শনিবার   ১৯ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৪ ১৪২৬   ১৯ সফর ১৪৪১

২৬৬

গোায়াইনঘাটের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন 

প্রকাশিত: ১১ জুলাই ২০১৯ ২২ ১০ ৪১  

গোয়াইনঘাট সংবাদদাতা:: টানা বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আশা পাহাড়ী ঢলে সিলেটের গোায়াইনঘাটের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এতে করে উপজেলার অধিকাংশ মানুষ পানিবন্ধি হয়ে পরেছেন। বন্যার পানির কারণে উপজেলা সদরের সাথে প্রায় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে বিভিন্ন এলাকর। তাছাড়া বন্যার পানি বৃদ্দি পাওয়ার কারণে দুটি পাথর কোয়ারি বন্ধ হেেয়ছে। অনেক শিা প্রতিষ্ঠান ও বাড়ি ঘড়ে পানি উঠার কারনে দুর্ভোগ বেড়েছে শিার্থীসহ বণ্যা কবলিতএলাকার সাধারণ মানুষের । আর বিভিন্ন এলাকায় পানি প্রবাহিত রোগবালাই দেখা দিয়েছে। 
কয়েক দিনের টানা বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাাবিত হয়েছে। এতে অনেকের বসত ঘরে পানি উঠায় গবাদি পশু নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন। আবার কাউকে তাদের গবাদি পশু নিয়ে অন্যত্র আশ্রয় খোঁজতে দেখা গেছে। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার বিভিন্ন শিা প্রতিষ্ঠানে পানি ডুকে পরে এবং একাধিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা না আসতে পারায় বন্ধ রয়েছে উপজেলার অনেক শিা প্রতিষ্ঠান। পিয়াইন ও সারী নদী দিয়ে আসা পাহাড়ি ঢলের কারনে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে উপজেলার নিম্নাঞ্চল গুলোতে পানি বৃদ্ধি পেতে থাকে। বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত উপজেলার পুর্ব জাফলং, আলীরগাঁও, রুস্তমপুর, ডৌবাড়ি, লেঙ্গুড়া, তোয়াকুল ও নন্দীরগাঁও ইউনিয়নের অধিকাংশ গ্রামের রাস্তাাঘাট ও বাড়ি ঘর পানিতে প্লাবিত হয়। এতে করে গোয়াইনঘাট উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগের গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাঘাট তলিয়ে গেছে। যার ফলে উপজেলা সদরের সাথে এসব এলাকার যোগাযোগ ব্যাবস্থা এক রকম বিচ্ছিন্ন রয়েছে। 
অপরদিকে পাহাড়ী ঢলে উপজেলার নয়াগাঙ্গের পাড় ও বাউরবাগ হাওড় গ্রামের নদীর তীরবর্তী বসত বাড়ি ভাঙ্গনের কবলে রয়েছে। পাশাপাশি এই এলাকার নদীর তীর সংরণ ও ফসলী জমি রায় বেড়ীবাধ গুলোও রয়েছে হুমকির মূখে। 
এদিকে নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বিছনাকান্দি ও জাফলং দু‘টি পাথর কোয়ারির সকল প্রকার কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এই দুটি পাথর কোয়ারির সাথে সংশ্লিষ্ট প্রায় লাধিক শ্রমিক বেকার হয়ে পরেছেন। 
গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ^জিত কুমার পাল জানান, উপজেলার ভিবিন্ন এলাকায় পানি বৃদ্ধির খবর পেয়ে সাথে সাথে ত্রান ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সাথে যোগাযোগ করা হয়েছে। উপজেলার প্রত্যকটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদেরকে বন্যা পরিস্থিতি প্রাথমিক ভাবে মোকাবেলা করে দ্রুত রিপোর্ট প্রদানের জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তাদের রিপোর্ট অনুযায়ী ত্রাণ সহ প্রয়োজনীয় সবধরণের সহায়তা প্রধানে উপজেলা প্রশাসনের প থেকে উর্ধ্বতন কতৃপকে অবহিত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Dream Sylhet
ড্রীম সিলেট
ড্রীম সিলেট
এই বিভাগের আরো খবর