বৃহস্পতিবার   ১৭ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ২ ১৪২৬   ১৭ সফর ১৪৪১

১৭৪

জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু মোকাবেলায় প্রস্তুত হাসপাতাল, রোগীর সংখ্যা ১

মো.শাহজাহান মিয়া,জগন্নাথপুর::

প্রকাশিত: ৪ আগস্ট ২০১৯ ১৮ ০৬ ৫২  

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু মোকাবেলায় সর্বদা প্রস্তুত রয়েছে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। এ পর্যন্ত ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা মাত্র ১ জন হলেও মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। তবে জগন্নাথপুরে এডিশ মশার অস্থিত্ব নেই বলে দাবি করেছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। যে কারণে আতঙ্কিত না হতে মানুষের প্রতি আহবান জানানো হয়েছে।
৪ আগষ্ট রোববার সরজমিনে দেখা যায়, জগন্নাথপুর হাসাপাতালে কোন ডেঙ্গু রোগী নেই। তবে ডেঙ্গু প্রতিরোধে নেয়া হয়েছে বিভিন্ন ব্যবস্থা। হাসপাতাল ও হাসপাতালের আঙ্গিনা পরিস্কার-পরিছন্ন করা হয়েছে। হাসাপতালে ভর্তিকৃত রোগীদের দেয়া হয়েছে মশারী।
তবে গত প্রায় ২ সপ্তাহ ধরে সারা দেশে ডেঙ্গুর মহামারি হলেও জগন্নাথপুরে কোন ডেঙ্গু রোগী ছিলনা। অবশেষে ৪ আগষ্ট রোববার বেলাল মিয়া (১৮) নামের একজন ডেঙ্গু রোগী জগন্নাথপুর হাসপাতালে আসলে তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়। তিনি ছাতক থানার হায়দরপুর গ্রামের গোলাপ মিয়ার ছেলে।
এ ব্যাপারে হাসাপাতালের জরুরী বিভাগের দায়িত্বে থাকা ডাঃ মির্জা মোহাম্মদ আলী খান রুবেল বলেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে সবাইকে আরো সচেতন হতে হবে। ডেঙ্গু রোগের সম্ভাব্য লক্ষন সম্পর্কে তিনি বলেন, টানা কয়েক দিন জ¦র থাকা, চোখ লালচে হওয়া, চোখে ব্যথা করা, বমি হওয়া, পেটে ব্যথা হওয়া ও শরীরের তাপমাত্রা কমে যাওয়া সহ ইত্যাদি লক্ষন দেখা গেলে অবশ্যই ডাক্তারের স্বরনাপন্ন হতে হবে। এছাড়া নতুন কিছু লক্ষন আছে, যা অনেক সময় বুঝা যায় না। তিনি আরো বলেন, জগন্নাথপুরে কোন এডিশ মশার অস্তিত্ব নেই। সুতরাং আতঙ্কিত না হওয়ার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ডেঙ্গু রোগী বেলাল ঢাকাতে আক্রান্ত হয়ে জগন্নাথপুরে এসেছে। এছাড়া অন্য একটি প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ডেঙ্গু রোগ চিহিৃত করার যন্ত্রপাতি ও মেডিসিন আপাতত আমাদের কাছে নেই। তবে তিনি সকলের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে ঢাকা থেকে অনেক মানুষ জগন্নাথপুর আসলে এবং তাদের জ¦র থাকলে অবশ্যই তাদেরকে ডাক্তারের স্বরনাপন্ন হতে হবে। তা না হলে ঈদের পর জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বেড়ে যেতে পারে।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মধু সুধন ধর বলেন, ডেঙ্গু মোকাবেলায় আমরা সর্বদা প্রস্তুত রয়েছি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আজকে ৪ আগষ্ট রোববারের মধ্যেই ডেঙ্গু রোগ চিহিৃতকরণ যন্ত্রপাতি ও মেডিসিন চলে আসবে। সুতরাং কাউকে আতঙ্কিত না হতে তিনি সকলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। 
 

Dream Sylhet
ড্রীম সিলেট
ড্রীম সিলেট
এই বিভাগের আরো খবর