মঙ্গলবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ১ ১৪২৬   ১৭ মুহররম ১৪৪১

১০৭

ওসমানীনগরে ধর্ষণ মামলার আসামি-পুলিশ গোলাগুলি, পুলিশসহ আহত-৫

প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০ ১২ ১২  

শাহীন চৌধুরী, ওসমানীনগর:: সিলেটের ওসমানীনগরে পুলিশ-ধর্ষণ মামলার আসামি সংঘর্ষে ৪ পুলিশসহ পাঁচজন আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ ১১ রাউন্ট শর্টগুলি করে।  এতে গুরুতর আহত হন, ওসমানীনগর থানার এসআই সাইফুল ইসলাম, এএসআই ইয়াছির আরাফাত চৌধুরী, কন্সটেবল জীবন চন্দ্র দে, শিমুল ও গুলিবিদ্ধ হয় ধৃত আসামী খোকন বালী (২৮)।  সে খুলনার বাগেরহাট এলাকার ধননগর এলাকার জাহাঙ্গীর বালীর ছেলে।  ঘটনাটি ঘটেছে রোববার দিবাগত রাত ১১টায় উপজেলার গোয়ালাবাজার-উমরপুর রোডস্থ লামা ইসবপুর দক্ষিণ পাড়াগামী পাকা রাস্তার উপর।  

পুলিশ ও নির্যাতিতা কিশোরীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, খুলনার বাগেরহাটের জাহাঙ্গীর আলীর ছেলে খোকন মিয়া (৩৫) প্রতারণা করে খুলনা সদরের এক কিশোরীকে (১৪) সিলেটের ওসমানীনগরের উমরপুর ইউপির কামালপুর গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী মাহমদ আলীর বাড়িতে রেখে দীর্ঘদিন ধরে ধর্ষণ করে আসছিল। ওই প্রবাসীর বাড়ির কেয়ারটেকার হচ্ছে খোকনের পিতা জাহাঙ্গীর। এর আগে খোকন খুলনা সদরের বাসিন্দা ওই কিশোরীর মায়ের সাথেও অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করে দীর্ঘ দিন তাকে ধর্ষণ করে।

এদিকে বিষয়টি কিশোরীর মা জানতে পেরে সিলেট আসেন। রোববার রাতে ওসমানীনগর থানায় অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে (মামলা নং-১০) দায়ের করেন।

থানায় কিশোরীর মায়ের দায়ের করা মামলার প্রেক্ষিতে খোকনকে গ্রেফতার ও কিশোরীকে উদ্ধার করতে রোববার দিবাগত দিবাগত রাত ১১টায় উপজেলার উমরপুর ইউনিয়নের কামালপুর গ্রামের প্রবাসীর বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ।

এসময় পুলিশ ধর্ষক খোকনকে গ্রেফতার করে এবং ভিকটিম কিশোরীকেও উদ্ধার করে। গ্রেফতারের পর খোকনকে ওসমানীনগর থানায় নিয়ে আসার পথে গোয়ালাবাজার-উমরপুর রোডস্থ লামা ইসবপুর দক্ষিণ পাড়াগামী পাকা রাস্তার উপর সে পুলিশের গাড়ি থেকে লাফিয়ে পড়ে পালানোর চেষ্টা করে। তখন পিছন দিকে থাকা খোকনের পিতা জাহাঙ্গীর ও অন্যরা খোকনকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে পুলিশের উপর হামলা চালায়। আসামী খোকন দৌড়ে পালানোর সময় পুলিশ সদস্যরা তাকে গুলি করে। সে ডান পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়।  পিছনে থাকা খোকনের পিতা জাহাঙ্গীর ও খোকনের সহযোগীদের হামলায় ওসমানীনগর থানার ৪ পুলিশ সদস্য আহত হয়।

পুলিশের কাছ থেকে আসামী ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগে খোকন ও তার পিতা জাহাঙ্গীরসহ তাদের সহযোগীদের আসামী করে ওসমানীনগর থানার এসআই সাইফুল মোল্লা বাদী হয়ে পৃথক আরেকটি পুলিশ অ্যাসল্ট (মামলা নং-১১) দায়ের করেছেন।

ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম আল মামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ওসমানীনগর থানায় দায়ের করা অপহরণ ও ধর্ষণ মামলার আসামি খোকন মিয়া। পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসার সময় আসামির বাবা ও তার কিছু লোকজন আসামি ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এসময় তারা পুলিশের উপর হামলা করে। পরে আমরা শর্টগান দিয়ে ফায়ার করি। এসময় আসামি আহত হয়। আর আমাদের চার পুলিশ সদস্য আহত হন। ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য সোমবার ভিক্টিম মা ও মেয়েকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে প্রেরণ করা হয়েছে।  এ ঘটনায় ধর্ষক খোকনের পিতা জাহাঙ্গীরকে আটক করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

Dream Sylhet
ড্রীম সিলেট
ড্রীম সিলেট
এই বিভাগের আরো খবর