে ইচ্ছেমত অর্থ আদায়, ইজারাদার নেই

বানানো রসিদে স্বাক্ষর আছে, তবে মোড়া উধাও

প্রকাশিত: ১৩ আগস্ট ২০১৯ ২২ ১০ ০৮  

মুহাম্মদ হাবিলুর রহমান জুয়েল, ফেঞ্চুগঞ্জ::  সিলেট ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার কুশিয়ারা নদীর উপর নির্মিত কুশিয়ারা সেতুর টুল ফি আদায় করা হয় নিয়মিত।  কিন্তু টুল ফি বাবত যে রসিদ দেওয়া হয় তাতে উল্লেখ থাকে না কোন গাড়ি পার হল। এমনকি মাঝে মাঝে রশিদের প্রয়োজনই হয় না। 
গতকিছুদিন পূর্বে ফেঞ্চুগঞ্জের সাহসী সাংবাদিক খ্যাত মুহাম্মদ হাবিলুর রহমান জুয়েল এর উপর কয়েকটি প্রতিবেদন বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রচার করেন।

আজ মঙ্গলবার সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে দেখা গেল স্বাক্ষর সহ কিছু রসিদ রেখে দেওয়া হয়েছে যা কিছু গাড়িকে দেওয়া হচ্ছে। এগুলো একটি কৌটায় ভর্তি করে রেখেছেন দায়িত্বে থাকা কর্মচারী। 
জানতে চাইলাম মূল অর্থাৎ রসিদ বইয়ে উল্লেখ না করে চালকের রসিদ দিলেন এতে কি হিসাব ঠিক থাকবে?
তিনি জানালেন এটা করার সময় আমাদের নেই।

এমনকি অফিসের লভেতরে নেই কোন রসিদ বইয়ের মোড়া বা অর্থনৈতিক হিসাব৷ 

ইজারাদার সম্পর্কে জানতে চাইলে কতৃপক্ষ জানান, তিন বছরের লিজ ছিল এখন পাচ বছর হয়ে গেছে। 

কিন্তু ইজারা কে বা কারা নিয়েছেন তা সম্পর্কে জানতে চাইলে টুলবক্সের হিসাবরক্ষক (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) জানান আমরা শুধু বেতন পাই৷ কোথা থেকে বেতন আসে আও জানাতে অস্বীকার করেন না। 

তাহলে কি সরকারি অর্থ এখন দুর্নীতিবাজ আর প্রভাবশালীদের পক্ষে। 

প্রশ্ন উঠছে দশ বছরেও কি এই সেতুর অর্থ উঠেনি। না এগুলো কারো পকেটে ঢুকছে।

Dream Sylhet
ড্রীম সিলেট
ড্রীম সিলেট
এই বিভাগের আরো খবর