শনিবার   ১৭ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ২ ১৪২৬   ১৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

২২৭

নেপথ্যে বালু লুটপাট: কালা মিয়াকে তুলোধুনো করলেন শামীম

প্রকাশিত: ১৯ জুলাই ২০১৯ ১৭ ০৫ ০৪  

ডেস্ক রিপোর্ট:: সিলেটের সীমান্তবর্তী উপজেলা কোম্পানীগঞ্জ ঘুরে ফিরে পাথররাজ্য নিয়ে আলোচনায় আসেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। পাথর কোয়ারি ও বালু মহাল নিয়ে প্রতিবছরই নানা আলোচনা সমালোচনার জন্ম দেন তারা। এবার মহাল লুটপাট ও নৌপথে চাদাবাজি নিয়ে মুখ খুললেন আলোচিত আওয়ামী রীগ নেতা ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ শামীম আহমদ। তিনি ইজারাদার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আপ্তাব আলী কালা মিয়ার একহাত নিয়েছেন। তুলোধুনো করেছেন বালু মহাল ইজারার নামে লুটপাট নিয়ে। এ নিয়ে কয়েকদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ গণমাধ্যমে সমালোচনা চলছে।
নির্বাচিত হওয়ার পর উপজেলার পাথর ও বালু মহালসহ নানা ইস্যুতে বিরুদ্ধে অবস্থান নেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শামীম আহমদ। এবার প্রকাশ্যে অবস্থান নিয়েছেন তিনি। অভিযোগ করেছেন উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে। উপজেলা চেয়ারম্যান শামীম প্রতিদিন ৫০ লাখ টাকার বালু লুটপাটের লিখিত অভিযোগ করেছেন কালা মিয়ার বিরুদ্ধে। পাশাপাশি সরকারের রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগ করেন তিনি। অবশ্য কালা মিয়া নিজের ইজারাকৃত মহাল ছাড়া অন্য কোথাও থেকে বালু উত্তোলনের সাথে তিনি জড়িত নয় বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন।   
বুধবার বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগে শামীম আহমদ উল্লেখ করেন, উপজেলায় ভাটরাই মৌজার একাংশ গত ৩০ জুন ১৬ লাখ টাকায় ইজারা নেন মেসার্স মাহমুদ বাণিজ্যিক সংস্থা ও কুলসুমা স্টোন ক্রাশারের স্বত্বাধিকারী আপ্তাব আলী কালা। কিন্তু তিনি ভাটরাই মৌজাসহ অপর দুটি মৌজা ছাড়াও ধলাই নদী বালু মহাল থেকে তিনি বালু উত্তোলন করছেন। ইতোমধ্যে প্রায় ২০ কোটি টাকার বালু লুটপাট করা হয়েছে। প্রতিদিন গড়ে ৫০ লাখ টাকার বালু ও তার সঙ্গে পাথরও লুটপাট করা হচ্ছে বলে শামীম দাবি করেন।
উপজেলা চেয়ারম্যান শামীম বলেন, আমার অবস্থান চাদাবাজ ও অবৈধভাবে বালু লুটপাটকারীদের বিরুদ্ধে। তিনি জানান, অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে কালিবাড়ি, কালাইরাগ, মুক্তিযোদ্ধা আদর্শ গ্রাম, ভোলাগঞ্জ আদর্শ গুচ্ছ গ্রাম, বিজিবি ক্যাম্প ও কাস্টমস এলাকা হুমকীতে রয়েছে। 
অভিযোগ প্রসঙ্গে আপ্তাব আলী কালা মিয়া জানান, তিনি তার ইজারাকৃত মহাল থেকে রয়্যালিটি আদায় করছেন। ইতোমধ্যে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বালু মহালে লাল ফ্ল্যাগ টানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর বাইরে তিনি বালু উত্তোলনকারীদের কাছ থেকে টাকা নিচ্ছেন না। শামীম আহমদের অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি জানান, তার অভিযোগ উদ্দেশ্য প্রনোদিত।
 

Dream Sylhet
ড্রীম সিলেট
ড্রীম সিলেট
এই বিভাগের আরো খবর